ঢাকা ১১:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

দেশেই সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের গাড়ি তৈরি অন্যতম লক্ষ্য : শিল্পমন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:০২:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩
  • / ৪২৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

দেশেই জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের গাড়ি উৎপাদন সরকারের অন্যতম লক্ষ্য জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, ‘এই লক্ষ্য অর্জনে ইতোমধ্যে অটোমোবাইল শিল্পের বিকাশে নীতিমালা প্রণয়ন করেছে শিল্প মন্ত্রণালয়। এই শিল্পের উন্নয়ন এবং টেকসই বিকাশের লক্ষ্যে নীতিমালা সহায়ক হবে। এর মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে আঞ্চলিক অটোমোবাইল শিল্প উৎপাদনের কেন্দ্রে উন্নীত করা হবে। লক্ষ্য অর্জনে অটোমোবাইল শিল্প উন্নয়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছি আমরা।

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কে হুন্দাই গাড়ি কারখানার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। ফেয়ার টেকনোলজি লিমিটেডের সহায়তায় এই কারখানা স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের পদক্ষেপের ক্ষেত্রে সরকার সর্বদাই সহায়তা করবে। ফেয়ার গ্রুপের কার্যক্রম বাংলাদেশের জন্য একটি মডেল হয়ে থাকবে। দ্রুত অগ্রসরমান বাংলাদেশের প্রতীক হয়ে এখন থেকে রাজপথে চলবে মেইড ইন বাংলাদেশ হুন্দাই এসইউভি।

এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি অটোমোবাইল শিল্প উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘অটোমোবাইল শিল্পের বিকাশে প্রকৃত অর্থেই নীতিমালা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ গাড়ি সংযোজনকারী দেশের গণ্ডি পেরিয়ে উৎপাদনকারী দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। ২০৪১ সালে উন্নত আয় ও শিল্প সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সরকার দেশে শিল্প কারখানা স্থাপনের ওপর গুরুত্ব দিয়ে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, দেশেই হুন্দাই গাড়ি তৈরির মাধ্যমে বাংলাদেশ তার অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতার পরিচয় দিয়েছে। বাংলাদেশে হুন্দাই কারখানা স্থাপনের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি, সক্ষমতা ও ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা তুলে ধরা সম্ভব হলো। গাড়ির ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে এই উদ্যোগ আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে আত্মনির্ভরশীল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।

বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জনের দ্বারপ্রান্তে। অত্যন্ত দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতির এই দেশ আর ব্যবহৃত গাড়ির বাজার হয়ে থাকতে পারে না। প্রতিযোগিতামূলক মূল্যে বিশ্বমানের সম্পূর্ণ নতুন গাড়ি ব্যবহারের সুযোগ পাওয়া এ দেশের মানুষের অধিকার। সেই অধিকারের বাস্তবায়ন ঘটিয়ে ফেয়ার টেকনোলজির মেইড ইন বাংলাদেশ হুন্দাই গাড়ি তাই বাংলাদেশের মানুষের আত্মমর্যাদার প্রতীক হয়ে উঠেছে।

ফেয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন আল মাহবুবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন এ.বি. তাজুল ইসলাম (অব.), বাংলাদেশে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জাং-কেউন, আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন.এম. জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা এবং হুন্দাই মোটর ইন্ডিয়ার ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও উনসু কিম।

এছাড়া হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ফেয়ার টেকনোলজি ও হুন্দাইয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

দেশেই সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের গাড়ি তৈরি অন্যতম লক্ষ্য : শিল্পমন্ত্রী

আপডেট সময় : ১০:০২:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

দেশেই জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের গাড়ি উৎপাদন সরকারের অন্যতম লক্ষ্য জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, ‘এই লক্ষ্য অর্জনে ইতোমধ্যে অটোমোবাইল শিল্পের বিকাশে নীতিমালা প্রণয়ন করেছে শিল্প মন্ত্রণালয়। এই শিল্পের উন্নয়ন এবং টেকসই বিকাশের লক্ষ্যে নীতিমালা সহায়ক হবে। এর মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে আঞ্চলিক অটোমোবাইল শিল্প উৎপাদনের কেন্দ্রে উন্নীত করা হবে। লক্ষ্য অর্জনে অটোমোবাইল শিল্প উন্নয়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছি আমরা।

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কে হুন্দাই গাড়ি কারখানার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। ফেয়ার টেকনোলজি লিমিটেডের সহায়তায় এই কারখানা স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের পদক্ষেপের ক্ষেত্রে সরকার সর্বদাই সহায়তা করবে। ফেয়ার গ্রুপের কার্যক্রম বাংলাদেশের জন্য একটি মডেল হয়ে থাকবে। দ্রুত অগ্রসরমান বাংলাদেশের প্রতীক হয়ে এখন থেকে রাজপথে চলবে মেইড ইন বাংলাদেশ হুন্দাই এসইউভি।

এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি অটোমোবাইল শিল্প উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘অটোমোবাইল শিল্পের বিকাশে প্রকৃত অর্থেই নীতিমালা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ গাড়ি সংযোজনকারী দেশের গণ্ডি পেরিয়ে উৎপাদনকারী দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। ২০৪১ সালে উন্নত আয় ও শিল্প সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সরকার দেশে শিল্প কারখানা স্থাপনের ওপর গুরুত্ব দিয়ে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, দেশেই হুন্দাই গাড়ি তৈরির মাধ্যমে বাংলাদেশ তার অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতার পরিচয় দিয়েছে। বাংলাদেশে হুন্দাই কারখানা স্থাপনের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি, সক্ষমতা ও ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা তুলে ধরা সম্ভব হলো। গাড়ির ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে এই উদ্যোগ আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে আত্মনির্ভরশীল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।

বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জনের দ্বারপ্রান্তে। অত্যন্ত দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতির এই দেশ আর ব্যবহৃত গাড়ির বাজার হয়ে থাকতে পারে না। প্রতিযোগিতামূলক মূল্যে বিশ্বমানের সম্পূর্ণ নতুন গাড়ি ব্যবহারের সুযোগ পাওয়া এ দেশের মানুষের অধিকার। সেই অধিকারের বাস্তবায়ন ঘটিয়ে ফেয়ার টেকনোলজির মেইড ইন বাংলাদেশ হুন্দাই গাড়ি তাই বাংলাদেশের মানুষের আত্মমর্যাদার প্রতীক হয়ে উঠেছে।

ফেয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন আল মাহবুবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন এ.বি. তাজুল ইসলাম (অব.), বাংলাদেশে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জাং-কেউন, আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন.এম. জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা এবং হুন্দাই মোটর ইন্ডিয়ার ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও উনসু কিম।

এছাড়া হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ফেয়ার টেকনোলজি ও হুন্দাইয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।