ঢাকা ০৬:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

করোনা টিকার বুস্টার ডোজ আপাতত বন্ধ : স্বাস্থ্য অধিদফতর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৪০:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৮১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

করোনা টিকা সঙ্কট, মজুতকৃত টিকার মেয়াদের তারিখ শেষ হওয়ায় দেশে বুস্টার ডোজ (তৃতীয় ও চতুর্থ) প্রয়োগ কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কোভ্যাক্স থেকে টিকা আসা সাপেক্ষে আবারও এই কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বুধবার (১ মার্চ) বিকেল ৩টায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে টিকাবিষয়ক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর।

অধ্যাপক আহমেদুল কবীর বলেন, করোনা বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা আমরা আপাতত ফাইজার ছাড়া কোনো বুস্টার ডোজ দিচ্ছি না। যেহেতু আমাদের হাতে আপাতত ফাইজারের মজুদ নেই তাই এই কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, বুস্টার ডোজ নিতে ততটা বাধ্যবাধকতা না থাকায় অনেকে নিতে চাচ্ছেন না। বিশেষ করে চতুর্থ ডোজে তেমন সাড়া মিলছে না। তারপরও বুস্টারের যত টিকা ছিল তা শেষ। এসব টিকা কোভ্যাক্সের মাধ্যমে আনা হয়। ইতোমধ্যে চাহিদা দেওয়া হয়েছে, আসতে ৩-৪ সপ্তাহ লাগবে। আসা মাত্রই আবারও দেওয়া হবে। এ দফায় ৩০ লাখ টিকা আসবে। চাহিদা অনুযায়ী তারা আরও টিকা দিতে পারবে বলে জানিয়েছে।

সামগ্রিক টিকা কার্যক্রমের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যের অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেন, এখন পর্যন্ত ১৫ কোটি মানুষ প্রথম ডোজের টিকা পেয়েছে, দ্বিতীয় ডোজ প্রায় ১৪ কোটি। আর ৬ কোটি ৭৩ লাখের অধিক মানুষ বুস্টার এবং সেকেন্ড বুস্টার পেয়েছে ৩১ লাখে ৪৮ হাজার ৯৮৮ জন। যেহেতু বুস্টারের টিকা আমাদের হাতে নেই, তাই আপাতত সেটি বন্ধ রয়েছে। তবে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের টিকা আমাদের কাছে মজুদ আছে। যেহেতু শতকরা ৯৬ শতাংশ মানুষই টিকা পেয়েছে, তাই নতুন করে মানুষ টিকা আসছেন না। লোকজন আসলে আমরা অবশ্যই টিকা দেব।

নিউজটি শেয়ার করুন

করোনা টিকার বুস্টার ডোজ আপাতত বন্ধ : স্বাস্থ্য অধিদফতর

আপডেট সময় : ০৪:৪০:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

করোনা টিকা সঙ্কট, মজুতকৃত টিকার মেয়াদের তারিখ শেষ হওয়ায় দেশে বুস্টার ডোজ (তৃতীয় ও চতুর্থ) প্রয়োগ কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কোভ্যাক্স থেকে টিকা আসা সাপেক্ষে আবারও এই কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বুধবার (১ মার্চ) বিকেল ৩টায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে টিকাবিষয়ক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর।

অধ্যাপক আহমেদুল কবীর বলেন, করোনা বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা আমরা আপাতত ফাইজার ছাড়া কোনো বুস্টার ডোজ দিচ্ছি না। যেহেতু আমাদের হাতে আপাতত ফাইজারের মজুদ নেই তাই এই কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, বুস্টার ডোজ নিতে ততটা বাধ্যবাধকতা না থাকায় অনেকে নিতে চাচ্ছেন না। বিশেষ করে চতুর্থ ডোজে তেমন সাড়া মিলছে না। তারপরও বুস্টারের যত টিকা ছিল তা শেষ। এসব টিকা কোভ্যাক্সের মাধ্যমে আনা হয়। ইতোমধ্যে চাহিদা দেওয়া হয়েছে, আসতে ৩-৪ সপ্তাহ লাগবে। আসা মাত্রই আবারও দেওয়া হবে। এ দফায় ৩০ লাখ টিকা আসবে। চাহিদা অনুযায়ী তারা আরও টিকা দিতে পারবে বলে জানিয়েছে।

সামগ্রিক টিকা কার্যক্রমের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যের অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেন, এখন পর্যন্ত ১৫ কোটি মানুষ প্রথম ডোজের টিকা পেয়েছে, দ্বিতীয় ডোজ প্রায় ১৪ কোটি। আর ৬ কোটি ৭৩ লাখের অধিক মানুষ বুস্টার এবং সেকেন্ড বুস্টার পেয়েছে ৩১ লাখে ৪৮ হাজার ৯৮৮ জন। যেহেতু বুস্টারের টিকা আমাদের হাতে নেই, তাই আপাতত সেটি বন্ধ রয়েছে। তবে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের টিকা আমাদের কাছে মজুদ আছে। যেহেতু শতকরা ৯৬ শতাংশ মানুষই টিকা পেয়েছে, তাই নতুন করে মানুষ টিকা আসছেন না। লোকজন আসলে আমরা অবশ্যই টিকা দেব।