ঢাকা ০৯:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

‘চাপে বিশ্বব্যাংক পদ্মাসেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করেছিল’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪১:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ মে ২০২৩
  • / ৪৫৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাইরের চাপে বিশ্ব ব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগ এনে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করেছিল বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্তী বলেন, বাংলাদেশ কখনো ঋণ পরিশোধে খেলাপি হয়নি বা তথাকথিত ‘ঋণের ফাঁদে’ পড়েনি। আজ (সোমবার) স্থানীয় সময় সকালে ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংক সদর দপ্তরে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক পর্ষদের সাথে বৈঠকে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি হতাশ, বাইরের চাপের কারণে বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুর মতো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের অর্থায়ন থেকে সরে এসেছিল। তিনি বাংলাদেশ ও বিশ্ব ব্যাংকের মধ্যকার অংশীদারিত্বের ভবিষ্যতের দিকে দৃষ্টি দিতে সংস্থার প্রতি আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘বর্তমান পরিস্থিতি আমাদের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির সুযোগ গ্রহণ করার ক্ষমতার ইঙ্গিত দেয়। নিজস্ব অর্থায়ন ও প্রযুক্তি সম্পদ দিয়ে ৬ দশমিক ১ কিলোমিটার পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ আমাদের অর্থনৈতিক সক্ষমতার লক্ষণ।’

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংকের অবদানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মধ্যে দিয়ে জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রেখেছে। বাংলাদেশের ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তর হওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংক সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত ছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংককে অবশ্যই তার মূল উদ্দেশ্য দারিদ্র বিমোচন এবং উন্নয়ন অর্থায়নের প্রতি মনোযোগী থাকতে হবে। বর্তমানে বাংলাদেশে ১৫ বিলিয়ন ডলারের ৫৩টি বিভিন্ন প্রকল্প রয়েছে বিশ্বব্যাংকের। এটি এখন পর্যন্ত বিশ্ব ব্যাংকের দেয়া ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান এবং ঋণের অংশ।’

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংকসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি আর বলেন, ‘সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞান-ভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পরবর্তী লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। বিশ্বব্যাংকসহ আমাদের উন্নয়ন সহযোগীদের আমাদের ডিজিটাল এবং ভৌত অবকাঠামোতে বিনিয়োগ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

‘চাপে বিশ্বব্যাংক পদ্মাসেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করেছিল’

আপডেট সময় : ০১:৪১:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ মে ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাইরের চাপে বিশ্ব ব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগ এনে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করেছিল বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্তী বলেন, বাংলাদেশ কখনো ঋণ পরিশোধে খেলাপি হয়নি বা তথাকথিত ‘ঋণের ফাঁদে’ পড়েনি। আজ (সোমবার) স্থানীয় সময় সকালে ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংক সদর দপ্তরে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক পর্ষদের সাথে বৈঠকে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি হতাশ, বাইরের চাপের কারণে বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুর মতো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের অর্থায়ন থেকে সরে এসেছিল। তিনি বাংলাদেশ ও বিশ্ব ব্যাংকের মধ্যকার অংশীদারিত্বের ভবিষ্যতের দিকে দৃষ্টি দিতে সংস্থার প্রতি আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘বর্তমান পরিস্থিতি আমাদের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির সুযোগ গ্রহণ করার ক্ষমতার ইঙ্গিত দেয়। নিজস্ব অর্থায়ন ও প্রযুক্তি সম্পদ দিয়ে ৬ দশমিক ১ কিলোমিটার পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ আমাদের অর্থনৈতিক সক্ষমতার লক্ষণ।’

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংকের অবদানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মধ্যে দিয়ে জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রেখেছে। বাংলাদেশের ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তর হওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংক সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত ছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংককে অবশ্যই তার মূল উদ্দেশ্য দারিদ্র বিমোচন এবং উন্নয়ন অর্থায়নের প্রতি মনোযোগী থাকতে হবে। বর্তমানে বাংলাদেশে ১৫ বিলিয়ন ডলারের ৫৩টি বিভিন্ন প্রকল্প রয়েছে বিশ্বব্যাংকের। এটি এখন পর্যন্ত বিশ্ব ব্যাংকের দেয়া ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান এবং ঋণের অংশ।’

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে বিশ্ব ব্যাংকসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি আর বলেন, ‘সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞান-ভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পরবর্তী লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। বিশ্বব্যাংকসহ আমাদের উন্নয়ন সহযোগীদের আমাদের ডিজিটাল এবং ভৌত অবকাঠামোতে বিনিয়োগ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’