ঢাকা ০৪:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

চুরির অভিযোগে শিশুকে মারধর, পুলিশ সদস্য বরখাস্ত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০১:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩
  • / ৪৬০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের টাইগারপাসে লাইটার চুরির অভিযোগে এক শিশুকে মারধরের ঘটনায় শওকত আলী নামে এক পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ।

রোববার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মারধরের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

এবিষয়ে নগর পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার স্পিনা রানী প্রামাণিক জানান, শওকত আলী ট্রাফিক বিভাগের রেকার গাড়ির চালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এই ঘটনায় ইতোমধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত শেষে এই ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে রোববার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, প্রত্যক্ষদর্শী অনেকের নিষেধ সত্বেও শিশুটিকে মারধর করতে থাকেন শওকত। এসময় শিশুটি নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করলে ঐ পুলিশ সদস্য শিশুটির পিঠেও কিল-ঘুষি দিতে থাকে।

শিশুটি ট্রাফিক বক্সের পাশের একটি দোকানে কাজ করে। পাশের রেলওয়ে কলোনীতে থাকে সে। তবে শিশুটি দাবি করে সে লাইটার নেয়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

চুরির অভিযোগে শিশুকে মারধর, পুলিশ সদস্য বরখাস্ত

আপডেট সময় : ০৯:০১:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের টাইগারপাসে লাইটার চুরির অভিযোগে এক শিশুকে মারধরের ঘটনায় শওকত আলী নামে এক পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ।

রোববার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মারধরের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

এবিষয়ে নগর পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার স্পিনা রানী প্রামাণিক জানান, শওকত আলী ট্রাফিক বিভাগের রেকার গাড়ির চালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এই ঘটনায় ইতোমধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত শেষে এই ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে রোববার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, প্রত্যক্ষদর্শী অনেকের নিষেধ সত্বেও শিশুটিকে মারধর করতে থাকেন শওকত। এসময় শিশুটি নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করলে ঐ পুলিশ সদস্য শিশুটির পিঠেও কিল-ঘুষি দিতে থাকে।

শিশুটি ট্রাফিক বক্সের পাশের একটি দোকানে কাজ করে। পাশের রেলওয়ে কলোনীতে থাকে সে। তবে শিশুটি দাবি করে সে লাইটার নেয়নি।