ঢাকা ০২:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ডিজেল আমদানিতে সময় ও ব্যয় কমবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৫৬:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৩৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাইপলাইনে ভারত থেকে ডিজেল আমদানি করায় অর্থ ও সময় বাঁচবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ (শনিবার) বিকেলে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘ এই পাইপলাইন দেশের জ্বালানি নিরাপত্তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশর অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী ভারত। নানা ক্ষেত্রে সহায়তার মাধ্যমে দুই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ভারত থেকে পাইপলাইনে ডিজেল আমদানি করায় অর্থ ও সময় বাঁচবে।

অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, মৈত্রী পাইপলাইন নির্মাণ দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের আরেকটি দৃষ্টান্ত।

ভারতের আসাম রাজ্যের নুমালীগড় থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুরের পার্বতীপুর পর্যন্ত ১৩২ কিলোমিটার পাইপলাইন নির্মাণ শেষ হয় গত বছর ডিসেম্বর মাসে। এর নাম বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইন। এর ১২৬ কিলোমিটার অংশ বাংলাদেশে এবং ভারতে রয়েছে ৫ কিলোমিটার। এই পাইপ লাইন দিয়ে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত¡ নুমালীগড় রিফাইনারি থেকে ডিজেল কিনবে সরকার। যা দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপোতে জমা হবে। এখান থেকে উত্তরবঙ্গের ১৬টি জেলায় সরবরাহ হবে। ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদী।

উল্লেখ্য, ১৫ বছরের চুক্তিতে প্রথম ৩ বছর এই পাইপলাইনে বছরে ২ লাখ মেট্রিক টন ডিজেল দেবে ভারত। চতুর্থ বছর থেকে ৫ লাখ টন এবং এর পর প্রতি বছর ১০ লাখ টন করে ডিজেল আসবে। চুক্তিটি নবায়ন যোগ্য এবং পাইপলাইনের মালিকানা ও কর্তৃত্ব বাংলাদেশের কাছে থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ডিজেল আমদানিতে সময় ও ব্যয় কমবে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ১০:৫৬:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাইপলাইনে ভারত থেকে ডিজেল আমদানি করায় অর্থ ও সময় বাঁচবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ (শনিবার) বিকেলে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘ এই পাইপলাইন দেশের জ্বালানি নিরাপত্তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশর অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী ভারত। নানা ক্ষেত্রে সহায়তার মাধ্যমে দুই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ভারত থেকে পাইপলাইনে ডিজেল আমদানি করায় অর্থ ও সময় বাঁচবে।

অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, মৈত্রী পাইপলাইন নির্মাণ দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের আরেকটি দৃষ্টান্ত।

ভারতের আসাম রাজ্যের নুমালীগড় থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুরের পার্বতীপুর পর্যন্ত ১৩২ কিলোমিটার পাইপলাইন নির্মাণ শেষ হয় গত বছর ডিসেম্বর মাসে। এর নাম বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইন। এর ১২৬ কিলোমিটার অংশ বাংলাদেশে এবং ভারতে রয়েছে ৫ কিলোমিটার। এই পাইপ লাইন দিয়ে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত¡ নুমালীগড় রিফাইনারি থেকে ডিজেল কিনবে সরকার। যা দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপোতে জমা হবে। এখান থেকে উত্তরবঙ্গের ১৬টি জেলায় সরবরাহ হবে। ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদী।

উল্লেখ্য, ১৫ বছরের চুক্তিতে প্রথম ৩ বছর এই পাইপলাইনে বছরে ২ লাখ মেট্রিক টন ডিজেল দেবে ভারত। চতুর্থ বছর থেকে ৫ লাখ টন এবং এর পর প্রতি বছর ১০ লাখ টন করে ডিজেল আসবে। চুক্তিটি নবায়ন যোগ্য এবং পাইপলাইনের মালিকানা ও কর্তৃত্ব বাংলাদেশের কাছে থাকবে।