ঢাকা ১১:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৩:৩২:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৫৫০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

টানা বৃষ্টিতে ভারতের মধ্যপ্রদেশ ও গুজরাটের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। দুই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় দেখা দিয়েছে বন্যা। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বহু ঘরবাড়ি। জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।

এদিকে, ঘূণিঝড় ও বন্যায় বিপর্যস্ত লিবিয়ার দেরনা উপকূলে এখনো ভেসে আসছে মরদেহ। মৃতদেহের পরিচয় শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়ছে।

গত দুই দিন অবিরাম বৃষ্টি ঝরছে ভারতের মধ্যপ্রদেশে। প্রবল বৃষ্টিতে রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। মালওয়া এবং নিমার এলাকা থেকে ৮ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ইন্দোর, খান্ডওয়া, খারগোন, বাডওয়ানি এবং বুরহানপুর জেলাগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিভিন্ন জেলায় খোলা হয়েছে ত্রাণ শিবির। জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।

গুজরাটে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বিভিন্ন জেলার নি¤œাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। পাঁচ জেলার ১০ হাজার মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বন্যার পানিকে আটকা পড়া দুই শতাধিক মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। ভারুচ, নর্মদা এবং ভাদোদরার মতো বেশ কয়েকটি গ্রাম এখনও পানিবন্দি। বন্যার কারণে সোমবার সমস্ত স্কুল, কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। আরও ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি করেছে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ।

এদিকে, শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েল লিবিয়ার দেরনায় আঘাত হানার এক সপ্তাহ পরও মরদেহ পাওয়া যাচ্ছে। তবে অনেক মরদেহ শনাক্ত করা যাচ্ছে না। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা লাশের গন্ধে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে ডায়রিয়া, পানিশূণ্যতা এবং অপুষ্টির ঝুঁকি বাড়ছে। দেরনায় ৩০ হাজার গৃহহীনদের জন্য বিশুদ্ধ পানি, খাদ্য ও আশ্রয়ের খুব প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। এখনও ১০ হাজার নিখোঁজ মানুষের সন্ধানে চলছে উদ্ধার অভিযান।

নিউজটি শেয়ার করুন

টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ

আপডেট সময় : ০৩:৩২:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

টানা বৃষ্টিতে ভারতের মধ্যপ্রদেশ ও গুজরাটের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। দুই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় দেখা দিয়েছে বন্যা। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বহু ঘরবাড়ি। জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।

এদিকে, ঘূণিঝড় ও বন্যায় বিপর্যস্ত লিবিয়ার দেরনা উপকূলে এখনো ভেসে আসছে মরদেহ। মৃতদেহের পরিচয় শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়ছে।

গত দুই দিন অবিরাম বৃষ্টি ঝরছে ভারতের মধ্যপ্রদেশে। প্রবল বৃষ্টিতে রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। মালওয়া এবং নিমার এলাকা থেকে ৮ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ইন্দোর, খান্ডওয়া, খারগোন, বাডওয়ানি এবং বুরহানপুর জেলাগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিভিন্ন জেলায় খোলা হয়েছে ত্রাণ শিবির। জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।

গুজরাটে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বিভিন্ন জেলার নি¤œাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। পাঁচ জেলার ১০ হাজার মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বন্যার পানিকে আটকা পড়া দুই শতাধিক মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। ভারুচ, নর্মদা এবং ভাদোদরার মতো বেশ কয়েকটি গ্রাম এখনও পানিবন্দি। বন্যার কারণে সোমবার সমস্ত স্কুল, কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। আরও ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি করেছে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ।

এদিকে, শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ড্যানিয়েল লিবিয়ার দেরনায় আঘাত হানার এক সপ্তাহ পরও মরদেহ পাওয়া যাচ্ছে। তবে অনেক মরদেহ শনাক্ত করা যাচ্ছে না। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা লাশের গন্ধে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে ডায়রিয়া, পানিশূণ্যতা এবং অপুষ্টির ঝুঁকি বাড়ছে। দেরনায় ৩০ হাজার গৃহহীনদের জন্য বিশুদ্ধ পানি, খাদ্য ও আশ্রয়ের খুব প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। এখনও ১০ হাজার নিখোঁজ মানুষের সন্ধানে চলছে উদ্ধার অভিযান।