ঢাকা ০২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

চীনে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে ভয়াবহ বন্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০১:৫২:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৩৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চীনের জনবহুল প্রদেশ গুয়াংডংয়ে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এর ফলে ৬০ হাজার মানুষকে ওই এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বন্যায় ১১ জন নিখোঁজ রয়েছে। তবে এখনও কোনো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। খবর বিবিসি

চীনের রাষ্ট্রীয় মিডিয়া এবং অনলাইনে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যায় বাড়িঘর পানিতে তলিয়ে গেছে। উদ্ধারকর্মীরা নৌকা নিয়ে ওই এলাকায় উদ্ধার কার্যক্রম চালাচ্ছে।

ভারী বৃষ্টির কারণে অন্যান্য নদীর পানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষ পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে বলছে, উত্তর গুয়াংডং এর নদীর পানি সোমবার সকালে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। যা ১০০ বছরের পরিস্থিতিকে পাল্টে দিতে পারে। কিন্তু দুপুরে হলেও এমন পরিস্থিতির দেখা মেলেনি।

গুয়াংডংয়ের অধিকাংশ এলাকা নিম্নাঞ্চল হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিপাত কিংবা সমুদ্রের পানি বেড়ে গেলে তলিয়ে যায়। ফলে বন্যা দেখা দেয়। চীনের এই অঞ্চলটি একটি উৎপাদনমুখী এলাকা। এখানে বহু মানুষের বসবাস। এ অঞ্চলটিতে ১২ কোটি ৭ লাখ মানুষ বাস করে।

প্রদেশের রাজধানী গুয়াংজুর ছোট শহর শাওগুয়াং এবং হেউয়াং এ বন্যা দেখা দিয়েছে। বন্যার ফলে চলতি সপ্তাহে অঞ্চলটির ১০ লাখ ১৬ হাজার বাসিন্দা বিদ্যুৎ বিহীন দিন পার করছে। তবে রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে ৮০ শতাংশ বিদ্যুৎ সেবা চালু করা হয়।

অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে রাজধানী গুয়াংজুর বাইয়ান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কয়েকটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে, এছাড়া অনেকে ফ্লাইট দেরিতে ছাড়ছে। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় তিনটি শহরের স্কুল বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্যায় অনেক বাড়িঘর ধসে পড়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে বন্যার কারণে ১৪০.৬ মিলিয়ন ইউয়ান অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

চীনে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে ভয়াবহ বন্যা

আপডেট সময় : ০১:৫২:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

চীনের জনবহুল প্রদেশ গুয়াংডংয়ে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এর ফলে ৬০ হাজার মানুষকে ওই এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বন্যায় ১১ জন নিখোঁজ রয়েছে। তবে এখনও কোনো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। খবর বিবিসি

চীনের রাষ্ট্রীয় মিডিয়া এবং অনলাইনে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যায় বাড়িঘর পানিতে তলিয়ে গেছে। উদ্ধারকর্মীরা নৌকা নিয়ে ওই এলাকায় উদ্ধার কার্যক্রম চালাচ্ছে।

ভারী বৃষ্টির কারণে অন্যান্য নদীর পানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষ পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে বলছে, উত্তর গুয়াংডং এর নদীর পানি সোমবার সকালে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। যা ১০০ বছরের পরিস্থিতিকে পাল্টে দিতে পারে। কিন্তু দুপুরে হলেও এমন পরিস্থিতির দেখা মেলেনি।

গুয়াংডংয়ের অধিকাংশ এলাকা নিম্নাঞ্চল হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিপাত কিংবা সমুদ্রের পানি বেড়ে গেলে তলিয়ে যায়। ফলে বন্যা দেখা দেয়। চীনের এই অঞ্চলটি একটি উৎপাদনমুখী এলাকা। এখানে বহু মানুষের বসবাস। এ অঞ্চলটিতে ১২ কোটি ৭ লাখ মানুষ বাস করে।

প্রদেশের রাজধানী গুয়াংজুর ছোট শহর শাওগুয়াং এবং হেউয়াং এ বন্যা দেখা দিয়েছে। বন্যার ফলে চলতি সপ্তাহে অঞ্চলটির ১০ লাখ ১৬ হাজার বাসিন্দা বিদ্যুৎ বিহীন দিন পার করছে। তবে রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে ৮০ শতাংশ বিদ্যুৎ সেবা চালু করা হয়।

অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে রাজধানী গুয়াংজুর বাইয়ান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কয়েকটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে, এছাড়া অনেকে ফ্লাইট দেরিতে ছাড়ছে। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় তিনটি শহরের স্কুল বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্যায় অনেক বাড়িঘর ধসে পড়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে বন্যার কারণে ১৪০.৬ মিলিয়ন ইউয়ান অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে।