ঢাকা ০৯:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

নওগাঁয় এ্যাডভোকেসি সভা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:২১:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • / ৪৬১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নওগাঁ প্রতিনিধি:

যক্ষারোগ প্রতিরোধ ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে সুশীল সমাজের করনীয় শীর্ষক জেলা এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার শহরের প্যারীমোহন সাধারন গ্রন্থাগার মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতি (নাটাব) নওগাঁ জেলা শাখা এই সভার আয়োজন করে।

সভায় বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতি (নাটাব) নওগাঁ জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক কাজী জিয়াউর রহমান বাবলুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুনির আলী আকন্দ। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. কাকলী, নাটাবের জেলা কমিটির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যবৃন্দ এবং নওগাঁ জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মীরা।

এ সময় প্রধান অতিথি বলেন ২০৩০ সালের মধ্যে সরকার যক্ষা নামক ছোঁয়াচে রোগে মৃত্যুর হার শূণ্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। টিভি রোগে আক্রান্তদের নিয়িমিত চিকিৎসা ও ঔষুধ সেবনের আওতায় আনতে পারলে তা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। টিভি রোগের লক্ষণগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে সন্ধ্যাকালীন জ্বর, রাতে ঘাম, দুই সপ্তাহের বেশি কাশি, ওজন কমে যাওয়া, বমি বমি ভাব। এছাড়া কাউকে যদি সন্দেহজনক মনে হয় তাহলে তাকে অবশ্যই পরীক্ষার আওতায় আনতে হবে।

তিনি আরো জানান, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত নওগাঁ জেলা ও তার আশেপাশের প্রায় ১৩ হাজার ৩৯৬ জন মানুষের যক্ষা রোগের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে নওগাঁর ৩৮২জন আর নওগাঁ জেলার বাহিরের ৩৯০জন মানুষের যক্ষা পজেটিভ প্রতিবেদন আসে। সবমিলিয়ে বর্তমানে ৭৭২জন যক্ষা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে যক্ষা রোগ থেকে মুক্ত হতে হলে অবশ্যই আক্রান্ত রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে নিয়িমিত ঔষুধ সেবন করতে হবে। তা নাহলে এই ছোঁয়াচে রোগ আক্রান্ত ব্যক্তিসহ নিজের পরিবার এমনকি আশেপাশের সকলের মাঝে এই রোগ ছড়িয়ে দিতে পারেন। তাই অবশ্যই আমাদের সবাইকে যক্ষা রোগ সম্পর্কে জানতে হবে এবং আাশেপাশের মানুষগুলোকে জানাতে হবে।

বা/খ : এসআর।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

নওগাঁয় এ্যাডভোকেসি সভা

আপডেট সময় : ০২:২১:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

নওগাঁ প্রতিনিধি:

যক্ষারোগ প্রতিরোধ ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে সুশীল সমাজের করনীয় শীর্ষক জেলা এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার শহরের প্যারীমোহন সাধারন গ্রন্থাগার মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতি (নাটাব) নওগাঁ জেলা শাখা এই সভার আয়োজন করে।

সভায় বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতি (নাটাব) নওগাঁ জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক কাজী জিয়াউর রহমান বাবলুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুনির আলী আকন্দ। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. কাকলী, নাটাবের জেলা কমিটির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যবৃন্দ এবং নওগাঁ জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মীরা।

এ সময় প্রধান অতিথি বলেন ২০৩০ সালের মধ্যে সরকার যক্ষা নামক ছোঁয়াচে রোগে মৃত্যুর হার শূণ্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। টিভি রোগে আক্রান্তদের নিয়িমিত চিকিৎসা ও ঔষুধ সেবনের আওতায় আনতে পারলে তা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। টিভি রোগের লক্ষণগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে সন্ধ্যাকালীন জ্বর, রাতে ঘাম, দুই সপ্তাহের বেশি কাশি, ওজন কমে যাওয়া, বমি বমি ভাব। এছাড়া কাউকে যদি সন্দেহজনক মনে হয় তাহলে তাকে অবশ্যই পরীক্ষার আওতায় আনতে হবে।

তিনি আরো জানান, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত নওগাঁ জেলা ও তার আশেপাশের প্রায় ১৩ হাজার ৩৯৬ জন মানুষের যক্ষা রোগের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে নওগাঁর ৩৮২জন আর নওগাঁ জেলার বাহিরের ৩৯০জন মানুষের যক্ষা পজেটিভ প্রতিবেদন আসে। সবমিলিয়ে বর্তমানে ৭৭২জন যক্ষা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে যক্ষা রোগ থেকে মুক্ত হতে হলে অবশ্যই আক্রান্ত রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে নিয়িমিত ঔষুধ সেবন করতে হবে। তা নাহলে এই ছোঁয়াচে রোগ আক্রান্ত ব্যক্তিসহ নিজের পরিবার এমনকি আশেপাশের সকলের মাঝে এই রোগ ছড়িয়ে দিতে পারেন। তাই অবশ্যই আমাদের সবাইকে যক্ষা রোগ সম্পর্কে জানতে হবে এবং আাশেপাশের মানুষগুলোকে জানাতে হবে।

বা/খ : এসআর।