ঢাকা ১১:৩২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

দিনাজপুরে খাদ্য মন্ত্রীর মজুত বিরোধী অভিযান বর্জন করল সাংবাদিকরা

খাদেমুল ইসলাম
  • আপডেট সময় : ০১:০৭:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪৯১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

গেল ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব উত্তম কুমার স্বাক্ষরিত স্মারক নং ১৩.০০.০০০০.০০১.৩৪.০০৪.২০২২-৪৩ মতে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি ৮-৯ ফেব্রুয়ারি দিনাজপুর জেলা সফর করবেন। এরই অংশ হিসেবে গতকাল ৮ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৪:১৫ মিনিটে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষ কাঞ্চনে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে করণীয় নির্ধারণে অংশী জনের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। যদিও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী নির্ধারিত সময় থেকে পৌনে দুই ঘন্টা পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হয়ে মতবিনিময় সভাটি সম্পন্ন করেন। এ সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যে সম্মেলনটির চিত্রগ্রহণের নির্দেশনা দিয়ে মূল আলোচনায় সাংবাদিকদের উপস্থিতি যেন না থাকে সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনকে সাংবাদিকদের  সম্মেলন পক্ষ থেকে বের করে দেন। নিরুপায় হয়ে সাংবাদিকরা তৎক্ষণাৎ মতবিনিময় সভা স্থল ত্যাগ করতে বাধ্য হন।

আজ ৯ই ফেব্রুয়ারি সুচি অনুযায়ী সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার কর্তৃক জেলায় অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযানে যোগদান দেওয়ার কথা ‌‌। সে অনুযায়ী সকাল থেকেই সাংবাদিক ও ক্যামেরা পার্সনরা সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গনে অবস্থান নেয়। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোথায় অভিযানে যাবে কখন যাওয়া হবে সে বিষয়ে পুরো অন্ধকারে থাকে সাংবাদিকরা। কিন্তু সেখানেও হতাশ সাংবাদিক ও ক্যামেরা পার্সনরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল বলেন, অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযানে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এর অফিস ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহযোগিতা না করায় সাংবাদিকরা সিদ্ধান্ত নেয় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযান বর্জন করার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি কঙ্কন কর্মকার বলেন, সূচি অনুযায়ী গতকাল ৮ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রী মহোদয়ের মতবিনিময় সভাটি নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে শুরু হয়। সেখান থেকে সাংবাদিকদের সরে যেতে বলায় মত বিনিময়ে সভার সংবাদ সংগ্রহে বাধা সৃষ্টি হয়। আজ ৯ ফেব্রুয়ারি মজুত বিরোধী অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের সাথে অসহযোগিতা করা হয়। সংবাদ সংগ্রহের জন্য সাংবাদিকরা দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পর পরে মন্ত্রী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের অফিসে গিয়ে পুনরায় সেখান থেকে সার্কিট হাউসে আসেন। কিন্তু সাংবাদিকদের তিনি কোন তথ্য না দিয়ে অসহযোগিতা করেছেন। সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে এমন আচরণ সাংবাদিকরা খুব একটি ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেনি।

দিনাজপুর নিমতলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রঞ্জু বলেন, গতকাল থেকে খাদ্যমন্ত্রী যা করছেন তা একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির পক্ষে যায় না। এমন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির কাছ থেকে এরকম আচরণ প্রত্যাশিত নয়। মজুত বিরোধী অভিযানে হয়তোবা গোপনীয়তার জন্যই । তিনি সাংবাদিকদের আজকে কোথায় যাচ্ছেন এমন তথ্য দিতে চাননি। এতে অবৈধ মজুমদাররা উৎসাহিত হবে।

দিনাজপুর দিনাজপুর টেলিভিশন ক্যামেরা পার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মঞ্জিল মসজিদ শিমুল বলেন, মন্ত্রী মহোদয়ের লুকোচুরি খেলায় আমরা ত্যক্ত বিরক্ত হয়েছি। যথাসময়ে সংবাদ পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছি। সেই সাথে অসহযোগিতা মূলক আচরণ আমাদেরকে ব্যথিত করেছে।

এর আগে গতকাল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রেস ব্রিফিং এর ঠিক আগে টেলিভিশনের বুম বালো গো টেবিলের উপর রাখতে গেলে খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি সংবাদ চ্যানেলের লোগো বা বুমটিকে এমনভাবে সরিয়ে দেন যাও উপস্থিত অংশীজনের কাছে দৃষ্টিকটু মনে হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

দিনাজপুরে খাদ্য মন্ত্রীর মজুত বিরোধী অভিযান বর্জন করল সাংবাদিকরা

আপডেট সময় : ০১:০৭:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গেল ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব উত্তম কুমার স্বাক্ষরিত স্মারক নং ১৩.০০.০০০০.০০১.৩৪.০০৪.২০২২-৪৩ মতে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি ৮-৯ ফেব্রুয়ারি দিনাজপুর জেলা সফর করবেন। এরই অংশ হিসেবে গতকাল ৮ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৪:১৫ মিনিটে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষ কাঞ্চনে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে করণীয় নির্ধারণে অংশী জনের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। যদিও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী নির্ধারিত সময় থেকে পৌনে দুই ঘন্টা পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হয়ে মতবিনিময় সভাটি সম্পন্ন করেন। এ সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যে সম্মেলনটির চিত্রগ্রহণের নির্দেশনা দিয়ে মূল আলোচনায় সাংবাদিকদের উপস্থিতি যেন না থাকে সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনকে সাংবাদিকদের  সম্মেলন পক্ষ থেকে বের করে দেন। নিরুপায় হয়ে সাংবাদিকরা তৎক্ষণাৎ মতবিনিময় সভা স্থল ত্যাগ করতে বাধ্য হন।

আজ ৯ই ফেব্রুয়ারি সুচি অনুযায়ী সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার কর্তৃক জেলায় অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযানে যোগদান দেওয়ার কথা ‌‌। সে অনুযায়ী সকাল থেকেই সাংবাদিক ও ক্যামেরা পার্সনরা সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গনে অবস্থান নেয়। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোথায় অভিযানে যাবে কখন যাওয়া হবে সে বিষয়ে পুরো অন্ধকারে থাকে সাংবাদিকরা। কিন্তু সেখানেও হতাশ সাংবাদিক ও ক্যামেরা পার্সনরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল বলেন, অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযানে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এর অফিস ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহযোগিতা না করায় সাংবাদিকরা সিদ্ধান্ত নেয় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের অবৈধ মজুত বিরোধী অভিযান বর্জন করার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি কঙ্কন কর্মকার বলেন, সূচি অনুযায়ী গতকাল ৮ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রী মহোদয়ের মতবিনিময় সভাটি নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে শুরু হয়। সেখান থেকে সাংবাদিকদের সরে যেতে বলায় মত বিনিময়ে সভার সংবাদ সংগ্রহে বাধা সৃষ্টি হয়। আজ ৯ ফেব্রুয়ারি মজুত বিরোধী অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের সাথে অসহযোগিতা করা হয়। সংবাদ সংগ্রহের জন্য সাংবাদিকরা দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পর পরে মন্ত্রী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের অফিসে গিয়ে পুনরায় সেখান থেকে সার্কিট হাউসে আসেন। কিন্তু সাংবাদিকদের তিনি কোন তথ্য না দিয়ে অসহযোগিতা করেছেন। সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে এমন আচরণ সাংবাদিকরা খুব একটি ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেনি।

দিনাজপুর নিমতলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রঞ্জু বলেন, গতকাল থেকে খাদ্যমন্ত্রী যা করছেন তা একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির পক্ষে যায় না। এমন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির কাছ থেকে এরকম আচরণ প্রত্যাশিত নয়। মজুত বিরোধী অভিযানে হয়তোবা গোপনীয়তার জন্যই । তিনি সাংবাদিকদের আজকে কোথায় যাচ্ছেন এমন তথ্য দিতে চাননি। এতে অবৈধ মজুমদাররা উৎসাহিত হবে।

দিনাজপুর দিনাজপুর টেলিভিশন ক্যামেরা পার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মঞ্জিল মসজিদ শিমুল বলেন, মন্ত্রী মহোদয়ের লুকোচুরি খেলায় আমরা ত্যক্ত বিরক্ত হয়েছি। যথাসময়ে সংবাদ পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছি। সেই সাথে অসহযোগিতা মূলক আচরণ আমাদেরকে ব্যথিত করেছে।

এর আগে গতকাল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রেস ব্রিফিং এর ঠিক আগে টেলিভিশনের বুম বালো গো টেবিলের উপর রাখতে গেলে খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি সংবাদ চ্যানেলের লোগো বা বুমটিকে এমনভাবে সরিয়ে দেন যাও উপস্থিত অংশীজনের কাছে দৃষ্টিকটু মনে হয়।