ঢাকা ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

দ্বিতীয় দিনেও দীর্ঘলাইন, মেশিন অকার্যকর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৭:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৪২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের টিকিট বিক্রির দ্বিতীয় দিনে উত্তরা উত্তর স্টেশনে সকাল থেকেই যাত্রীদের দীর্ঘলাইন তৈরি হয়েছে। স্টেশনটির ভিতরে স্থাপিত ৬টি টিকিট বিক্রয় মেশিনের ৫ অকার্যকর থাকায় কাউন্টারে চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

শুক্রবার (৩০ ডিসেম্বর) সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা যায়, এ স্টেশনে গেট এ ও বি’র ৪টির দুটি খোলা রাখা হয়েছে। সীমিত সংখ্যক যাত্রী প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে।

স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়তে সকাল থেকেই আগারগাঁও স্টেশনের দুই প্রান্তে যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। তবে এক প্রান্তে মেট্রোরেলের ৩টি ভেন্ডিং মেশিন থাকলেও সকাল থেকে দুটি মেশিন বিকল হয়ে যায়। দুই ঘণ্টা পর একটি চালু হলেও আরেকটি এখনও বিকল রয়েছে।

322149251_524803156377907_4760179216378177708_n

সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হলে আধাঘণ্টা পরই একটি মেশিন বিকল হয়ে যায়। কাউন্টারের দক্ষিণ পাশের একটি মেশিন থেকে যাত্রী টিকিট হাতে পেলেও টাকা কাটেনি। যাত্রী টিকেট কাটতে মেশিনে ১০০ টাকা দেন। পরে আরও ২০ টাকা দেন। এতে দুটি টিকিটসহ ৬০ টাকা ফেরত পায় ওই যাত্রী। এরপর থেকেই বিকল হয়ে পড়ে মেশিনটি। দুটি মেশিন ভালো চললেও সকাল ৯টার দিকে আরও একটি মেশিন বিকল হয়ে পড়ে। তিনটি মেশিনের একটি মেশিন সচল থাকে। এদিকে প্রায় দেড় ঘণ্টা পর বিকল হওয়া দুটির মধ্যে একটি মেশিন সচল করে কর্তৃপক্ষ।

কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা বলেন, পুরোনো টাকা মেশিন ভালোভাবে শনাক্ত করতে পারছে না বলে হয়তো কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। আশা করছি দ্রুতই ঠিক হয়ে যাবে।

মেট্রোরেলে চড়তে ফজরের নামাজের পর থেকেই অপেক্ষা

আর যাত্রীরা জানিয়েছেন, তারা দূর-দূরান্ত থেকে মেট্রোরেল দেখতে এসে টিকিট কেনার লাইনে ৩০ মিনিট থেকে ৩ ঘণ্টা পর্যন্ত দাঁড়িয়ে আছেন। লাইনে এসে দাঁড়িয়ে দেখি দুটি মেশিন নষ্ট। সবগুলো মেশিন সচল থাকলে টিকিট কাটতে সুবিধা হতো।

স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়তে সকাল থেকেই যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। সকাল ৮ টায় আগারগাঁও থেকে মেট্রোরেলের প্রথম ট্রিপ ছেড়ে গেছে দিয়াবাড়ির উদ্দেশ্যে।

দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা জানিয়েছেন ভিতরে যাতে যাত্রীর চাপ কম পড়ে সেজন্য এটা করা হয়েছে।

তবে তার ২ ঘণ্টা আগে থেকেই দীর্ঘ লাইন জমে গেছে। কেউ প্রয়োজনে, কেউ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে মেট্রোরেলে চড়তে এসেছেন। শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকেই বন্ধু বান্ধব, পরিবার পরিজন নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছেন নগরবাসী।

উত্তরায় যাবেন কামাল হোসেন সকালেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন। পরিবার নিয়ে ভ্রমণ করবেন মেট্রোরেল। তিনি বলেন, ছুটির দিনে পরিবার নিয়ে এসেছি মেট্রোরেলে চড়বো। লাইনে দাঁড়িয়ে কিছুটা সময় গেলেও টিকিট পাওয়া মাত্র সব ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে।

মিরপুর থেকে আসা আয়াতুল ইসলাম সৈকত বলেন, আমরা চার বন্ধু একসঙ্গে এসেছি মেট্রোরেলে ভ্রমণের জন্য। ভোরে এসে লাইনে দাঁড়িয়েছি। আর কিছুক্ষণের মধ্যেই হয়তো মেট্রোরেলে উঠতে পারবো।

গেটে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এসআই মাসুদুর রহিম বাংলানিউজকে বলেন, সকাল আটটায় গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। লাইনের বাইরে কাউকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে আটটার আগে থেকেই দীর্ঘ লাইন শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ডিসেম্বর) থেকে সাধারণ যাত্রীদের জন্য চালু হয়েছে স্বপ্নের মেট্রোরেল। সাধারণ মানুষের জন্য সকাল ৮টায় যাত্রা শুরু করার মাধ্যমে অভিষেক ঘটে নতুন এ গণপরিবহনটির। গতকাল দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষার পরও মেট্রোরেলে ভ্রমণের সুযোগ পাননি অনেকে। অনেকে দীর্ঘসময় অপেক্ষার পর চড়ার সুযোগ পান। আজও একই চিত্র। ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছেন হাজারো মানুষ। তারা অপেক্ষা স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়া।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

দ্বিতীয় দিনেও দীর্ঘলাইন, মেশিন অকার্যকর

আপডেট সময় : ১২:১৭:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের টিকিট বিক্রির দ্বিতীয় দিনে উত্তরা উত্তর স্টেশনে সকাল থেকেই যাত্রীদের দীর্ঘলাইন তৈরি হয়েছে। স্টেশনটির ভিতরে স্থাপিত ৬টি টিকিট বিক্রয় মেশিনের ৫ অকার্যকর থাকায় কাউন্টারে চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

শুক্রবার (৩০ ডিসেম্বর) সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা যায়, এ স্টেশনে গেট এ ও বি’র ৪টির দুটি খোলা রাখা হয়েছে। সীমিত সংখ্যক যাত্রী প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে।

স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়তে সকাল থেকেই আগারগাঁও স্টেশনের দুই প্রান্তে যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। তবে এক প্রান্তে মেট্রোরেলের ৩টি ভেন্ডিং মেশিন থাকলেও সকাল থেকে দুটি মেশিন বিকল হয়ে যায়। দুই ঘণ্টা পর একটি চালু হলেও আরেকটি এখনও বিকল রয়েছে।

322149251_524803156377907_4760179216378177708_n

সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হলে আধাঘণ্টা পরই একটি মেশিন বিকল হয়ে যায়। কাউন্টারের দক্ষিণ পাশের একটি মেশিন থেকে যাত্রী টিকিট হাতে পেলেও টাকা কাটেনি। যাত্রী টিকেট কাটতে মেশিনে ১০০ টাকা দেন। পরে আরও ২০ টাকা দেন। এতে দুটি টিকিটসহ ৬০ টাকা ফেরত পায় ওই যাত্রী। এরপর থেকেই বিকল হয়ে পড়ে মেশিনটি। দুটি মেশিন ভালো চললেও সকাল ৯টার দিকে আরও একটি মেশিন বিকল হয়ে পড়ে। তিনটি মেশিনের একটি মেশিন সচল থাকে। এদিকে প্রায় দেড় ঘণ্টা পর বিকল হওয়া দুটির মধ্যে একটি মেশিন সচল করে কর্তৃপক্ষ।

কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা বলেন, পুরোনো টাকা মেশিন ভালোভাবে শনাক্ত করতে পারছে না বলে হয়তো কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। আশা করছি দ্রুতই ঠিক হয়ে যাবে।

মেট্রোরেলে চড়তে ফজরের নামাজের পর থেকেই অপেক্ষা

আর যাত্রীরা জানিয়েছেন, তারা দূর-দূরান্ত থেকে মেট্রোরেল দেখতে এসে টিকিট কেনার লাইনে ৩০ মিনিট থেকে ৩ ঘণ্টা পর্যন্ত দাঁড়িয়ে আছেন। লাইনে এসে দাঁড়িয়ে দেখি দুটি মেশিন নষ্ট। সবগুলো মেশিন সচল থাকলে টিকিট কাটতে সুবিধা হতো।

স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়তে সকাল থেকেই যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। সকাল ৮ টায় আগারগাঁও থেকে মেট্রোরেলের প্রথম ট্রিপ ছেড়ে গেছে দিয়াবাড়ির উদ্দেশ্যে।

দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা জানিয়েছেন ভিতরে যাতে যাত্রীর চাপ কম পড়ে সেজন্য এটা করা হয়েছে।

তবে তার ২ ঘণ্টা আগে থেকেই দীর্ঘ লাইন জমে গেছে। কেউ প্রয়োজনে, কেউ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে মেট্রোরেলে চড়তে এসেছেন। শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকেই বন্ধু বান্ধব, পরিবার পরিজন নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছেন নগরবাসী।

উত্তরায় যাবেন কামাল হোসেন সকালেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন। পরিবার নিয়ে ভ্রমণ করবেন মেট্রোরেল। তিনি বলেন, ছুটির দিনে পরিবার নিয়ে এসেছি মেট্রোরেলে চড়বো। লাইনে দাঁড়িয়ে কিছুটা সময় গেলেও টিকিট পাওয়া মাত্র সব ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে।

মিরপুর থেকে আসা আয়াতুল ইসলাম সৈকত বলেন, আমরা চার বন্ধু একসঙ্গে এসেছি মেট্রোরেলে ভ্রমণের জন্য। ভোরে এসে লাইনে দাঁড়িয়েছি। আর কিছুক্ষণের মধ্যেই হয়তো মেট্রোরেলে উঠতে পারবো।

গেটে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এসআই মাসুদুর রহিম বাংলানিউজকে বলেন, সকাল আটটায় গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। লাইনের বাইরে কাউকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে আটটার আগে থেকেই দীর্ঘ লাইন শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ডিসেম্বর) থেকে সাধারণ যাত্রীদের জন্য চালু হয়েছে স্বপ্নের মেট্রোরেল। সাধারণ মানুষের জন্য সকাল ৮টায় যাত্রা শুরু করার মাধ্যমে অভিষেক ঘটে নতুন এ গণপরিবহনটির। গতকাল দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষার পরও মেট্রোরেলে ভ্রমণের সুযোগ পাননি অনেকে। অনেকে দীর্ঘসময় অপেক্ষার পর চড়ার সুযোগ পান। আজও একই চিত্র। ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছেন হাজারো মানুষ। তারা অপেক্ষা স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়া।