ঢাকা ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কাতারের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি আলোচনায় অগ্রগতি

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:২৫:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৭০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

হামাস–ইসরায়েল সংঘাত থামাতে এবার যুদ্ধবিরতি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে কাতার। কাতারের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি আলোচনা শুরু হয়েছে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল–জাজিরা বলছে, এরই মধ্যে এই আলোচলায় কিছু অগ্রগতি এসেছে। এতে বন্দিবিনিময় চুক্তিও থাকছে।

যুদ্ধবিরতি ছাড়া ইসরায়েল থেকে আটক ব্যক্তিদের মুক্তি দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে ফিলিস্তিনির স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস। রাশিয়া সফররত সংগঠনটির এক সদস্য স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে এমনটি জানিয়েছেন।

আবু হামিদ নামের হামাসের এক সদস্য রুশ সংবাদমাধ্যম কমার্স্যান্তকে জানান, আটক ইসরায়েলিদের খোঁজ পেতে সময় প্রয়োজন।

হামাসের এ সদস্য বলেন, ‘শত শত মানুষকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক। তাঁদের গাজায় খুঁজতে আমাদের সময় প্রয়োজন। এরপর তাঁদের মুক্তি দেওয়া হবে।’

ইসরায়েলের কারাগারে বন্দী ফিলিস্তিনিদের মুক্তি দিলেই কেবল যুদ্ধবিরতিতে যাবে হামাস। এমনটাই জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী এই সংগঠন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত কাতারের অ্যাম্বাসেডর শেইখা আলইয়া আহমেদ সাইফ আল থানি বলেন, ‘গাজায় ইসরায়েলি হামলায় বেসামরিক নাগরিক নিহত হচ্ছে বেশি। এই হামলা আরও ভয়াবহ হয়ে উঠছে। দ্রুত যুদ্ধবিরতি দরকার। আমরাও চাই বেসামরিক ফিলিস্তিনিদের মুক্তি দেওয়া হোক।’

নিউজটি শেয়ার করুন

কাতারের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি আলোচনায় অগ্রগতি

আপডেট সময় : ১১:২৫:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর ২০২৩

হামাস–ইসরায়েল সংঘাত থামাতে এবার যুদ্ধবিরতি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে কাতার। কাতারের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি আলোচনা শুরু হয়েছে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল–জাজিরা বলছে, এরই মধ্যে এই আলোচলায় কিছু অগ্রগতি এসেছে। এতে বন্দিবিনিময় চুক্তিও থাকছে।

যুদ্ধবিরতি ছাড়া ইসরায়েল থেকে আটক ব্যক্তিদের মুক্তি দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে ফিলিস্তিনির স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস। রাশিয়া সফররত সংগঠনটির এক সদস্য স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে এমনটি জানিয়েছেন।

আবু হামিদ নামের হামাসের এক সদস্য রুশ সংবাদমাধ্যম কমার্স্যান্তকে জানান, আটক ইসরায়েলিদের খোঁজ পেতে সময় প্রয়োজন।

হামাসের এ সদস্য বলেন, ‘শত শত মানুষকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক। তাঁদের গাজায় খুঁজতে আমাদের সময় প্রয়োজন। এরপর তাঁদের মুক্তি দেওয়া হবে।’

ইসরায়েলের কারাগারে বন্দী ফিলিস্তিনিদের মুক্তি দিলেই কেবল যুদ্ধবিরতিতে যাবে হামাস। এমনটাই জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী এই সংগঠন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত কাতারের অ্যাম্বাসেডর শেইখা আলইয়া আহমেদ সাইফ আল থানি বলেন, ‘গাজায় ইসরায়েলি হামলায় বেসামরিক নাগরিক নিহত হচ্ছে বেশি। এই হামলা আরও ভয়াবহ হয়ে উঠছে। দ্রুত যুদ্ধবিরতি দরকার। আমরাও চাই বেসামরিক ফিলিস্তিনিদের মুক্তি দেওয়া হোক।’