ঢাকা ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে দেখা মিললো ৮০ কেজি ওজনের এক জোড়া কচ্ছপ

এ এম মিজানুর রহমান বুলেট, কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:০৪:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪
  • / ৬৫৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে এবার পাওয়া গেল দু’টি মৃত কচ্ছপ। যার একটির ওজন প্রায় ৪০ কেজি অন্যটির ওজন ৩৫ কেজি। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে কুয়াকাটা সৈকতের পশ্চিম দিকে কচ্ছপ দু’টিকে দেখতে পান কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য কেএম বাচ্চু। উদ্ধারের পরে কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটি, বনবিভাগ ও ইকোফিশের সমন্বয়ে মাটিচাপা দেয়া হয় কচ্ছপ দুটিকে।
সমুদ্রের নীল অর্থনীতি, উপকূলের পরিবেশ-প্রতিবেশ এবং জীববৈচিত্র্য নিয়ে কাজ করা গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ডফিশের ইকোফিশ-২ বাংলাদেশ প্রকল্পের সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি বলেন, মূলত কদিন আগে জেলিফিশের আদিক্যটা বেড়ে যাওয়া কারনে ওরা তীরে আসতে পারে কারন এই কাছিমগুলোতে জেলিফিশ খেতে পছন্দ করে। আজকে যে কাছিম দুটি আসছে তার বৈজ্ঞানিক নাম  লেপিডোসেলিম ওলিভাসিয়া (Lepidochelys olivacea) এরা সাধারণত ৫০ বছরের অধিক সময় বেঁচে থাকে। আমাদের কর্মীদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, কচ্ছপগুলোর পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে কেউ আঘাত করেছে তাতে ওদের মৃত্যু হচ্ছে।
কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য আবুল হোসেন রাজু জানান, একটি কচ্ছপের লেজে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে এবং রক্তক্ষরণ হচ্ছে, মনে হচ্ছে কোনকিছুর সাথে আটকে মারা গেছে। এরআগে ২৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে বেশকিছু কচ্ছপের দেখা মিলছিল এই সৈকতে তবে ২৪ সালে এই প্রথম। সামুদ্রিক প্রাণীর এই মৃত্যুগুলো আমাদের সমুদ্র পরিবেশের জন্য বেশ হুমকি।
বনবিভাগ মহিপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্যদের কাছে তথ্য পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে আমার ফোর্সসহ দ্রুত চলে আসি। একটি কচ্ছপ একটু দূর্ঘন্ধ ছড়াচ্ছে তাই তাঁদের সহযোগীতায় মাটি চাপা দেয়ার ব্যবস্থা করেছি।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে দেখা মিললো ৮০ কেজি ওজনের এক জোড়া কচ্ছপ

আপডেট সময় : ০৩:০৪:২৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪
পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে এবার পাওয়া গেল দু’টি মৃত কচ্ছপ। যার একটির ওজন প্রায় ৪০ কেজি অন্যটির ওজন ৩৫ কেজি। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে কুয়াকাটা সৈকতের পশ্চিম দিকে কচ্ছপ দু’টিকে দেখতে পান কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য কেএম বাচ্চু। উদ্ধারের পরে কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটি, বনবিভাগ ও ইকোফিশের সমন্বয়ে মাটিচাপা দেয়া হয় কচ্ছপ দুটিকে।
সমুদ্রের নীল অর্থনীতি, উপকূলের পরিবেশ-প্রতিবেশ এবং জীববৈচিত্র্য নিয়ে কাজ করা গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ডফিশের ইকোফিশ-২ বাংলাদেশ প্রকল্পের সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি বলেন, মূলত কদিন আগে জেলিফিশের আদিক্যটা বেড়ে যাওয়া কারনে ওরা তীরে আসতে পারে কারন এই কাছিমগুলোতে জেলিফিশ খেতে পছন্দ করে। আজকে যে কাছিম দুটি আসছে তার বৈজ্ঞানিক নাম  লেপিডোসেলিম ওলিভাসিয়া (Lepidochelys olivacea) এরা সাধারণত ৫০ বছরের অধিক সময় বেঁচে থাকে। আমাদের কর্মীদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, কচ্ছপগুলোর পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে কেউ আঘাত করেছে তাতে ওদের মৃত্যু হচ্ছে।
কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য আবুল হোসেন রাজু জানান, একটি কচ্ছপের লেজে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে এবং রক্তক্ষরণ হচ্ছে, মনে হচ্ছে কোনকিছুর সাথে আটকে মারা গেছে। এরআগে ২৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে বেশকিছু কচ্ছপের দেখা মিলছিল এই সৈকতে তবে ২৪ সালে এই প্রথম। সামুদ্রিক প্রাণীর এই মৃত্যুগুলো আমাদের সমুদ্র পরিবেশের জন্য বেশ হুমকি।
বনবিভাগ মহিপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্যদের কাছে তথ্য পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে আমার ফোর্সসহ দ্রুত চলে আসি। একটি কচ্ছপ একটু দূর্ঘন্ধ ছড়াচ্ছে তাই তাঁদের সহযোগীতায় মাটি চাপা দেয়ার ব্যবস্থা করেছি।
বাখ//আর