ঢাকা ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

‘নির্বাচনকালীন সময়ে সরকারে এমপিদের স্বাগত জানানো হবে’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:২৭:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ মে ২০২৩
  • / ৪৫৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ নির্বাচন নিয়ে ভয় পায় না, নির্বাচনের সময়ে সংসদ সদস্যদের মধ্যে কেউ সরকারে আসতে চাইলে তাদের স্বাগত জানানো হবে। আমরা আগেও এই ইতিহাস সৃষ্টি করেছি। সোমবার (১৫ই মে) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ সব কথা বলেন। জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে সাম্প্রতিক সফর নিয়ে তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

দেশে আন্দোলনরত বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের বিষয়টি আবারও নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আলোচনায় কিসের জন্য ডাকতে যাবো? তাদের ডিমান্ডই তো ঠিক নাই।

নির্বাচন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘নির্বাচন নিয়ে আমার ভয় কিসের? জনগণ ভোট দিলে আছি না দিলে নাই। সংসদে কেউ যদি নির্বাচনকালীন সরকারে আসতে চায়, আসবে। বিএনপি আন্দোলন করবে করুক, কিন্তু আন্দোলনের নামে আবার মানুষের জানমালের ক্ষতি করলে আর ছাড় দেবো না। আওয়ামী লীগ যতো বেশি কাজ করে ততোবেশি আওয়ামী লীগের পেছনে লেগে থাকে।’

নির্বাচনী ইশতেহার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের আগামী নির্বাচনী ইশতেহারের ঘোষণাই হবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’। ‘যদিও এটা আগে বলে দিয়েছি, তবে এটাই হবে আমাদের মেইন, অর্থাৎ বাংলাদেশকে আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলবো। বাংলাদেশে কোনো দারিদ্র্য থাকবে না, দেশের সব মানুষ উন্নত জীবন পাবে।’

সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা বাড়ানো বিষয়ে সরকারের আরও কোনো পরিকল্পনা আছে কি না- এ প্রশ্নে শেখ হাসিনা বলেন, যারা কোভিডের কারণে পরীক্ষা দিতে পারেনি বা নির্বাচনী পরীক্ষায় আসতে পারেনি, তাদের ক্ষেত্রবিশেষে শিথিল করা হয়েছে। এটা হয়েও গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

‘নির্বাচনকালীন সময়ে সরকারে এমপিদের স্বাগত জানানো হবে’

আপডেট সময় : ০৬:২৭:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ মে ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ নির্বাচন নিয়ে ভয় পায় না, নির্বাচনের সময়ে সংসদ সদস্যদের মধ্যে কেউ সরকারে আসতে চাইলে তাদের স্বাগত জানানো হবে। আমরা আগেও এই ইতিহাস সৃষ্টি করেছি। সোমবার (১৫ই মে) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ সব কথা বলেন। জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে সাম্প্রতিক সফর নিয়ে তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

দেশে আন্দোলনরত বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের বিষয়টি আবারও নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আলোচনায় কিসের জন্য ডাকতে যাবো? তাদের ডিমান্ডই তো ঠিক নাই।

নির্বাচন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘নির্বাচন নিয়ে আমার ভয় কিসের? জনগণ ভোট দিলে আছি না দিলে নাই। সংসদে কেউ যদি নির্বাচনকালীন সরকারে আসতে চায়, আসবে। বিএনপি আন্দোলন করবে করুক, কিন্তু আন্দোলনের নামে আবার মানুষের জানমালের ক্ষতি করলে আর ছাড় দেবো না। আওয়ামী লীগ যতো বেশি কাজ করে ততোবেশি আওয়ামী লীগের পেছনে লেগে থাকে।’

নির্বাচনী ইশতেহার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের আগামী নির্বাচনী ইশতেহারের ঘোষণাই হবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’। ‘যদিও এটা আগে বলে দিয়েছি, তবে এটাই হবে আমাদের মেইন, অর্থাৎ বাংলাদেশকে আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলবো। বাংলাদেশে কোনো দারিদ্র্য থাকবে না, দেশের সব মানুষ উন্নত জীবন পাবে।’

সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা বাড়ানো বিষয়ে সরকারের আরও কোনো পরিকল্পনা আছে কি না- এ প্রশ্নে শেখ হাসিনা বলেন, যারা কোভিডের কারণে পরীক্ষা দিতে পারেনি বা নির্বাচনী পরীক্ষায় আসতে পারেনি, তাদের ক্ষেত্রবিশেষে শিথিল করা হয়েছে। এটা হয়েও গেছে।