ঢাকা ০৬:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

খোলা চিনি কেজি ১৪০ টাকায় বিক্রি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৫২:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩
  • / ৪৬১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বাজারে পাওয়া যাচ্ছে না প্যাকেটজাত চিনি। আর খোলা চিনির দাম সরকার ১০৪ টাকা বেঁধে দিলেও বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়।

আমদানিকারকদের দাবি, আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির রেকর্ড দাম বেড়েছে। এ অবস্থায় বেশি দাম দিয়ে চিনি আমদানি করবেন কি না, সে বিষয়ে সরকারের মতামত চেয়েছেন তারা।

এদিকে দাম বেড়ে যাওয়ায় খুচরা ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ চিনি বিক্রি বন্ধ রেখেছেন। ডিলাররা দাম বেশি নিলেও ক্রয় রশিদ দিচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেছেন তারা।
গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র ও কক্ষের সংখ্যা প্রকাশ

টিসিবির হিসাবে দেখা গেছে, এক মাসে চিনির দাম বেড়েছে ১৫ শতাংশ। আর এক বছরে বেড়েছে ৬২ শতাংশের বেশি। এ ছাড়া পেঁয়াজ, আলু ও আটা-ময়দার দামও উর্ধ্বমুখী।

ট্যারিফ কমিশনের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন মনিটরিং সেলের সহকারী প্রধান মাহমুদুল হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন,চিনির অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির বিষয় নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসবে ট্যারিফ কমিশন।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সরকার খোলা বাজারে চিনির দাম ৩ টাকা কমিয়ে ১০৪ টাকা নির্ধারণ করে। এর আগে সরকার নির্ধারিত দাম ছিল ১০৭ টাকা, কিন্তু বাজারে পাওয়া যেত ১১৫ থেকে ১২০ টাকায়।
রাজারহাটে গ্রেফতারকৃত মাদক কারবারিকে জেল হাজতে প্রেরণ 

৬ এপ্রিল দাম কমানোর পর থেকে বড় কোম্পানি ও ব্যবসায়ীরা চিনি সরবরাহ সীমিত করে দেয়। এতে চিনির দাম বেড়েছে। শুধু তাই নয়, বড় ব্যবসায়ীরা খুচরা ব্যবসায়ীদের চিনি কেনার সময় কোনো রসিদও দিচ্ছেন না। সর্বশেষ মঙ্গলবার বাজারে খোলা চিনি ১৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ ব্যবসায়ীরা সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ১৪০ টাকা কেজিতে চিনি বিক্রি করছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

খোলা চিনি কেজি ১৪০ টাকায় বিক্রি

আপডেট সময় : ০১:৫২:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ মে ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বাজারে পাওয়া যাচ্ছে না প্যাকেটজাত চিনি। আর খোলা চিনির দাম সরকার ১০৪ টাকা বেঁধে দিলেও বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়।

আমদানিকারকদের দাবি, আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির রেকর্ড দাম বেড়েছে। এ অবস্থায় বেশি দাম দিয়ে চিনি আমদানি করবেন কি না, সে বিষয়ে সরকারের মতামত চেয়েছেন তারা।

এদিকে দাম বেড়ে যাওয়ায় খুচরা ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ চিনি বিক্রি বন্ধ রেখেছেন। ডিলাররা দাম বেশি নিলেও ক্রয় রশিদ দিচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেছেন তারা।
গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র ও কক্ষের সংখ্যা প্রকাশ

টিসিবির হিসাবে দেখা গেছে, এক মাসে চিনির দাম বেড়েছে ১৫ শতাংশ। আর এক বছরে বেড়েছে ৬২ শতাংশের বেশি। এ ছাড়া পেঁয়াজ, আলু ও আটা-ময়দার দামও উর্ধ্বমুখী।

ট্যারিফ কমিশনের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন মনিটরিং সেলের সহকারী প্রধান মাহমুদুল হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন,চিনির অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির বিষয় নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসবে ট্যারিফ কমিশন।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সরকার খোলা বাজারে চিনির দাম ৩ টাকা কমিয়ে ১০৪ টাকা নির্ধারণ করে। এর আগে সরকার নির্ধারিত দাম ছিল ১০৭ টাকা, কিন্তু বাজারে পাওয়া যেত ১১৫ থেকে ১২০ টাকায়।
রাজারহাটে গ্রেফতারকৃত মাদক কারবারিকে জেল হাজতে প্রেরণ 

৬ এপ্রিল দাম কমানোর পর থেকে বড় কোম্পানি ও ব্যবসায়ীরা চিনি সরবরাহ সীমিত করে দেয়। এতে চিনির দাম বেড়েছে। শুধু তাই নয়, বড় ব্যবসায়ীরা খুচরা ব্যবসায়ীদের চিনি কেনার সময় কোনো রসিদও দিচ্ছেন না। সর্বশেষ মঙ্গলবার বাজারে খোলা চিনি ১৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ ব্যবসায়ীরা সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ১৪০ টাকা কেজিতে চিনি বিক্রি করছে।