ঢাকা ০৮:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
ব্রেকিং নিউজ ::
চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে নিহত ২ :: ঢাকা কলেজের সামনে সংঘর্ষে যুবক নিহত :: রংপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বেরোবি শিক্ষার্থী নিহত :: ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন :: রণক্ষেত্র মহাখালী, পুলিশ বক্সের সামনে দুটি মোটরসাইকেলে আগুন :: চার শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ, উত্তাল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা :: আজও ছাত্রলীগের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ, রণক্ষেত্র ঢাবি

নাট্য পরিচালক ও প্রযোজক মনির হোসেন জীবন মারা গেছেন

বিনোদন প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০২:১৭:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪
  • / ৪১৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

‘আজ রবিবার’খ্যাত নাট্য পরিচালক ও প্রযোজক মনির হোসেন জীবন আর নেই (ইন্না লিল্লাহি… রাজিউন)। বুধবার (২৬ জুন) রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। গণমাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নির্মাতা ফরিদুল হাসান।

জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যার দিকে ব্রেইন স্ট্রোক করেছিলেন মনির হোসেন। পরে তাঁকে জরুরিভিত্তিতে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু তাঁকে বাঁচানো গেল না। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে মনির হোসেনের মরদেহ রাখা হবে সর্ব সাধারণের শ্রদ্ধার নিবেদনের জন্য। সেখানেই অনুষ্ঠিত হবে প্রথম জানাজা। পরে তাঁর লাশ নিয়ে যাওয়া হবে গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জেলার মনোহরদীতে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানার কুতুবদী (বড় বাড়ী) গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মনির হোসেন জীবন। তাঁর বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. এম এ আজিজ ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা।

মনির হোসেন জীবন আশির দশকে নরসিংদী জেলাতে এবং সার্ভিসেস দল বাংলাদেশ আনসার দলের মাঠ মাতানো খেলোয়াড় ছিলেন। পাশাপাশি বিনোদন চর্চা করতেন ঊদিচী শিল্পী গোষ্ঠীতে। পরবর্তী সময়ে ঢাকাতে বাংলাদেশ থিয়েটারের মাধ্যমে মঞ্চ নাটকে জড়িত হন।

১৯৯০ সালে চাচা চলচ্চিত্র পরিচালক বদিউল আলম খোকনের হাত ধরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। বিটিভির প্রথম প্যাকেজ ধারাবাহিক নাটক মামুনুর রশিদের ‌‘শিল্পী’ এবং হুমায়ূন আহমেদের ‘নক্ষত্রের রাত’ নাটকের প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন মনির হোসেন। তাঁর কাজের এবং মেধার দক্ষতা দেখে হুমায়ূন আহমেদ তাঁকে ‘নুহাশ চলচ্চিত্রের’ প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেন।

২০০০ সাল থেকে মনির হোসেন জীবন তাঁর নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা ‘স্বাধীন চলচ্চিত্র’ গঠন করেন। তাঁর প্রযোজনা সংস্থা থেকে তিনি অসংখ্য একক নাটক নির্মাণ করেছেন। এরমধ্যে ‘শাদা কাগজ’, ‘বন্যার চোখে জল’, ‘অপ্রত্যাশিত প্রত্যাশা’, ‘অতঃপর নিঃস্বঙ্গতা’, ‘একজন ময়না’, ‘গানম্যান’, ‘বিবাহ সংকট’, ‘কোরবান আলীর কোরবানী’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

ক্যারিয়ারে অসংখ্য জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ও টেলিফিল্ম উপহার দিয়েছেন মনির হোসেন জীবন। এরমধ্যে ‘আজ রবিবার’, ‘চোর কাঁটা’, ‘আলী বাবা চল্লিশ স্মাগলার’, ‘অভিমানী’, ‘ফৈজু কবিরাজ’, ‘সেই করেছো ভাল’, ‘নীল ছায়া’, ‘খন্ডচিত্র’, ‘গুজব’, ‘ভবের মানুষ’, ‘ফটিক চোর না সবাই’, ‘গুনীন’, ‘আগন্তুক’, ‘থানার নাম শনির আখড়া’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

নিউজটি শেয়ার করুন

নাট্য পরিচালক ও প্রযোজক মনির হোসেন জীবন মারা গেছেন

আপডেট সময় : ০২:১৭:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

‘আজ রবিবার’খ্যাত নাট্য পরিচালক ও প্রযোজক মনির হোসেন জীবন আর নেই (ইন্না লিল্লাহি… রাজিউন)। বুধবার (২৬ জুন) রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। গণমাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নির্মাতা ফরিদুল হাসান।

জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যার দিকে ব্রেইন স্ট্রোক করেছিলেন মনির হোসেন। পরে তাঁকে জরুরিভিত্তিতে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু তাঁকে বাঁচানো গেল না। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে মনির হোসেনের মরদেহ রাখা হবে সর্ব সাধারণের শ্রদ্ধার নিবেদনের জন্য। সেখানেই অনুষ্ঠিত হবে প্রথম জানাজা। পরে তাঁর লাশ নিয়ে যাওয়া হবে গ্রামের বাড়ি নরসিংদী জেলার মনোহরদীতে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানার কুতুবদী (বড় বাড়ী) গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মনির হোসেন জীবন। তাঁর বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. এম এ আজিজ ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা।

মনির হোসেন জীবন আশির দশকে নরসিংদী জেলাতে এবং সার্ভিসেস দল বাংলাদেশ আনসার দলের মাঠ মাতানো খেলোয়াড় ছিলেন। পাশাপাশি বিনোদন চর্চা করতেন ঊদিচী শিল্পী গোষ্ঠীতে। পরবর্তী সময়ে ঢাকাতে বাংলাদেশ থিয়েটারের মাধ্যমে মঞ্চ নাটকে জড়িত হন।

১৯৯০ সালে চাচা চলচ্চিত্র পরিচালক বদিউল আলম খোকনের হাত ধরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। বিটিভির প্রথম প্যাকেজ ধারাবাহিক নাটক মামুনুর রশিদের ‌‘শিল্পী’ এবং হুমায়ূন আহমেদের ‘নক্ষত্রের রাত’ নাটকের প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন মনির হোসেন। তাঁর কাজের এবং মেধার দক্ষতা দেখে হুমায়ূন আহমেদ তাঁকে ‘নুহাশ চলচ্চিত্রের’ প্রধান সহকারী পরিচালক হিসেবে স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেন।

২০০০ সাল থেকে মনির হোসেন জীবন তাঁর নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা ‘স্বাধীন চলচ্চিত্র’ গঠন করেন। তাঁর প্রযোজনা সংস্থা থেকে তিনি অসংখ্য একক নাটক নির্মাণ করেছেন। এরমধ্যে ‘শাদা কাগজ’, ‘বন্যার চোখে জল’, ‘অপ্রত্যাশিত প্রত্যাশা’, ‘অতঃপর নিঃস্বঙ্গতা’, ‘একজন ময়না’, ‘গানম্যান’, ‘বিবাহ সংকট’, ‘কোরবান আলীর কোরবানী’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

ক্যারিয়ারে অসংখ্য জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ও টেলিফিল্ম উপহার দিয়েছেন মনির হোসেন জীবন। এরমধ্যে ‘আজ রবিবার’, ‘চোর কাঁটা’, ‘আলী বাবা চল্লিশ স্মাগলার’, ‘অভিমানী’, ‘ফৈজু কবিরাজ’, ‘সেই করেছো ভাল’, ‘নীল ছায়া’, ‘খন্ডচিত্র’, ‘গুজব’, ‘ভবের মানুষ’, ‘ফটিক চোর না সবাই’, ‘গুনীন’, ‘আগন্তুক’, ‘থানার নাম শনির আখড়া’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।