শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে কুখ্যাত ভূমি প্রতারক ফারজানাসহ আটক-৩ রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলন কলমাকান্দায় সচেতনতা তৈরিতে বৈঠক শ্রীমঙ্গলে তিন দিনব্যাপী পিঠা উৎসব শুরু শ্রীমঙ্গলে টপসয়েল কাটার দায়ে ১ জনের ৫০ হাজার টাকা দন্ড রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অনেক বেড়েছে : সংসদে হানিফ সোনার চামচে রাজ-পরীমণির ছেলের মুখে ভাত! বাংলাদেশ সফরে ইংল্যান্ডের দল ঘোষণা চীন বাংলাদেশের বৃহৎ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক অংশীদার : বাণিজ্যমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণে সরকার কাজ করছে : স্পিকার হিরো আলমের অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই : ইসি রাশেদা দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২০৩১৬ : সংসদে শিক্ষামন্ত্রী রাজউকে অনলাইনে নকশার আবেদন ৩৪ হাজার : সংসদে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ নোবিপ্রবিতে আট দাবিতে তৃতীয় দিনও আন্দোলন অব্যহত

চিড়া-মুড়ি-কম্বল নিয়ে রংপুরে আসছে বিএনপির নেতাকর্মীরা

চিড়া-মুড়ি-কম্বল নিয়ে রংপুরে আসছে বিএনপির নেতাকর্মীরা
ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর : 
শনিবার (২৯ অক্টোবর) রংপুরে অনুষ্ঠিত হবে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ। এর দুই দিন আগে ৩৬ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘট ডেকেছে জেলা মোটর মালিক সমিতি। সড়ক-মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনের চলাচল বন্ধের দাবিতে শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) ভোর ৬টা থেকে শনিবার (২৯ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলবে এই ধর্মঘট।
পরিবহন ধর্মঘটের ডাক আসতে পারে— চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও খুলনার অভিজ্ঞতায় এমন আশঙ্কা ছিল বিএনপি নেতা-কর্মীদের। এ কারণে তারা আগেভাগেই রংপুর আসতে শুরু করেছেন।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে রংপুর বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশের দিন ধার্য রয়েছে। দিনটি ঘিরে নেতা-কর্মীদের নানা প্রস্তুতিও নিতে দেখা গেছে। যেকোনো উপায়ে গণসমাবেশ সফল করতে তাদের অনেকে ইতোমধ্যে রংপুরে অবস্থান করছেন।

রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে দেখা যায়, বিভিন্ন জেলা থেকে এসে অবস্থান নিয়েছেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা । তারা বলছেন, সরকার এর আগে চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও খুলনায় গণসমাবেশ ঠেকাতে পরিবহন ধর্মঘটের নামে বাধা সৃষ্টি করেছিল। একই অবস্থা এখন রংপুরেও বিরাজ করছে। ধর্মঘটের বিষয়টি মাথায় রেখে অনেকে আগেই সমাবেশস্থলে এসেছেন।

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) রাত ১২টায় বাসগুলো ছেড়ে যাওয়ার কথা রংপুরে বিএনপি সমাবেশস্থলের উদ্দেশে। দুপুর থেকেই এসব বাসে সিট নেওয়ার জন্য কর্মীর উপচে পড়া ভিড়। শনিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে গণসমাবেশ হলেও ভোর থেকেই মাঠে থাকবেন তারা। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের প্রতিকৃতি-সংবলিত গেঞ্জি পরিহিত কর্মীরা দল বেঁধে যাচ্ছেন সেখানে। বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় লালমনিরহাট থেকে ট্রেনে রংপুর স্টেশনে এসেছেন মিরাজুল ও সবুজের নেতৃত্বে ৬০-৭০ জন নেতা-কর্মী।

তারা জানান, বাস বন্ধের আশঙ্কা থেকে দু’দিন আগেই রংপুরে এসেছেন তারা। এভাবে তাদের এলাকা থেকে আরও অনেকে আসছেন। স্টেশনে তারা চিড়া-মুড়ি খেয়েই রাত পার করবেন।

মিরাজুল বলেন, আইজ সকালে হাঁটতে হাঁটতে মাঠোত চলি আসছি। হামার সাথে চিড়া, মুড়ি, কম্বল সোগে আছে। কষ্ট হইলেও সমাবেশ দেখি তারপর বাড়ি যামো।

তাদের মতো আরো অনেকেই বিএনপির সমাবেশে যোগ দিতে এখন রংপুরে অবস্থান করছেন। মাঠে কথা হয় দিনাজপুর থেকে আসা মামুনুর রশিদের সঙ্গে। তিনি জানান, তাদের অন্তত ২০ জন একসঙ্গে রংপুরে এসেছেন। কেউ হোটেলে উঠেছেন। আবার কেউ আত্মীয়ের বাড়িতে রয়েছেন। রাতের মধ্যে দিনাজপুরের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আরও অনেকেই রংপুরে আসবেন।

রংপুর জেলা যুবদলের সভাপতি নাজমুল আলম নাজু বলেন, সমাবেশ হবে শনিবার, অথচ দলের নেতা-কর্মীরা বুধবার থেকেই রংপুরে আসতে শুরু করেছেন। সরকার যেভাবে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর নির্যাতন, নিপীড়ন ও সভা-সমাবেশ বাধাগ্রস্ত করছে, তার প্রতিবাদ জানাতে তৃণমূল প্রস্তুত। বিভাগীয় এই গণসমাবেশ সফল করতে দলের অনেক কর্মী ও সমর্থক নিজের জমি পর্যন্ত বন্ধক রেখে, কেউবা গরু-ছাগল বিক্রি করে এখানে ব্যয় করছেন। এই ভালোবাসা দেশের জন্য, বিএনপির জন্য। কারণ বিএনপি বর্তমানে যে দাবি নিয়ে আন্দোলন করছে, তা গণমানুষের দাবিতে রূপ নিয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, শনিবার রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে সবচেয়ে বড় গণজমায়েত হবে।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা থেকে রংপুরে পৌঁছেছেন রংপুর বিভাগীয় গণসমাবেশের দলনেতা বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও সংসদ সদস্য হারুন অর রশীদ। সমাবেশস্থল পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা নাকি ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় খেলা দেখাবেন। আমরা তো খেলা দেখছি। শনিবা (২৯ অক্টোবর) রংপুরে আমরাও খেলা দেখাব। স্মরণকালের সবচেয়ে বড় গণসমাবেশ হবে এদিন। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণ হবে, সারা দেশের মানুষ বিএনপির সঙ্গে আছে।

রংপুর বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, আমরা আশঙ্কা করছিলাম, সরকারের পক্ষ থেকে বাধা আসতে পারে। কারণ এর আগেও সেটা হয়েছে। এ কারণে সমাবেশের দুদিন আগে থেকেই নেতা-কর্মীরা রংপুরে আসতে শুরু করেছেন। প্রয়োজনে হেঁটে, বাইসাইকেলে কিংবা ভ্যানে করে হলেও সমাবেশে এসে যোগ দেবেন তারা।

নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার, খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা দাবিতে বিএনপি দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশ করছে। শনিবার (৮ অক্টোবর) চট্টগ্রাম, শনিবার (১৫ অক্টোবর) ময়মনসিংহ এবং শনিবার (২২ অক্টোবর) খুলনায় সমাবেশ করেছে দলটি। এর ধারাবাহিকতায় শনিবার (২৯ অক্টোবর) রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে চতুর্থ গণসমাবেশের আয়োজন করছে তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *