ঢাকা ১১:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কুমিল্লার হোমনায় যুবলীগ নেতা ছাদেক বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী

মোঃ আসলাম পারভেজ, কুমিল্লা প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০২:৫৪:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০২৪
  • / ২২০৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান ও তার বাহিনীর সংঘটিত নানা অপকর্ম অত্যাচারে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন একই গ্রামের বাসিন্দারা।
অভিযুক্ত ছাদেকুর রহমান উপজেলার ৭নং ভাষানিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। রবিবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান উপজেলার দড়ি ভাষানিয়া গ্রামে অনৈতিক ভাবে দীর্ঘদিন প্রভাব বিস্তার করে আসছে। গড়ে তুলেছেন ত্রাশের রাজত্ব। গ্রামে তার ছত্রছায়ায় তৈরি হয়েছে ছাদেক বাহিনী। চাদাবাজী, মাদক ব্যবসা, অবৈধভাবে কৃষি জমির মাটি বিক্রি ও জমির বালু ভরাটের নামে অর্থ আত্মসাৎ সহ নানা অপকর্মে লিপ্ত এ যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান। থানায় রয়েছে তার নামে একাধিক অভিযোগ ও আদালতে রয়েছে মামলা।
যুবলীগ নেতা ছাদেক ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, যুবলীগ নেতা পরিচয়ে ছাদেকুর রহমান এলাকায় নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। তার সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে আমরা এলাকায় ঠিকমত চলা ফেরাও করতে পারি না। কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বললেই সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসে হামলা চালায়। আমরা তার অত্যাচারে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছি। প্রশাসন ও স্থানীয় এমপি মহোদয়ের কাছে আমাদের অনুরোধ তদন্ত সাপেক্ষে এ ছাদেক ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা নেয়া হোক। আমরা গ্রামবাসী ছাদেক ও তার বাহিনীর এ অত্যাচার নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে চাই।
গ্রামের হিন্দু পরিবারের সদস্য ভুক্তভোগী অঞ্জুরানী দাস জানান, আমার বাড়ির জায়গার বালু ভরাটের কথা বলে ছাদেক টাকা নিয়ে সে টাকা আত্মসাৎ করেছে। টাকা চাইলে হুমকি দেয়। পরে উপায় না পেয়ে জায়গাটি আমি অন্য লোক দিয়ে মাটি ভরাট করতে গেলেও সেখানে ছাদেকসহ তার বাহিনী বাধা দেয় এবং চাঁদা দাবী করে। এক পর্যায় এ নিয়ে কথা কাটি হলে আমাদের পরিবারের উপর সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে হামলা চালায়। আমরা কোর্টে মামলা করেছি ছাদেক ও তার বাহীনির বিরুদ্ধে। আমরা তার এ অত্যাচার থেকে মুক্তি চাই।
ভুক্তভোগী আছমা আক্তার জানান,  গ্রামের মানুষজন যুবলীগ নেতা ছাদেক এর দ্বারা নানা ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারনে আমার বড় ভাইয়ের কাছে বিচার দেয়। তার জের ধরে ছাদেক আমাদের শত্রু হয়ে দাড়ায়। আমাদের পরিবার কে নানা ভাবে হুমকি ধামকি দেয়া শুরু করে এবং অস্ত্র নিয়ে বাড়িতে এসে হামলার চেষ্টা করে এক পর্যায়ে আমার মাকে রামদা নিয়ে কোপাতে আসে। আমরা থানা পুলিশ কে কল দিয়ে নিজেদেরকে রক্ষা করি। আমার এক ভাই বিদেশ থাকে সে দেশে আসলে চাঁদা দিতে হবে বলে দাবি করে ছাদেক। আর নয়তো প্রানে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে। আমারা রাস্তায় বের হলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা নানা ধরনের কুটক্তি করে কথা বার্তা বলে বিরক্ত করে। আমরা পরিবার নিয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। আমি এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
ভুক্তভোগী দেলোয়ার হোসেন জানান, কুমিল্লা-১ আসনের সংসদ সদস্য মজিদ স্যারকে আমরা কেন দাওয়াত করলাম সেই কারণে শুক্রবারদিন মসজিদের ভিতরে প্রবেশ করে ছাদেকসহ তার  বাহীনি আমাদের উপর হামলা চালায় তখন জুম্মার নামাজও বন্ধ হয়ে যায়, আমাদের পরিবারের ৪ জনকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করছে। আমরা এ ঘটনায় মামলা  করেছি।
উক্ত ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি নজরুল সরকার জানান, আমি দীর্ঘ দিন এ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলাম আগে কখনো এ গ্রামে কোন প্রকার জামেলা হয়নি ও কাউকে জামেলা করতে দেওয়া হয়নি। ছাদেক সভাপতি হওয়ার পর থেকেই এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করা শুরু করছে। এই অপকর্মে কেউ বাধা দিলে তার সন্ত্রাসী বাহীনি দিয়ে নানা ভাবে  হুমকি ধামকি দেয়। নিয়ম না মেনে নদী খননের কাজ করে সে অনেক ফসলী জমি নষ্ট করেছে জমি গুলো নদীর সাথে বিলীন হয়ে গেছে। নদীর সাথের অনেক জমিতেই মাটি দেয়ার কথা থাকলেও সে টাকা পয়সা নিয়ে তাদের মাটি দেয় নাই।
অভিযুক্ত ভাষানিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছাদেকুর রহমানের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা যেমন গ্রাম বাসী নিয়ে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে, আমাকেও আপনারা সময় দেন আমিও গ্রামবাসী নিয়ে আপনাদেরকে বক্তব্য দিবো, এই মূহর্তে আমি কোন বক্তব্য দিবো না।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

কুমিল্লার হোমনায় যুবলীগ নেতা ছাদেক বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী

আপডেট সময় : ০২:৫৪:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০২৪
কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান ও তার বাহিনীর সংঘটিত নানা অপকর্ম অত্যাচারে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন একই গ্রামের বাসিন্দারা।
অভিযুক্ত ছাদেকুর রহমান উপজেলার ৭নং ভাষানিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। রবিবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান উপজেলার দড়ি ভাষানিয়া গ্রামে অনৈতিক ভাবে দীর্ঘদিন প্রভাব বিস্তার করে আসছে। গড়ে তুলেছেন ত্রাশের রাজত্ব। গ্রামে তার ছত্রছায়ায় তৈরি হয়েছে ছাদেক বাহিনী। চাদাবাজী, মাদক ব্যবসা, অবৈধভাবে কৃষি জমির মাটি বিক্রি ও জমির বালু ভরাটের নামে অর্থ আত্মসাৎ সহ নানা অপকর্মে লিপ্ত এ যুবলীগ নেতা ছাদেকুর রহমান। থানায় রয়েছে তার নামে একাধিক অভিযোগ ও আদালতে রয়েছে মামলা।
যুবলীগ নেতা ছাদেক ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, যুবলীগ নেতা পরিচয়ে ছাদেকুর রহমান এলাকায় নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। তার সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে আমরা এলাকায় ঠিকমত চলা ফেরাও করতে পারি না। কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বললেই সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসে হামলা চালায়। আমরা তার অত্যাচারে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছি। প্রশাসন ও স্থানীয় এমপি মহোদয়ের কাছে আমাদের অনুরোধ তদন্ত সাপেক্ষে এ ছাদেক ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা নেয়া হোক। আমরা গ্রামবাসী ছাদেক ও তার বাহিনীর এ অত্যাচার নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে চাই।
গ্রামের হিন্দু পরিবারের সদস্য ভুক্তভোগী অঞ্জুরানী দাস জানান, আমার বাড়ির জায়গার বালু ভরাটের কথা বলে ছাদেক টাকা নিয়ে সে টাকা আত্মসাৎ করেছে। টাকা চাইলে হুমকি দেয়। পরে উপায় না পেয়ে জায়গাটি আমি অন্য লোক দিয়ে মাটি ভরাট করতে গেলেও সেখানে ছাদেকসহ তার বাহিনী বাধা দেয় এবং চাঁদা দাবী করে। এক পর্যায় এ নিয়ে কথা কাটি হলে আমাদের পরিবারের উপর সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে হামলা চালায়। আমরা কোর্টে মামলা করেছি ছাদেক ও তার বাহীনির বিরুদ্ধে। আমরা তার এ অত্যাচার থেকে মুক্তি চাই।
ভুক্তভোগী আছমা আক্তার জানান,  গ্রামের মানুষজন যুবলীগ নেতা ছাদেক এর দ্বারা নানা ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারনে আমার বড় ভাইয়ের কাছে বিচার দেয়। তার জের ধরে ছাদেক আমাদের শত্রু হয়ে দাড়ায়। আমাদের পরিবার কে নানা ভাবে হুমকি ধামকি দেয়া শুরু করে এবং অস্ত্র নিয়ে বাড়িতে এসে হামলার চেষ্টা করে এক পর্যায়ে আমার মাকে রামদা নিয়ে কোপাতে আসে। আমরা থানা পুলিশ কে কল দিয়ে নিজেদেরকে রক্ষা করি। আমার এক ভাই বিদেশ থাকে সে দেশে আসলে চাঁদা দিতে হবে বলে দাবি করে ছাদেক। আর নয়তো প্রানে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে। আমারা রাস্তায় বের হলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা নানা ধরনের কুটক্তি করে কথা বার্তা বলে বিরক্ত করে। আমরা পরিবার নিয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। আমি এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
ভুক্তভোগী দেলোয়ার হোসেন জানান, কুমিল্লা-১ আসনের সংসদ সদস্য মজিদ স্যারকে আমরা কেন দাওয়াত করলাম সেই কারণে শুক্রবারদিন মসজিদের ভিতরে প্রবেশ করে ছাদেকসহ তার  বাহীনি আমাদের উপর হামলা চালায় তখন জুম্মার নামাজও বন্ধ হয়ে যায়, আমাদের পরিবারের ৪ জনকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করছে। আমরা এ ঘটনায় মামলা  করেছি।
উক্ত ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি নজরুল সরকার জানান, আমি দীর্ঘ দিন এ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলাম আগে কখনো এ গ্রামে কোন প্রকার জামেলা হয়নি ও কাউকে জামেলা করতে দেওয়া হয়নি। ছাদেক সভাপতি হওয়ার পর থেকেই এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করা শুরু করছে। এই অপকর্মে কেউ বাধা দিলে তার সন্ত্রাসী বাহীনি দিয়ে নানা ভাবে  হুমকি ধামকি দেয়। নিয়ম না মেনে নদী খননের কাজ করে সে অনেক ফসলী জমি নষ্ট করেছে জমি গুলো নদীর সাথে বিলীন হয়ে গেছে। নদীর সাথের অনেক জমিতেই মাটি দেয়ার কথা থাকলেও সে টাকা পয়সা নিয়ে তাদের মাটি দেয় নাই।
অভিযুক্ত ভাষানিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছাদেকুর রহমানের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা যেমন গ্রাম বাসী নিয়ে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে, আমাকেও আপনারা সময় দেন আমিও গ্রামবাসী নিয়ে আপনাদেরকে বক্তব্য দিবো, এই মূহর্তে আমি কোন বক্তব্য দিবো না।
বাখ//আর