ঢাকা ০৩:৫৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির ৬ মাসের কমিটিতে সাড়ে তিন বছর

মো: জাকির হোসেন, পটুয়াখালী প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ১১:২১:৪৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
  • / ৫৪২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
৬ মাসের অনুমোদন দেয়া পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির মেয়াদ সাড়ে তিন বছর অতিক্রম হলেও গঠিত হয়নি পূর্নাঙ্গ জেলা কমিটি। ২০২০ সালের ১০ নভেম্বর পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ ৬ মাস দিয়ে অনুমোদন দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরবর্তীতে কেন্দ্র থেকে ২০২০ সালের ২৭ ডিসেম্বর  তিনমাসের মধ্যে জেলা বিএনপির কাউন্সিল করার নির্দেশনা দিয়ে চিঠি প্রদান করলেও অদ্যাবধি কাউন্সিল সম্পন্ন হয়নি।
এদিকে আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হওয়ার পরে জেলার কয়েকটি উপজেলা কমিটি গঠন নিয়ে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সমন্বয়ের মাধ্যমে সমাধান করতে গিয়ে নির্দিষ্ট সময় অতিক্রম হয়ে যায়।দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দলের জটিলতায়  এখনো ১ টি উপজেলার সম্মেলন সম্পন্ন হয়নি।
নতুন করে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হলেও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এয়ারভাইস মার্শাল (অব:) আলতাফ হোসেন চৌধুরীর অনুসারীরা পৃথক ভাবে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচী,ইফতার কর্মসূচী  পালন করে আসায় দলীয় অভ্যন্তরীন গ্রুপিং এখনো চাঙ্গা রয়েছে।
২৮ অক্টোবর পরবর্তী পটুয়াখালীতে সরকার বিরোধী কর্মসূচীতে পটুয়াখালীতে সর্বপ্রথম জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এ্যাডভোকেট মো: মহসিন উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক শরীফ মো: সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে শহরের কোর্ট এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্যবৃন্দ। ঐ সময় দ্বিতীয় দফা অবরোধ পর্যন্ত অবরোধের পক্ষে জেলা বিএনপির  কোন কার্যক্রম লক্ষ না করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয় ।পরবর্তিতে জেলা ছাত্রদলও যুবদলের উদ্যোগে দুই থেকে তিনটি অবরোধ বিরোধী কার্যক্রম সংগঠিত হয়।
এ দিকে উপজেলা নির্বাচনে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহন করায় মির্জাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আশ্রাফ আলী হাওলদারসহ দুমকী উপজেলা মিলিয়ে মোট ৪ জনকে বহিস্কার করা হয়েছে।উপজেলা কমিটি নিয়ে অনিয়ম সহ বহিস্কারের বিষয়ে মির্জাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আশ্রাফ আলী হাওলাদার বলেন, আমাকে উপজেলা কাউন্সিলে ভোটের মধ্যে কারসাজি করে এক ভোটের মাধ্যমে উপজেলা সম্মেলনে হারানো হয়েছে। দল বহিস্কার করলেও আমি বিএনপির প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে মির্জাগঞ্জ থানায় রাজনীতি করে আসছি, বিভিন্ন সময় দলের গুরুদ্বপূর্ন দায়িত্বপালন করেছি, আগামীতেও দলের সাথে থাকবো।
২৮ অক্টোবরের পরবর্তী কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনের শৈথিলত্যার অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা বিএনপির বর্তমার সদস্য সচিব হাংশু সরকার কুট্রি বলেন, আইনজীবী ফোরাম যেমন কোর্ট এলাকায় আন্দোলন কর্মসূচী পালন করেছে, আমরাও তেমন রাজপথে ব্যারিকেড দিয়েছি, মশাল মিছিল করেছি, আওয়ামী বাহিনীসহ সরকারের নিয়ন্ত্রীত বাহিনীর ধাওয়া খেয়েও রাজপথে কর্মসূচী পালন করেছি।আমরা কর্মসূচী পালন করে কোন রকম প্রচারনা চালাইনি,কেননা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি প্রকাশ পেলে সেই স্পটের নেতা-কর্মী সহ সাধারন মানুষকে হয়রানী করা হয়েছে।
জেলা বিএনপির সম্মেলনের বিষয়ে তিনি জানান, বর্তমান জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠনের পরে ১৪টি ইউনিটের মধ্যে ১৩ টি ইউনিটের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হয়েছে।যার মধ্যে ওয়ার্ড কমিটি থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে সম্মেলন করে প্রতিটি উপজেলায় স্বত:স্ফূর্ত সম্মেলনের মাধ্যমে বর্তমানে ১৩ টি ইউনিটের সম্মেলন করা হয়েছে।
কমিটি গঠন করার ক্ষেত্রে বর্তমান আহবায়ক কমিটির পূর্বের কমিটির বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কয়েকটি উপজেলা কমিটি গঠনে বিভিন্ন অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের ফলে কেন্দ্র থেকে স্থগিত করাসহ প্রতিবন্ধকতার  কারনে সময় ক্ষেপন হয়। বড় দলের মধ্যে নেতৃত্বের প্রতিযোগীতা থাকবেই, এগুলি সবকিছুই সমন্বয় করে আমাদের কাজ করতে হয়।
২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময় কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু আসেন পটুয়াখালীতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীতে অংশগ্রহনের জন্য, এ সময় তার গাড়ীতেও হামলা হয়। আব্দুল আউয়াল মিন্টুর আগমনকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালী শহর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের সন্ত্রাসের জনপদে রুপান্তর হয়,আহত হয় অর্ধশতাধিক নেতা-কর্মী। এদিকে বরিশাল  বিভাগীয় শহরে বিভাগীয় সমাবেশে যোগদান করতে গিয়ে বর্তমান আহবায়ক কমিটির সদস্য ,জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক গলাচিপা উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান খান আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়ে প্রান হারানোর মতো ঘটনা ঘটেছে।
পটুয়াখালী জেলা বিএনপির অফিস ১৪ বার ভাংচুর করা হয়েছে, আমার নিজের বাসা সহ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে হামলা চালানো হয়েছে। দলের বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে দলের একাধিক সিনিয়র নেতা সহ অর্ধশতাধিক নেতা কর্মী আহত হয়েছেন.শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছেন মিথ্যে মামলায়।
মির্জাগঞ্জ উপজেলা সম্মেলনে কোন অনিয়ম হয়নি,বাউফলের উপজেলা  কমিটি গঠন এখনো করা সম্ভব হয়নি, গ্রুপিং এর কারনে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। দলের মহাসচিবের হাতে রয়েছে বাউফলের বিষয়টি তিনি নির্দেশনা দিলেই আমরা বাউফলের কমিটি করতে পারবো আশাকরি। নির্বাচনের পূর্বে কেন্দ্র থেকে জেলা সম্মেলন করার বিষয়ে তাগাদা ছিল। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুকুলে নেই, কেন্দ্র এখানকার রাজনৈতিক অবস্থা জানেন।
এখানে শুধূ আওয়ামী লীগই আমাদের উপর হামলা করে ক্ষান্ত হচ্ছে না,সরকারের নিয়ন্ত্রীত বাহিনীও আমাদের উপর হামলা করছে, মামলা দিচ্ছে। কেন্দ্র যেদিন আমাদের সম্মেলন করার নির্দেশ দেবেন ,সেদিনই আমরা সম্মেলন করার জন্য প্রস্তুত রয়েছি।
এদিকে পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আগামী দিনের কমিটি গঠন নিয়ে আহবায়ক কমিটিসহ দলের কয়েকটি অংগসংগঠনের প্রথম সাড়ির নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, দলের আগামীদিনের সরকার বিরোধী কর্মকান্ডে দলের সিনিয়র  রাজনৈতিক নেত্রীবৃন্দের সাথে ছাত্রদল, যুবদলের রাজনীতি করা নেত্রীবৃন্দের সমন্বয় করা হলে তা একটি শক্তিশালী জেলা কমিটি হিসেবে আত্বপ্রকাশ করবে বলে তারা মনে করেন।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির ৬ মাসের কমিটিতে সাড়ে তিন বছর

আপডেট সময় : ১১:২১:৪৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
৬ মাসের অনুমোদন দেয়া পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির মেয়াদ সাড়ে তিন বছর অতিক্রম হলেও গঠিত হয়নি পূর্নাঙ্গ জেলা কমিটি। ২০২০ সালের ১০ নভেম্বর পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ ৬ মাস দিয়ে অনুমোদন দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরবর্তীতে কেন্দ্র থেকে ২০২০ সালের ২৭ ডিসেম্বর  তিনমাসের মধ্যে জেলা বিএনপির কাউন্সিল করার নির্দেশনা দিয়ে চিঠি প্রদান করলেও অদ্যাবধি কাউন্সিল সম্পন্ন হয়নি।
এদিকে আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হওয়ার পরে জেলার কয়েকটি উপজেলা কমিটি গঠন নিয়ে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সমন্বয়ের মাধ্যমে সমাধান করতে গিয়ে নির্দিষ্ট সময় অতিক্রম হয়ে যায়।দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দলের জটিলতায়  এখনো ১ টি উপজেলার সম্মেলন সম্পন্ন হয়নি।
নতুন করে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হলেও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এয়ারভাইস মার্শাল (অব:) আলতাফ হোসেন চৌধুরীর অনুসারীরা পৃথক ভাবে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচী,ইফতার কর্মসূচী  পালন করে আসায় দলীয় অভ্যন্তরীন গ্রুপিং এখনো চাঙ্গা রয়েছে।
২৮ অক্টোবর পরবর্তী পটুয়াখালীতে সরকার বিরোধী কর্মসূচীতে পটুয়াখালীতে সর্বপ্রথম জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এ্যাডভোকেট মো: মহসিন উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক শরীফ মো: সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে শহরের কোর্ট এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্যবৃন্দ। ঐ সময় দ্বিতীয় দফা অবরোধ পর্যন্ত অবরোধের পক্ষে জেলা বিএনপির  কোন কার্যক্রম লক্ষ না করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয় ।পরবর্তিতে জেলা ছাত্রদলও যুবদলের উদ্যোগে দুই থেকে তিনটি অবরোধ বিরোধী কার্যক্রম সংগঠিত হয়।
এ দিকে উপজেলা নির্বাচনে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহন করায় মির্জাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আশ্রাফ আলী হাওলদারসহ দুমকী উপজেলা মিলিয়ে মোট ৪ জনকে বহিস্কার করা হয়েছে।উপজেলা কমিটি নিয়ে অনিয়ম সহ বহিস্কারের বিষয়ে মির্জাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আশ্রাফ আলী হাওলাদার বলেন, আমাকে উপজেলা কাউন্সিলে ভোটের মধ্যে কারসাজি করে এক ভোটের মাধ্যমে উপজেলা সম্মেলনে হারানো হয়েছে। দল বহিস্কার করলেও আমি বিএনপির প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে মির্জাগঞ্জ থানায় রাজনীতি করে আসছি, বিভিন্ন সময় দলের গুরুদ্বপূর্ন দায়িত্বপালন করেছি, আগামীতেও দলের সাথে থাকবো।
২৮ অক্টোবরের পরবর্তী কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনের শৈথিলত্যার অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা বিএনপির বর্তমার সদস্য সচিব হাংশু সরকার কুট্রি বলেন, আইনজীবী ফোরাম যেমন কোর্ট এলাকায় আন্দোলন কর্মসূচী পালন করেছে, আমরাও তেমন রাজপথে ব্যারিকেড দিয়েছি, মশাল মিছিল করেছি, আওয়ামী বাহিনীসহ সরকারের নিয়ন্ত্রীত বাহিনীর ধাওয়া খেয়েও রাজপথে কর্মসূচী পালন করেছি।আমরা কর্মসূচী পালন করে কোন রকম প্রচারনা চালাইনি,কেননা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি প্রকাশ পেলে সেই স্পটের নেতা-কর্মী সহ সাধারন মানুষকে হয়রানী করা হয়েছে।
জেলা বিএনপির সম্মেলনের বিষয়ে তিনি জানান, বর্তমান জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠনের পরে ১৪টি ইউনিটের মধ্যে ১৩ টি ইউনিটের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হয়েছে।যার মধ্যে ওয়ার্ড কমিটি থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে সম্মেলন করে প্রতিটি উপজেলায় স্বত:স্ফূর্ত সম্মেলনের মাধ্যমে বর্তমানে ১৩ টি ইউনিটের সম্মেলন করা হয়েছে।
কমিটি গঠন করার ক্ষেত্রে বর্তমান আহবায়ক কমিটির পূর্বের কমিটির বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কয়েকটি উপজেলা কমিটি গঠনে বিভিন্ন অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের ফলে কেন্দ্র থেকে স্থগিত করাসহ প্রতিবন্ধকতার  কারনে সময় ক্ষেপন হয়। বড় দলের মধ্যে নেতৃত্বের প্রতিযোগীতা থাকবেই, এগুলি সবকিছুই সমন্বয় করে আমাদের কাজ করতে হয়।
২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময় কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু আসেন পটুয়াখালীতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীতে অংশগ্রহনের জন্য, এ সময় তার গাড়ীতেও হামলা হয়। আব্দুল আউয়াল মিন্টুর আগমনকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালী শহর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের সন্ত্রাসের জনপদে রুপান্তর হয়,আহত হয় অর্ধশতাধিক নেতা-কর্মী। এদিকে বরিশাল  বিভাগীয় শহরে বিভাগীয় সমাবেশে যোগদান করতে গিয়ে বর্তমান আহবায়ক কমিটির সদস্য ,জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক গলাচিপা উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান খান আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়ে প্রান হারানোর মতো ঘটনা ঘটেছে।
পটুয়াখালী জেলা বিএনপির অফিস ১৪ বার ভাংচুর করা হয়েছে, আমার নিজের বাসা সহ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে হামলা চালানো হয়েছে। দলের বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে দলের একাধিক সিনিয়র নেতা সহ অর্ধশতাধিক নেতা কর্মী আহত হয়েছেন.শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছেন মিথ্যে মামলায়।
মির্জাগঞ্জ উপজেলা সম্মেলনে কোন অনিয়ম হয়নি,বাউফলের উপজেলা  কমিটি গঠন এখনো করা সম্ভব হয়নি, গ্রুপিং এর কারনে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। দলের মহাসচিবের হাতে রয়েছে বাউফলের বিষয়টি তিনি নির্দেশনা দিলেই আমরা বাউফলের কমিটি করতে পারবো আশাকরি। নির্বাচনের পূর্বে কেন্দ্র থেকে জেলা সম্মেলন করার বিষয়ে তাগাদা ছিল। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুকুলে নেই, কেন্দ্র এখানকার রাজনৈতিক অবস্থা জানেন।
এখানে শুধূ আওয়ামী লীগই আমাদের উপর হামলা করে ক্ষান্ত হচ্ছে না,সরকারের নিয়ন্ত্রীত বাহিনীও আমাদের উপর হামলা করছে, মামলা দিচ্ছে। কেন্দ্র যেদিন আমাদের সম্মেলন করার নির্দেশ দেবেন ,সেদিনই আমরা সম্মেলন করার জন্য প্রস্তুত রয়েছি।
এদিকে পটুয়াখালী জেলা বিএনপির আগামী দিনের কমিটি গঠন নিয়ে আহবায়ক কমিটিসহ দলের কয়েকটি অংগসংগঠনের প্রথম সাড়ির নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, দলের আগামীদিনের সরকার বিরোধী কর্মকান্ডে দলের সিনিয়র  রাজনৈতিক নেত্রীবৃন্দের সাথে ছাত্রদল, যুবদলের রাজনীতি করা নেত্রীবৃন্দের সমন্বয় করা হলে তা একটি শক্তিশালী জেলা কমিটি হিসেবে আত্বপ্রকাশ করবে বলে তারা মনে করেন।
বাখ//আর