ঢাকা ১০:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

তারাবি ও সেহরির সময় লোডশেডিং হবে না : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১১:৫২:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪৩৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আসন্ন রমজান মাসে তারাবির নামাজ ও সেহরির সময় বিদ্যুৎ সরবরাহে কোনো সমস্যা হবে না। আজ বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে তারাবি ও সেহরিতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের বিষয়ে নাটোর-১ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আবুল কালামের প্রশ্নের জবাবে সরকারপ্রধান এ কথা বলেন তিনি। অধিবেশনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা অনেক অর্থ ব্যয় করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করি। ভর্তুকি দিয়ে তা বিতরণ করি। এখন বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেল, এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) ও পরিবহণসহ সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। তার পরও আমাদের নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের প্রচেষ্টা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এটা ঠিক যে আমাদের জ্বালানি তেল ও এলএনজির সংকট আছে, ফলে সময় সময়ে…। তা ছাড়া জানেন যে, এগুলো যান্ত্রিক ব্যাপার…। কোনো কোনো সময় বিভিন্ন কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদন হ্রাস পায় বা ব্যহতও হয়।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, আমরা এরই মধ্যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, তারাবির নামাজ ও সেহরির সময় বিদ্যুতের সমস্যা হবে না। বরং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে প্রয়োজনে দিনের কোনো একসময় যখন চাহিদা কম তখন দু-তিন ঘণ্টা লোডশেডিং করা যেতে পারে। তবে সেটা সহনীয় পর্যায়ে হতে হবে। এভাবে করতে পারলে রমজানে বিদ্যুৎ সংকট হবে না। বিশেষত তারাবি ও সেহরির সময় সংকট হবে না। আমাদের প্রচেষ্টা সেভাবেই থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, একসময় দেশে প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা লোডশেডিং করা হতো। এখন সে অবস্থা নেই। তবে আমার মনে হয় মাঝেমধ্যে লোডশেডিং করা ভালো। তা না হলে মানুষ অতীত ভুলে যাবে। অন্তত উপলব্ধি করবে কোথায় ছিলাম আর কোথায় আছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

তারাবি ও সেহরির সময় লোডশেডিং হবে না : প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ১১:৫২:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আসন্ন রমজান মাসে তারাবির নামাজ ও সেহরির সময় বিদ্যুৎ সরবরাহে কোনো সমস্যা হবে না। আজ বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে তারাবি ও সেহরিতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের বিষয়ে নাটোর-১ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আবুল কালামের প্রশ্নের জবাবে সরকারপ্রধান এ কথা বলেন তিনি। অধিবেশনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা অনেক অর্থ ব্যয় করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করি। ভর্তুকি দিয়ে তা বিতরণ করি। এখন বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেল, এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) ও পরিবহণসহ সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। তার পরও আমাদের নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের প্রচেষ্টা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এটা ঠিক যে আমাদের জ্বালানি তেল ও এলএনজির সংকট আছে, ফলে সময় সময়ে…। তা ছাড়া জানেন যে, এগুলো যান্ত্রিক ব্যাপার…। কোনো কোনো সময় বিভিন্ন কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদন হ্রাস পায় বা ব্যহতও হয়।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, আমরা এরই মধ্যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, তারাবির নামাজ ও সেহরির সময় বিদ্যুতের সমস্যা হবে না। বরং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে প্রয়োজনে দিনের কোনো একসময় যখন চাহিদা কম তখন দু-তিন ঘণ্টা লোডশেডিং করা যেতে পারে। তবে সেটা সহনীয় পর্যায়ে হতে হবে। এভাবে করতে পারলে রমজানে বিদ্যুৎ সংকট হবে না। বিশেষত তারাবি ও সেহরির সময় সংকট হবে না। আমাদের প্রচেষ্টা সেভাবেই থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, একসময় দেশে প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা লোডশেডিং করা হতো। এখন সে অবস্থা নেই। তবে আমার মনে হয় মাঝেমধ্যে লোডশেডিং করা ভালো। তা না হলে মানুষ অতীত ভুলে যাবে। অন্তত উপলব্ধি করবে কোথায় ছিলাম আর কোথায় আছি।