ঢাকা ০৫:৫১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এইচএসসি ও আলিম এর প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৬:৩৯:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪
  • / ৪৩৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

এইচএসসি ও আলিম ২০২৪ পরীক্ষা কেমন হবে এবং পাবলিক পরীক্ষার ভীতি দুর করতে পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এক সাথে ৫টি কেন্দ্রে প্রায় ১ হাজার ৫ শত এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র তৈরি করেছেন। ব্যতিক্রমি এমন আয়োজনে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। পরীক্ষার ভীতি কাটাতে শহরের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত মডেল টেস্ট দেন। কিন্তু মফস্বল ও গ্রামের শিক্ষার্থীদের তেমন কোন পরীক্ষা সাধারনত নেওয়া হয় না। গত দুই বছর এসএসসি /দাখিল পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষার ন্যায় পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এইচ.এস.সি ও আলিম পরীক্ষা কেমন হবে, পরীক্ষা হলের পরিবেশ কেমন থাকবে, সে সম্পর্কে ধারণা দিতে উপজেলাব্যাপী প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মহিউদ্দিন আল হেলাল জানান, আমরা ২০২২ সাল থেকে এসএসসি/দাখিল প্রস্তুতি পরীক্ষা নিয়ে আসছি যাতে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যায়। এরই ধারাবাহিকতায় এইচএসসি/পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব আসতে থাকে। এক মাসের প্রস্তুতির মাধ্যমে আবশ্যিক বাংলা ও ইংরেজি বিষয় ১০০ নম্বরে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। এই পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভীতি দূর হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার অভ্যাস তৈরি হবে।

যারা ভাল করবে তাদেরকে সংবর্ধনা দেয়া হবে এবং অধ্যক্ষদের নিয়ে তাদের বাড়ি পরিদর্শন করে অস্বচ্ছলদের জন্য বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি আমাদের শিক্ষাবৃত্তি চলমান থাকবে। আর যারা খারাপ করবে তাদের জন্য বিশেষ ক্লাসের ব্যবস্থা করা হবে।

আমি আশা করছি গলাচিপা উপজেলা থেকে আগামী ২০২৫ সাল বা পরবর্তী সময়ে অন্তত ১০০জন বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করবে আমি যার নাম দিয়েছি’ শত স্বপ্নের সোপান।

গলাচিপা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো.ফোরকান কবির বলেন, ” উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মহিউদ্দিন আল হেলাল এর এই উদ্যোগ শিক্ষার্থীদের ভীতি যেমন দূর হবে তেমনি তারা পড়াশুনার প্রতি আরো বেশি আগ্রহী হবেন। ভবিষ্যতে এই ধারাহিকতা বজায় থাকবে এ প্রত্যাশা করছি। পাশাপাশি পড়াশুনায় আগ্রহী মেধাবী শিক্ষার্থীদের আমি আর্থিকভাবে সহায়তা করবো।” আর শিক্ষার্থীরা বলেছে, ইউএনও গলাচিপার চমৎকার উদ্যোগগুলো আমাদেরকে যেমন বিস্মিত করছে, তেমনি আমাদের মেধা বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তাঁর এই আয়োজন আমাদের পাবলিক পরীক্ষার ভীতি অনেক কমিয়ে দিয়েছে।

আবুল কালাম সাঈদ ,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানান, এইচ.এস.সি/ আলিম পর্যায়ে এ রকম প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা তারা এই প্রথম নিলেন। উপজেলা প্রশাসনের এমন আয়োজনে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে।

এছাড়া অভিভাবক, শিক্ষকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ জানান,” উপজেলা প্রশাসন, গলাচিপার আয়োজনে ও গলাচিপা স্কিল ল্যাব. এর বাস্তবায়নে এমন আয়োজন হওয়ায় আমরা সকলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এইচএসসি ও আলিম এর প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় : ০৬:৩৯:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

এইচএসসি ও আলিম ২০২৪ পরীক্ষা কেমন হবে এবং পাবলিক পরীক্ষার ভীতি দুর করতে পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এক সাথে ৫টি কেন্দ্রে প্রায় ১ হাজার ৫ শত এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র তৈরি করেছেন। ব্যতিক্রমি এমন আয়োজনে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। পরীক্ষার ভীতি কাটাতে শহরের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত মডেল টেস্ট দেন। কিন্তু মফস্বল ও গ্রামের শিক্ষার্থীদের তেমন কোন পরীক্ষা সাধারনত নেওয়া হয় না। গত দুই বছর এসএসসি /দাখিল পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষার ন্যায় পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এইচ.এস.সি ও আলিম পরীক্ষা কেমন হবে, পরীক্ষা হলের পরিবেশ কেমন থাকবে, সে সম্পর্কে ধারণা দিতে উপজেলাব্যাপী প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মহিউদ্দিন আল হেলাল জানান, আমরা ২০২২ সাল থেকে এসএসসি/দাখিল প্রস্তুতি পরীক্ষা নিয়ে আসছি যাতে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যায়। এরই ধারাবাহিকতায় এইচএসসি/পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব আসতে থাকে। এক মাসের প্রস্তুতির মাধ্যমে আবশ্যিক বাংলা ও ইংরেজি বিষয় ১০০ নম্বরে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। এই পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভীতি দূর হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার অভ্যাস তৈরি হবে।

যারা ভাল করবে তাদেরকে সংবর্ধনা দেয়া হবে এবং অধ্যক্ষদের নিয়ে তাদের বাড়ি পরিদর্শন করে অস্বচ্ছলদের জন্য বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি আমাদের শিক্ষাবৃত্তি চলমান থাকবে। আর যারা খারাপ করবে তাদের জন্য বিশেষ ক্লাসের ব্যবস্থা করা হবে।

আমি আশা করছি গলাচিপা উপজেলা থেকে আগামী ২০২৫ সাল বা পরবর্তী সময়ে অন্তত ১০০জন বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করবে আমি যার নাম দিয়েছি’ শত স্বপ্নের সোপান।

গলাচিপা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো.ফোরকান কবির বলেন, ” উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মহিউদ্দিন আল হেলাল এর এই উদ্যোগ শিক্ষার্থীদের ভীতি যেমন দূর হবে তেমনি তারা পড়াশুনার প্রতি আরো বেশি আগ্রহী হবেন। ভবিষ্যতে এই ধারাহিকতা বজায় থাকবে এ প্রত্যাশা করছি। পাশাপাশি পড়াশুনায় আগ্রহী মেধাবী শিক্ষার্থীদের আমি আর্থিকভাবে সহায়তা করবো।” আর শিক্ষার্থীরা বলেছে, ইউএনও গলাচিপার চমৎকার উদ্যোগগুলো আমাদেরকে যেমন বিস্মিত করছে, তেমনি আমাদের মেধা বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তাঁর এই আয়োজন আমাদের পাবলিক পরীক্ষার ভীতি অনেক কমিয়ে দিয়েছে।

আবুল কালাম সাঈদ ,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানান, এইচ.এস.সি/ আলিম পর্যায়ে এ রকম প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা তারা এই প্রথম নিলেন। উপজেলা প্রশাসনের এমন আয়োজনে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে।

এছাড়া অভিভাবক, শিক্ষকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ জানান,” উপজেলা প্রশাসন, গলাচিপার আয়োজনে ও গলাচিপা স্কিল ল্যাব. এর বাস্তবায়নে এমন আয়োজন হওয়ায় আমরা সকলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

 

বাখ//আর