ঢাকা ০৪:১২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

চট্টগ্রামে ১ম নারী বিতর্ক প্রতিযোগিতায় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  • আপডেট সময় : ০৩:০৭:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ মার্চ ২০২৪
  • / ৪৬০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
দৃষ্টি চট্টগ্রামের আয়োজনে ১ম আন্তঃ ক্লাব নারী বিতর্ক প্রতিযোগিতা ‘নারী তোমার জন্য’ এ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। “নারীর সমঅধিকার, সমসুযোগ এগিয়ে নিতে হোক বিনিয়োগ” এই প্রতিপাদ্য ২দিন ব্যাপী আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় ফাইনালে এই সংসদ মনে করে, “অধিকার চেতনার অভাবই নারী অনগ্রসরতার মূল কারণ” এ বিষয়ে বিতর্ক করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিযোগিতায় স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সাবেক বিতর্ক সম্পাদক ও আইনজীবী আফসানা তমা, বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউএসটিসি’র শিক্ষিকা জয়শ্রী দাশ, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাইফুদ্দীন মুন্না এবং প্রাক্তন বিতার্কিক ফজলে রাব্বি। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিক তাসনিম তাবাসসুম অরিন।
প্রতিযোগিতা শেষে দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি সাইফ চৌধুরীর সভাপতিত্ব পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ পরিচালক ডাঃ বিদ্যুত বড়ুয়া, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ডায়াবেটিস ও হরমোন রোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ ফারহানা আক্তার ও দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ বকুল। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন দৃষ্টি চট্টগ্রামেরসহ সভাপতি শহীদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্না মজুমদার, দপ্তর সম্পাদক ও প্রতিযোগিতার সমন্বয়কারী তানভির আল জাবের, সদস্য ও প্রতিযোগিতার যুগ্ম সমন্বয়কারী ইতু দত্ত।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ডাঃ বিদ্যুৎ বড়ুয়া বলেন, পরিবারে সন্তানদের মধ্যে নারীদেরকে সম্মান করার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। নারীদের “নারী” হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে সম্মান করতে হবে, মেয়েদের মধ্যে সাবলম্বী হওয়ার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে।
ডাঃ ফারহানা আক্তার বলেন, নারীর ভূমিকা যে শুধু মাতৃত্বে সেটি নয়। নারীর ভূমিকা আজ নেতৃত্বে, সৃজনশীলতায় ও দক্ষতায় সুপ্রতিষ্ঠিত। পৃথিবীতে এমন কোনো কিছু নেই যেটা নারী ছাড়া হয়। ছোটবেলা থেকে আমাদের চারপাশে শক্ত-পোক্ত যে দেয়ালগুলো তৈরি করা হয়েছে, সেগুলো ভেঙে চুড়ে বের হয়ে আসতে হবে। এই যুদ্ধটা একজন নারীর জন্য সবচেয়ে বড় যুদ্ধ। নারীদের জড়তার জায়গাটা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।
দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ বকুল বলেন, একটি সুন্দর সমাজ গড়ে তোলার জন্য পুরুষ ও নারীদের একত্রে কাজ করতে হবে। নারীদের প্রতি পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি হতে হবে সহমর্মিতার।
সভাপতির বক্তব্য সাইফ চৌধুরী বলেন, সাইফ চৌধুরী-নারীরা সততা ও ভরসার প্রতীক। আমাদের সন্তানরা যেকোনো কিছুর জন্য আবদার করে মা’র কাছে, বোন হলো ভরসার জায়গা। সমাজে অনেক অন্যায় দুর্নীতির উদাহরণ আছে, কিন্তু একজন নারী সবসময় এসবের বাইরে থাকে। আজকের আয়োজন নারীদের এই অদম্য সাহস ও এগিয়ে যাওয়াকে আরও উদ্দিপ্ত করবে এই প্রত্যাশা।
উল্লেখ্য চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ের ১২টি দল অংশগ্রহন করে, যাদের প্রত্যক সদস্য ছিলো নারী বিতার্কিক।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

চট্টগ্রামে ১ম নারী বিতর্ক প্রতিযোগিতায় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

আপডেট সময় : ০৩:০৭:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ মার্চ ২০২৪
দৃষ্টি চট্টগ্রামের আয়োজনে ১ম আন্তঃ ক্লাব নারী বিতর্ক প্রতিযোগিতা ‘নারী তোমার জন্য’ এ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। “নারীর সমঅধিকার, সমসুযোগ এগিয়ে নিতে হোক বিনিয়োগ” এই প্রতিপাদ্য ২দিন ব্যাপী আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় ফাইনালে এই সংসদ মনে করে, “অধিকার চেতনার অভাবই নারী অনগ্রসরতার মূল কারণ” এ বিষয়ে বিতর্ক করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিযোগিতায় স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সাবেক বিতর্ক সম্পাদক ও আইনজীবী আফসানা তমা, বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউএসটিসি’র শিক্ষিকা জয়শ্রী দাশ, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাইফুদ্দীন মুন্না এবং প্রাক্তন বিতার্কিক ফজলে রাব্বি। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিক তাসনিম তাবাসসুম অরিন।
প্রতিযোগিতা শেষে দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি সাইফ চৌধুরীর সভাপতিত্ব পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ পরিচালক ডাঃ বিদ্যুত বড়ুয়া, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ডায়াবেটিস ও হরমোন রোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ ফারহানা আক্তার ও দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ বকুল। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন দৃষ্টি চট্টগ্রামেরসহ সভাপতি শহীদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্না মজুমদার, দপ্তর সম্পাদক ও প্রতিযোগিতার সমন্বয়কারী তানভির আল জাবের, সদস্য ও প্রতিযোগিতার যুগ্ম সমন্বয়কারী ইতু দত্ত।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ডাঃ বিদ্যুৎ বড়ুয়া বলেন, পরিবারে সন্তানদের মধ্যে নারীদেরকে সম্মান করার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। নারীদের “নারী” হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে সম্মান করতে হবে, মেয়েদের মধ্যে সাবলম্বী হওয়ার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে।
ডাঃ ফারহানা আক্তার বলেন, নারীর ভূমিকা যে শুধু মাতৃত্বে সেটি নয়। নারীর ভূমিকা আজ নেতৃত্বে, সৃজনশীলতায় ও দক্ষতায় সুপ্রতিষ্ঠিত। পৃথিবীতে এমন কোনো কিছু নেই যেটা নারী ছাড়া হয়। ছোটবেলা থেকে আমাদের চারপাশে শক্ত-পোক্ত যে দেয়ালগুলো তৈরি করা হয়েছে, সেগুলো ভেঙে চুড়ে বের হয়ে আসতে হবে। এই যুদ্ধটা একজন নারীর জন্য সবচেয়ে বড় যুদ্ধ। নারীদের জড়তার জায়গাটা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।
দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ বকুল বলেন, একটি সুন্দর সমাজ গড়ে তোলার জন্য পুরুষ ও নারীদের একত্রে কাজ করতে হবে। নারীদের প্রতি পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি হতে হবে সহমর্মিতার।
সভাপতির বক্তব্য সাইফ চৌধুরী বলেন, সাইফ চৌধুরী-নারীরা সততা ও ভরসার প্রতীক। আমাদের সন্তানরা যেকোনো কিছুর জন্য আবদার করে মা’র কাছে, বোন হলো ভরসার জায়গা। সমাজে অনেক অন্যায় দুর্নীতির উদাহরণ আছে, কিন্তু একজন নারী সবসময় এসবের বাইরে থাকে। আজকের আয়োজন নারীদের এই অদম্য সাহস ও এগিয়ে যাওয়াকে আরও উদ্দিপ্ত করবে এই প্রত্যাশা।
উল্লেখ্য চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ের ১২টি দল অংশগ্রহন করে, যাদের প্রত্যক সদস্য ছিলো নারী বিতার্কিক।
বাখ//আর