ঢাকা ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

নবনির্মিত দুই সেতু যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অর্থনীতিকে গতিশীল করবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:০৯:৩৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৬৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বিশেষ প্রতিবেদক : 

সোমবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে প্রধানমন্ত্রী’র কার্যালয় থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে নবনির্মিত দুই সেতু উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নড়াইলের মধুমতি নদীর ওপর নির্মিত ‘মধুমতি সেতু’ এবং নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম নাসিম ওসমান তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতু’ মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থাকে যেমন সহজ ও গতিশীল করবে, একই সঙ্গে দেশের অর্থনীতির গতি বাড়াবে ।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, আমি আনন্দিত কারণ আজ এই সেতু দুটি আমি উদ্বোধন করতে পেরেছি। আমি মনে করি যোগাযোগের ফলে আমাদের অবহেলিত অঞ্চলগুলো উন্নত হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে একটি যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করেছি। এখন আমরা দাবি করতে পারি যে বাংলাদেশের সব জেলার মধ্যে একটা সম্পর্ক হয়, সেই কাজটি আমরা করতে সক্ষম হয়েছি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ এবং উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমরা এগিয়ে যাব। আমাদের দেশের সার্বিক উন্নয়নে আমরা আমাদের কাজ অব্যাহত রাখব এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যহত না হয়, সেজন্য আমরা সবাই নিরলস পরিশ্রম করে যাব। এটাই আমাদের অঙ্গীকার।

বর্তমান সরকারের কার্যক্রম তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করেছি, জনগণের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছি। আওয়ামী লীগের ইতিহাস হলো আওয়ামী লীগ সবসময়ই নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে এবং জনগণের সমর্থন নিয়ে দেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রেখেছে। দ্বিতীয় দফায় যখন সরকারে আসি তখন থেকে এ পর্যন্ত আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। সমগ্র বাংলাদেশ আমি সফর করেছি। বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির। ফলে আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করেছি। আমরা সরকারে এসে যমুনা নদীর উপরে বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণ করি। এছাড়াও আরও অনেকগুলো সেতু নির্মাণ আমরা সম্পন্ন করেছিলাম।

এ সময় তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ আমাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। অর্থনৈতিতে নারায়ণগঞ্জ একটি বড় ভূমিকা রয়েছে। নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য, তাদের জীবনযাত্রা উন্নত করার লক্ষ্যে একটি সেতু একান্তভাবে দরকার। সে কথাটা মাথায় রেখেই আমরা শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর তৃতীয় সেতুর নির্মাণ করলাম। ইতোমধ্যে শীতলক্ষ্যার ওপরে আমরা আরও কয়েকটা সেতু করেছি। নাসিম ওসমান সেতুর কারণে রাজধানীর যানজট কমবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মধুমতি সেতু যেহেতু এশিয়ান হাইওয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যাবে। যার ফলে আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে। ঢাকা থেকে এখন মোংলা পোর্ট কাছে হয়ে গেছে। আমাদের বেনাপোলসহ কুষ্টিয়া অঞ্চলের যে সমস্ত যোগাযোগগুলো রয়েছে সেগুলো সঙ্গে যোগাযোগটাও বাড়ছে। মানুষের সময় বাঁচবে। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড গতিশীল হবে। সেই সুযোগটা সৃষ্টি হয়েছে।

এ সময় সরকার প্রধান জাপান সরকারকে ধন্যবাদ জানান। একই সঙ্গে বাংলাদেশে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানান তিনি। বাংলাদেশে নিযুক্ত এই দুই দেশের রাষ্ট্রদূতরাও নিজ নিজ দেশের সরকার প্রধানের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

নবনির্মিত দুই সেতু যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অর্থনীতিকে গতিশীল করবে : প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৬:০৯:৩৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০২২

বিশেষ প্রতিবেদক : 

সোমবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে প্রধানমন্ত্রী’র কার্যালয় থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে নবনির্মিত দুই সেতু উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নড়াইলের মধুমতি নদীর ওপর নির্মিত ‘মধুমতি সেতু’ এবং নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম নাসিম ওসমান তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতু’ মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থাকে যেমন সহজ ও গতিশীল করবে, একই সঙ্গে দেশের অর্থনীতির গতি বাড়াবে ।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, আমি আনন্দিত কারণ আজ এই সেতু দুটি আমি উদ্বোধন করতে পেরেছি। আমি মনে করি যোগাযোগের ফলে আমাদের অবহেলিত অঞ্চলগুলো উন্নত হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে একটি যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করেছি। এখন আমরা দাবি করতে পারি যে বাংলাদেশের সব জেলার মধ্যে একটা সম্পর্ক হয়, সেই কাজটি আমরা করতে সক্ষম হয়েছি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ এবং উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমরা এগিয়ে যাব। আমাদের দেশের সার্বিক উন্নয়নে আমরা আমাদের কাজ অব্যাহত রাখব এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যহত না হয়, সেজন্য আমরা সবাই নিরলস পরিশ্রম করে যাব। এটাই আমাদের অঙ্গীকার।

বর্তমান সরকারের কার্যক্রম তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করেছি, জনগণের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছি। আওয়ামী লীগের ইতিহাস হলো আওয়ামী লীগ সবসময়ই নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে এবং জনগণের সমর্থন নিয়ে দেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রেখেছে। দ্বিতীয় দফায় যখন সরকারে আসি তখন থেকে এ পর্যন্ত আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। সমগ্র বাংলাদেশ আমি সফর করেছি। বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির। ফলে আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করেছি। আমরা সরকারে এসে যমুনা নদীর উপরে বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণ করি। এছাড়াও আরও অনেকগুলো সেতু নির্মাণ আমরা সম্পন্ন করেছিলাম।

এ সময় তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ আমাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। অর্থনৈতিতে নারায়ণগঞ্জ একটি বড় ভূমিকা রয়েছে। নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য, তাদের জীবনযাত্রা উন্নত করার লক্ষ্যে একটি সেতু একান্তভাবে দরকার। সে কথাটা মাথায় রেখেই আমরা শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর তৃতীয় সেতুর নির্মাণ করলাম। ইতোমধ্যে শীতলক্ষ্যার ওপরে আমরা আরও কয়েকটা সেতু করেছি। নাসিম ওসমান সেতুর কারণে রাজধানীর যানজট কমবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মধুমতি সেতু যেহেতু এশিয়ান হাইওয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যাবে। যার ফলে আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে। ঢাকা থেকে এখন মোংলা পোর্ট কাছে হয়ে গেছে। আমাদের বেনাপোলসহ কুষ্টিয়া অঞ্চলের যে সমস্ত যোগাযোগগুলো রয়েছে সেগুলো সঙ্গে যোগাযোগটাও বাড়ছে। মানুষের সময় বাঁচবে। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড গতিশীল হবে। সেই সুযোগটা সৃষ্টি হয়েছে।

এ সময় সরকার প্রধান জাপান সরকারকে ধন্যবাদ জানান। একই সঙ্গে বাংলাদেশে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানান তিনি। বাংলাদেশে নিযুক্ত এই দুই দেশের রাষ্ট্রদূতরাও নিজ নিজ দেশের সরকার প্রধানের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।