ঢাকা ০২:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কলাপাড়ায় ১০ বছর পর যুবলীগের সম্মেলন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৫০:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ১৯৬৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

// এ এম মিজানুর রহমান বুলেট , কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি //

দীর্ঘ ১০ বছর পর অবশেষে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গঠনতন্ত্রের ১৬ ও ২১ ধারা মোতাবেক ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ যুবলীগের উপজেলা সম্মেলনের তারিখ নির্ধারন করা হয়েছে।  যুবলীগ জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট মো: শহিদুল ইসলাম ও সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মো: সোহেল স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, সম্পাদক পদে জীবন বৃত্তান্ত আহ্বান করে জেলা যুবলীগ। বিগত ২৮ জুলাই  উপজেলা যুবলীগের সম্মেলনের তারিখও নির্ধারন করে জেলা যুবলীগ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত স্থগিত হয়ে যায় কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের ২৮ তারিখের সম্মেলন।

সূত্র জানায়, কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি-সম্পাদক উপজেলা আওয়ামী লীগের
সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ পাওয়ায় পর থেকে অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে যুবলীগ।

এরপর গত ১০ বছরেও তৃণমূলের কমিটি না হওয়ায় তৃণমূল নেতা কর্মীদের সাথে যুবলীগ নেতৃবৃন্দের যোগাযোগ হ্রাস পায়।  দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টিতে কেন্দ্রের নির্দেশনায় সম্মেলনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এতে চাঙ্গা হয়ে উঠতে শুরু করেছে যুবলীগ। সভাপতি, সম্পাদক পদ বাগিয়ে নিতে  মাঠে নামতে শুরু করেছে পদ প্রত্যাশিরা। এরা পদ পেতে জেলা ও কেন্দ্রে লবিং তদ্বির শুরু করেছে জোরেশোরে। তবে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের দাবী, দক্ষ, পরিশ্রমী, ত্যাগী, সাংগঠনিক নেতা-কর্মীকে পদ দেয়া হোক। ১০ বছরের নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়া
যুবলীগ আগামী দিনে স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজপথে মোকাবেলা করতে পারে।

সূত্রটি আরও জানায়, যুবলীগের সভাপতি পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন
মো: হুমায়ুন কবির, মো: শহিদুল ইসলাম, মো: মাহামুদুল হাসান সুজন মোল্লা, মো: জিয়াউর রহমান, সৈয়দ জাকির হোসেন, সৈয়দ মশিউর রহমান শিমু, জাকি হোসেন জুকু প্রমূখ।

উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড, সাইদুর রহমান বলেন, আমরা সকলের সমন্নয় আগামী দিনের জন্য সুন্দর একটি সম্মেলন উপহার দেবো।
উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো: শফিকুল আলম
বাবুল বলেন, ‘উপজেলা যুবলীগ নিষ্ক্রিয় বলে যারা মন্তব্য করেছে তারা সংগঠনের কেউ না, ওরা হাইব্রিড।
জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড, সৈয়দ সোহেল বলেন, দীর্ঘ দিন পটুয়াখালী সদর উপজেলা যুবলীগ সধারন সম্পাদকের দায়িত্ব স্বচ্ছতার সাথে পালন করে আসছি বর্তমানে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। কমিটি নিয়ে রিউমার যবলীগে নেই। আমরা ক্লিন যবলীগ করি।
জেলা যুবলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো: শহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা উপজেলা
সম্মেলনের পর কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তরে পদ প্রত্যাশীদের বায়োডাটা জমা দেবো।  যুবলীগ চেয়ারম্যান ও সম্পাদক মহোদয়ের সমন্বয়ে যাচাই বাছাই শেষে উপজেলা কমিটি অনুমোদন দেয়া হবে। অবশ্যই সাংগঠনিক, ত্যাগ ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নেতা নির্বাচিত হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

কলাপাড়ায় ১০ বছর পর যুবলীগের সম্মেলন

আপডেট সময় : ০৪:৫০:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

// এ এম মিজানুর রহমান বুলেট , কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি //

দীর্ঘ ১০ বছর পর অবশেষে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গঠনতন্ত্রের ১৬ ও ২১ ধারা মোতাবেক ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ যুবলীগের উপজেলা সম্মেলনের তারিখ নির্ধারন করা হয়েছে।  যুবলীগ জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট মো: শহিদুল ইসলাম ও সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মো: সোহেল স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, সম্পাদক পদে জীবন বৃত্তান্ত আহ্বান করে জেলা যুবলীগ। বিগত ২৮ জুলাই  উপজেলা যুবলীগের সম্মেলনের তারিখও নির্ধারন করে জেলা যুবলীগ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত স্থগিত হয়ে যায় কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের ২৮ তারিখের সম্মেলন।

সূত্র জানায়, কলাপাড়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি-সম্পাদক উপজেলা আওয়ামী লীগের
সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ পাওয়ায় পর থেকে অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে যুবলীগ।

এরপর গত ১০ বছরেও তৃণমূলের কমিটি না হওয়ায় তৃণমূল নেতা কর্মীদের সাথে যুবলীগ নেতৃবৃন্দের যোগাযোগ হ্রাস পায়।  দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টিতে কেন্দ্রের নির্দেশনায় সম্মেলনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এতে চাঙ্গা হয়ে উঠতে শুরু করেছে যুবলীগ। সভাপতি, সম্পাদক পদ বাগিয়ে নিতে  মাঠে নামতে শুরু করেছে পদ প্রত্যাশিরা। এরা পদ পেতে জেলা ও কেন্দ্রে লবিং তদ্বির শুরু করেছে জোরেশোরে। তবে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের দাবী, দক্ষ, পরিশ্রমী, ত্যাগী, সাংগঠনিক নেতা-কর্মীকে পদ দেয়া হোক। ১০ বছরের নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়া
যুবলীগ আগামী দিনে স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজপথে মোকাবেলা করতে পারে।

সূত্রটি আরও জানায়, যুবলীগের সভাপতি পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন
মো: হুমায়ুন কবির, মো: শহিদুল ইসলাম, মো: মাহামুদুল হাসান সুজন মোল্লা, মো: জিয়াউর রহমান, সৈয়দ জাকির হোসেন, সৈয়দ মশিউর রহমান শিমু, জাকি হোসেন জুকু প্রমূখ।

উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড, সাইদুর রহমান বলেন, আমরা সকলের সমন্নয় আগামী দিনের জন্য সুন্দর একটি সম্মেলন উপহার দেবো।
উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো: শফিকুল আলম
বাবুল বলেন, ‘উপজেলা যুবলীগ নিষ্ক্রিয় বলে যারা মন্তব্য করেছে তারা সংগঠনের কেউ না, ওরা হাইব্রিড।
জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড, সৈয়দ সোহেল বলেন, দীর্ঘ দিন পটুয়াখালী সদর উপজেলা যুবলীগ সধারন সম্পাদকের দায়িত্ব স্বচ্ছতার সাথে পালন করে আসছি বর্তমানে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। কমিটি নিয়ে রিউমার যবলীগে নেই। আমরা ক্লিন যবলীগ করি।
জেলা যুবলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো: শহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা উপজেলা
সম্মেলনের পর কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তরে পদ প্রত্যাশীদের বায়োডাটা জমা দেবো।  যুবলীগ চেয়ারম্যান ও সম্পাদক মহোদয়ের সমন্বয়ে যাচাই বাছাই শেষে উপজেলা কমিটি অনুমোদন দেয়া হবে। অবশ্যই সাংগঠনিক, ত্যাগ ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নেতা নির্বাচিত হবে।