ঢাকা ০৪:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

গবেষণা ব্যতীত প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন অসম্ভব : রবি উপাচার্য

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৪৪:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৬০ বার পড়া হয়েছে

গবেষণা ব্যতীত প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন অসম্ভব : রবি উপাচার্য

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ভারতের বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ শাহ্ আজম। গত ১৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ‘ম্যানেজমেন্টের সাম্প্রতিক প্রবণতা’ শীর্ষক এই আন্তর্জাতিক সেমিনারে বিভিন্ন দেশের বিপুল সংখ্যক প্রথিতযশা গবেষকগণ অংশ নেন। সেমিনারের সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মানস কুমার স্যানাল, হরিচাঁদ গুরুচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর তপন কুমার বিশ্বাস ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. নিমাই চন্দ্র সাহা।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, গবেষণা ব্যতীত প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। সাম্প্রতিক লক্ষ্য করা যাচ্ছে গবেষণা লব্ধ ফল প্রকাশে এবং তাকে বাস্তব সমস্যা সমাধানে প্রয়োগের ক্ষেত্রে একদিকে শৈথিল্য অন্যদিকে প্রতিবন্ধকতাও পরিলক্ষিত হচ্ছে, যা হতাশার। অনেক ক্ষেত্রে গবেষকগণ গবেষণার সুনির্দিষ্ট রীতি-পদ্ধতি ও দর্শনের প্রতি প্রত্যাশিত মাত্রায় মনোযোগী নন। ফলে অনেক সময় গবেষণা নিরর্থকতায় পর্যবসিত হচ্ছে। গবেষণার মাধ্যমে সত্যে উপনীত হবার ক্ষেত্রে কোন একটি রীতি সবসময় কার্যকরী হয় না উল্লেখ করে ড. শাহ্ আজম বলেন, গবেষণায় মিশ্ররীতির প্রয়োগ দিন দিন গুরুত্ব পাচ্ছে। কেবল তথ্য নির্ভর প্রত্যক্ষনণের উপর একপেশে নির্ভরতা নয় সঙ্গে সঙ্গে গবেষণায় গুণগত ব্যাখ্যামূলক বিশ্লেষণকেও অঙ্গীভূত করা প্রয়োজন। ভারত-বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শিক্ষা ও গবেষণায় যৌথভাবে কাজ করলে আমাদের গবেষণা শক্তি আরও বৃদ্ধি পাবে এই আশা ব্যক্ত করেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য । এই প্রেক্ষিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদ্বয় দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শিক্ষা, গবেষণা ও প্রকাশনা ক্ষেত্রে যৌথভাবে কাজ করতে সম্মত হন। অচিরেই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পারস্পরিক বিনিময় কার্যক্রম শুরু হবে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর নিমাই চন্দ্র সাহা সহসাই রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

গবেষণা ব্যতীত প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন অসম্ভব : রবি উপাচার্য

আপডেট সময় : ০২:৪৪:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ভারতের বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ শাহ্ আজম। গত ১৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ‘ম্যানেজমেন্টের সাম্প্রতিক প্রবণতা’ শীর্ষক এই আন্তর্জাতিক সেমিনারে বিভিন্ন দেশের বিপুল সংখ্যক প্রথিতযশা গবেষকগণ অংশ নেন। সেমিনারের সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মানস কুমার স্যানাল, হরিচাঁদ গুরুচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর তপন কুমার বিশ্বাস ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. নিমাই চন্দ্র সাহা।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, গবেষণা ব্যতীত প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। সাম্প্রতিক লক্ষ্য করা যাচ্ছে গবেষণা লব্ধ ফল প্রকাশে এবং তাকে বাস্তব সমস্যা সমাধানে প্রয়োগের ক্ষেত্রে একদিকে শৈথিল্য অন্যদিকে প্রতিবন্ধকতাও পরিলক্ষিত হচ্ছে, যা হতাশার। অনেক ক্ষেত্রে গবেষকগণ গবেষণার সুনির্দিষ্ট রীতি-পদ্ধতি ও দর্শনের প্রতি প্রত্যাশিত মাত্রায় মনোযোগী নন। ফলে অনেক সময় গবেষণা নিরর্থকতায় পর্যবসিত হচ্ছে। গবেষণার মাধ্যমে সত্যে উপনীত হবার ক্ষেত্রে কোন একটি রীতি সবসময় কার্যকরী হয় না উল্লেখ করে ড. শাহ্ আজম বলেন, গবেষণায় মিশ্ররীতির প্রয়োগ দিন দিন গুরুত্ব পাচ্ছে। কেবল তথ্য নির্ভর প্রত্যক্ষনণের উপর একপেশে নির্ভরতা নয় সঙ্গে সঙ্গে গবেষণায় গুণগত ব্যাখ্যামূলক বিশ্লেষণকেও অঙ্গীভূত করা প্রয়োজন। ভারত-বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শিক্ষা ও গবেষণায় যৌথভাবে কাজ করলে আমাদের গবেষণা শক্তি আরও বৃদ্ধি পাবে এই আশা ব্যক্ত করেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য । এই প্রেক্ষিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদ্বয় দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শিক্ষা, গবেষণা ও প্রকাশনা ক্ষেত্রে যৌথভাবে কাজ করতে সম্মত হন। অচিরেই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পারস্পরিক বিনিময় কার্যক্রম শুরু হবে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর নিমাই চন্দ্র সাহা সহসাই রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন।