ঢাকা ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ডিএনএ পরীক্ষা করে ছবি প্রকাশ নিয়ান্ডারথাল পরিবারের

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:১৯:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৫৪ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ছবি

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 
সাইবেরিয়ার আলতাই পর্বতমালার পাদদেশে নদীতীরবর্তী একটি গুহায় ২০ জনের একটি পরিবার ছিল। তারা শিকারের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করতেন। এই শিবিরটি ৫৪ হাজার বছর আগে ওই গুহায় বাস করতেন। ওই পরিবারে ছিল একজন বাবা ও তার কিশোরী কন্যা।

এছাড়া একজন পুরুষ ছিলেন, যিনি তাদের ভাগ্নে বা চাচাত ভাই হতে পারেন। এছাড়া একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী ছিলেন, যিনি তাদের খালা বা দাদি হতে পারেন। মেয়েটি সম্ভবত তার বাবা এবং পারিবারিক গোষ্ঠী থেকে দূরে সরে যেত, যখন সে সঙ্গী খুঁজে পায়। এগুলো হলও নিয়ান্ডারথাল পারিবারিক এবং সামাজিক জীবনের কিছু ঘনিষ্ঠ বিবরণ, যা প্রাচীন ডিএনএ অধ্যয়নের মাধ্যমে মিলেছে।

চাগিরস্কায়া গুহার ১১ জন বাসিন্দার পাশাপাশি নিকটবর্তী ওকলাদনিকভ গুহা থেকে অন্য দু’জনের দেহাবশেষ পাওয়া যায়। এটি প্রাচীনতম পরিচিত পারিবারিক গোষ্ঠী এবং প্রথমবারের মতো বিজ্ঞানীরা নিয়ান্ডারথাল পরিবার এবং সম্প্রদায়ের জীবনাচারণকে সরাসরি নথিভুক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। জার্মানির লিপজিগের বিবর্তনমূলক নৃবিজ্ঞানের ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউটের গবেষক এবং এই গবেষণার সহ-লেখক লরিটস স্কোভ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, তারা যে একই সময়ে বাস করছিল তা খুবই উত্তেজনাপূর্ণ। এর মানে হলো যে, তারা সম্ভবত একই সামাজিক সম্প্রদায় থেকে এসেছে।

প্রথমবারের মতো আমরা একটি নিয়ান্ডারথাল সম্প্রদায়ের সামাজিক সংগঠন অধ্যয়ন করার জন্য জেনেটিক্স ব্যবহার করতে পারি। গবেষকরা ১৭টি হাড় এবং দাঁত থেকে ডিএনএ বের করেছেন, যা সাতটি পুরুষ এবং ছয়টি মহিলা নিয়ান্ডারথালদের ছিল, যার মধ্যে আটজন প্রাপ্তবয়স্ক এবং পাঁচটি শিশু। নিয়ান্ডারথালরা আইবেক্স, ঘোড়া, বাইসন এবং অন্যান্য প্রাণী শিকার করত। এসব প্রাণি খাদ্যের জন্য নদী উপত্যকার মধ্য দিয়ে ও গুহার সামনে দিয়ে চলাচল করত। নিয়ান্ডারথাল জিনোমের উপর ব্যাপকভাবে কাজ করে চলতি বছরে চিকিৎসায় নোবেল পেয়েছেন সাভান্তে পাবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

ডিএনএ পরীক্ষা করে ছবি প্রকাশ নিয়ান্ডারথাল পরিবারের

আপডেট সময় : ০৬:১৯:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর ২০২২

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 
সাইবেরিয়ার আলতাই পর্বতমালার পাদদেশে নদীতীরবর্তী একটি গুহায় ২০ জনের একটি পরিবার ছিল। তারা শিকারের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করতেন। এই শিবিরটি ৫৪ হাজার বছর আগে ওই গুহায় বাস করতেন। ওই পরিবারে ছিল একজন বাবা ও তার কিশোরী কন্যা।

এছাড়া একজন পুরুষ ছিলেন, যিনি তাদের ভাগ্নে বা চাচাত ভাই হতে পারেন। এছাড়া একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী ছিলেন, যিনি তাদের খালা বা দাদি হতে পারেন। মেয়েটি সম্ভবত তার বাবা এবং পারিবারিক গোষ্ঠী থেকে দূরে সরে যেত, যখন সে সঙ্গী খুঁজে পায়। এগুলো হলও নিয়ান্ডারথাল পারিবারিক এবং সামাজিক জীবনের কিছু ঘনিষ্ঠ বিবরণ, যা প্রাচীন ডিএনএ অধ্যয়নের মাধ্যমে মিলেছে।

চাগিরস্কায়া গুহার ১১ জন বাসিন্দার পাশাপাশি নিকটবর্তী ওকলাদনিকভ গুহা থেকে অন্য দু’জনের দেহাবশেষ পাওয়া যায়। এটি প্রাচীনতম পরিচিত পারিবারিক গোষ্ঠী এবং প্রথমবারের মতো বিজ্ঞানীরা নিয়ান্ডারথাল পরিবার এবং সম্প্রদায়ের জীবনাচারণকে সরাসরি নথিভুক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। জার্মানির লিপজিগের বিবর্তনমূলক নৃবিজ্ঞানের ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউটের গবেষক এবং এই গবেষণার সহ-লেখক লরিটস স্কোভ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, তারা যে একই সময়ে বাস করছিল তা খুবই উত্তেজনাপূর্ণ। এর মানে হলো যে, তারা সম্ভবত একই সামাজিক সম্প্রদায় থেকে এসেছে।

প্রথমবারের মতো আমরা একটি নিয়ান্ডারথাল সম্প্রদায়ের সামাজিক সংগঠন অধ্যয়ন করার জন্য জেনেটিক্স ব্যবহার করতে পারি। গবেষকরা ১৭টি হাড় এবং দাঁত থেকে ডিএনএ বের করেছেন, যা সাতটি পুরুষ এবং ছয়টি মহিলা নিয়ান্ডারথালদের ছিল, যার মধ্যে আটজন প্রাপ্তবয়স্ক এবং পাঁচটি শিশু। নিয়ান্ডারথালরা আইবেক্স, ঘোড়া, বাইসন এবং অন্যান্য প্রাণী শিকার করত। এসব প্রাণি খাদ্যের জন্য নদী উপত্যকার মধ্য দিয়ে ও গুহার সামনে দিয়ে চলাচল করত। নিয়ান্ডারথাল জিনোমের উপর ব্যাপকভাবে কাজ করে চলতি বছরে চিকিৎসায় নোবেল পেয়েছেন সাভান্তে পাবো।