ঢাকা ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

নারায়ণগঞ্জে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে দগ্ধ জাহিদ মারা গেছেন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৮:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৪০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় গ্যাস সিলিন্ডার লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ জাহিদ (৪০) নামে এক ব্যক্তির মারা গেছেন।

রোববার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মারা যান তিনি। জাহিদ একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তার বাড়ি ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা থানা এলাকায়।

জাহিদের শরীরের ৩০ শতাংশ দগ্ধ ছিল বলে জানান ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন।

এর আগে শনিবার (১৭ ডিসেম্বর) দগ্ধ অবস্থায় সকাল সাড়ে সাতটায় তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। দগ্ধ অন্যরা হলেন- তার স্ত্রী রুমা (২৭), মেয়ে লাবনী (১১) ও ছেলে ইয়াসিন (৮)। এদের মধ্যে রুমার শরীরের ২৩ শতাংশ, লাবনীর শরীরের ২২ শতাংশ ও ইয়াসিনের শরীরের ১০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া জানান, রূপগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে একই পরিবারের চারজন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে এসেছিলেন। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে জাহিদের। মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে দগ্ধ জাহিদ মারা গেছেন

আপডেট সময় : ১২:১৮:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় গ্যাস সিলিন্ডার লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ জাহিদ (৪০) নামে এক ব্যক্তির মারা গেছেন।

রোববার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মারা যান তিনি। জাহিদ একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তার বাড়ি ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা থানা এলাকায়।

জাহিদের শরীরের ৩০ শতাংশ দগ্ধ ছিল বলে জানান ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন।

এর আগে শনিবার (১৭ ডিসেম্বর) দগ্ধ অবস্থায় সকাল সাড়ে সাতটায় তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। দগ্ধ অন্যরা হলেন- তার স্ত্রী রুমা (২৭), মেয়ে লাবনী (১১) ও ছেলে ইয়াসিন (৮)। এদের মধ্যে রুমার শরীরের ২৩ শতাংশ, লাবনীর শরীরের ২২ শতাংশ ও ইয়াসিনের শরীরের ১০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া জানান, রূপগঞ্জে গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে একই পরিবারের চারজন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে এসেছিলেন। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে জাহিদের। মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে।