ঢাকা ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

তাড়াশে দেবী দুর্গাকে বিজর্সনে বিদায় কৈলাসে ফিরলেন দেবী দুর্গা

আশরাফুল ইসলাম রনি, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৬:৪২:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৯৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ঢাকের বাজনা আর আবির খেলার রঙে রাঙল পূজা মণ্ডপ। সেই বাদ্য আর রঙেই মণ্ডপ থেকে বিদায় নিলেন দেবী দুর্গা। ভক্তদের স্মরণে ‘বাপের বাড়ি’ মর্ত্যলোকে এসেছিলেন যে দেবী, এ বছরের মতো সমাপ্ত হলো সেই সফর। বিসর্জনের মাধ্যমে দেবীকে বিদায় দিলেন সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার সনাতন ধর্মাবলম্বী ভক্তরা। ঘোড়া চড়ে এসেছিলেন দেবী, ঘোড়ায় চড়েই ফিরলেন কৈলাসে, স্বামীর ঘরে। শেষ হলো সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব, দুর্গাপূজা।

জানা যায়, ১০ দিন আগে মহালয়ার মাধ্যমে মণ্ডপে মণ্ডপে শুরু হয়েছিল দেবী দুর্গাকে বরণ করে নেওয়ার আনুষ্ঠানিকতা। এরপর ষষ্ঠীতে শুরু উৎসবের। আজ মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) বিজয়া দশমীতে দেবীকে বিসর্জনের মাধ্যমে সমাপ্ত হলো পাঁচ দিনের সেই উৎসবের। আগামী দিনগুলোতে সবাই যেন ভালো থাকে এবং সবার মঙ্গল ও কল্যাণ হয়, সেই প্রার্থনাতেই সাঙ্গ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব।

মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) বিজয়া দশমীর দিনে সকালে মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গার দশমী বিহিত পূজা শুরু হয়। সেই পূজার পর দর্পণ বিসর্জন প্রশস্তা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর হয় অঞ্জলি প্রদান ও সিঁদুর দান। পরে সিঁদুর খেলা ও বিজয়া দশমীর গানের সঙ্গে ভক্ত অনুরাগীদের নাচ-গানের আয়োজন চলে দুপুর পর্যন্ত। এরপর শুরু হয় প্রতিমা বিজর্সন পর্ব।

তাড়াশ উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রজত ঘোষ বলেন, উপজেলার আটটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ৪৫টি পুজা মন্ডপে গত চার দিন বিভিন্ন পূজা-আচার অনুষ্ঠান হয়েছে। মঙ্গলবার উৎসবের শেষ দিন।

তিনি আরো বলেন, আজকের দিনে মায়ের (দেবী দুর্গা) কাছে আমাদের প্রার্থনা একটাই আমরা মায়ের সন্তান। আজ সারা পৃথিবীর বর্তমান পরিস্থিতি অনেক সংকটপূর্ণ। এ রকম পরিস্থিতিতে মা যেন আমাদের সবাইকে ভালো রাখেন। আমরা যেন অস্থিতিশীল ও সংকটপূর্ণ পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পারি এবং আগামী দিনগুলোতে মা আমাদের সুস্থ রাখুক, ভালো রাখুক মায়ের কাছে এটাই প্রার্থনা করি।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

তাড়াশে দেবী দুর্গাকে বিজর্সনে বিদায় কৈলাসে ফিরলেন দেবী দুর্গা

আপডেট সময় : ০৬:৪২:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০২৩

ঢাকের বাজনা আর আবির খেলার রঙে রাঙল পূজা মণ্ডপ। সেই বাদ্য আর রঙেই মণ্ডপ থেকে বিদায় নিলেন দেবী দুর্গা। ভক্তদের স্মরণে ‘বাপের বাড়ি’ মর্ত্যলোকে এসেছিলেন যে দেবী, এ বছরের মতো সমাপ্ত হলো সেই সফর। বিসর্জনের মাধ্যমে দেবীকে বিদায় দিলেন সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার সনাতন ধর্মাবলম্বী ভক্তরা। ঘোড়া চড়ে এসেছিলেন দেবী, ঘোড়ায় চড়েই ফিরলেন কৈলাসে, স্বামীর ঘরে। শেষ হলো সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব, দুর্গাপূজা।

জানা যায়, ১০ দিন আগে মহালয়ার মাধ্যমে মণ্ডপে মণ্ডপে শুরু হয়েছিল দেবী দুর্গাকে বরণ করে নেওয়ার আনুষ্ঠানিকতা। এরপর ষষ্ঠীতে শুরু উৎসবের। আজ মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) বিজয়া দশমীতে দেবীকে বিসর্জনের মাধ্যমে সমাপ্ত হলো পাঁচ দিনের সেই উৎসবের। আগামী দিনগুলোতে সবাই যেন ভালো থাকে এবং সবার মঙ্গল ও কল্যাণ হয়, সেই প্রার্থনাতেই সাঙ্গ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব।

মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) বিজয়া দশমীর দিনে সকালে মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গার দশমী বিহিত পূজা শুরু হয়। সেই পূজার পর দর্পণ বিসর্জন প্রশস্তা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর হয় অঞ্জলি প্রদান ও সিঁদুর দান। পরে সিঁদুর খেলা ও বিজয়া দশমীর গানের সঙ্গে ভক্ত অনুরাগীদের নাচ-গানের আয়োজন চলে দুপুর পর্যন্ত। এরপর শুরু হয় প্রতিমা বিজর্সন পর্ব।

তাড়াশ উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রজত ঘোষ বলেন, উপজেলার আটটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ৪৫টি পুজা মন্ডপে গত চার দিন বিভিন্ন পূজা-আচার অনুষ্ঠান হয়েছে। মঙ্গলবার উৎসবের শেষ দিন।

তিনি আরো বলেন, আজকের দিনে মায়ের (দেবী দুর্গা) কাছে আমাদের প্রার্থনা একটাই আমরা মায়ের সন্তান। আজ সারা পৃথিবীর বর্তমান পরিস্থিতি অনেক সংকটপূর্ণ। এ রকম পরিস্থিতিতে মা যেন আমাদের সবাইকে ভালো রাখেন। আমরা যেন অস্থিতিশীল ও সংকটপূর্ণ পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পারি এবং আগামী দিনগুলোতে মা আমাদের সুস্থ রাখুক, ভালো রাখুক মায়ের কাছে এটাই প্রার্থনা করি।

 

বাখ//আর