ঢাকা ০৩:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ক্ষত বিক্ষত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৯:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৪৮৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চট্টগ্রাম প্রতিবেদক: টানা বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় গত তিনদিন ধরে ডুবে আছে চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নির্মাণাধীন রেলপথ। ১০০ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার রেললাইনের অবকাঠামো কিছু স্থানে এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্তও হয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে কাজ শেষ ও অক্টোবরে উদ্বোধন হওয়ার কথা এই প্রকল্পের।

সরেজমিন দেখা গেছে, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, চন্দনাইশ; কক্সবাজারের চকরিয়া, ঈদগাহ ও রামুতে রেলপথের দুই পাশে থইথই পানি। কোথাও কোথাও রেলপথ ডুবে গেছে। টানা বর্ষণে নির্মাণাধীন এই রেলপথের পটিয়ায়।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চকরিয়া ও চন্দনাইশ উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে রেললাইনের ক্ষতি হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাতকানিয়া ও রোহাগাড়ায়। যদিও ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরূপণ করতে পারেনি রেলওয়ে।

এ বিষয়ে দোহাজারি-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্পের পরিচালক মফিজুর রহমান বলেন, রেললাইন এখনো পানির নিচে তলিয়ে আছে। তাই কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এখনই বলা সম্ভব হচ্ছে না। বন্যার পানি নেমে গেলে বোঝা যাবে ক্ষতির পরিমাণ।

কোথায় এবং কী ধরণের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এ প্রসঙ্গে মফিজুর রহমান বলেন, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চকরিয়া, রামু ও চন্দনাইশ উপজেলার কয়েকটি পয়েন্টে রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কোথাও কোথাও রেললাইন বাঁকা হয়ে গেছে, পাথর সরে গেছে বা একদিকে কাত হয়ে গেছে। তবে সেটা পুরো রেললাইনে না, কিছু কিছু অংশে। পানি নেমে গেলেই মেরামতের কাজ শুরু হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ক্ষত বিক্ষত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন

আপডেট সময় : ০৩:৪৯:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ অগাস্ট ২০২৩

চট্টগ্রাম প্রতিবেদক: টানা বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় গত তিনদিন ধরে ডুবে আছে চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নির্মাণাধীন রেলপথ। ১০০ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার রেললাইনের অবকাঠামো কিছু স্থানে এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্তও হয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে কাজ শেষ ও অক্টোবরে উদ্বোধন হওয়ার কথা এই প্রকল্পের।

সরেজমিন দেখা গেছে, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, চন্দনাইশ; কক্সবাজারের চকরিয়া, ঈদগাহ ও রামুতে রেলপথের দুই পাশে থইথই পানি। কোথাও কোথাও রেলপথ ডুবে গেছে। টানা বর্ষণে নির্মাণাধীন এই রেলপথের পটিয়ায়।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চকরিয়া ও চন্দনাইশ উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে রেললাইনের ক্ষতি হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাতকানিয়া ও রোহাগাড়ায়। যদিও ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরূপণ করতে পারেনি রেলওয়ে।

এ বিষয়ে দোহাজারি-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্পের পরিচালক মফিজুর রহমান বলেন, রেললাইন এখনো পানির নিচে তলিয়ে আছে। তাই কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এখনই বলা সম্ভব হচ্ছে না। বন্যার পানি নেমে গেলে বোঝা যাবে ক্ষতির পরিমাণ।

কোথায় এবং কী ধরণের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এ প্রসঙ্গে মফিজুর রহমান বলেন, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চকরিয়া, রামু ও চন্দনাইশ উপজেলার কয়েকটি পয়েন্টে রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কোথাও কোথাও রেললাইন বাঁকা হয়ে গেছে, পাথর সরে গেছে বা একদিকে কাত হয়ে গেছে। তবে সেটা পুরো রেললাইনে না, কিছু কিছু অংশে। পানি নেমে গেলেই মেরামতের কাজ শুরু হবে।