ঢাকা ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কয়রায় বিএনপির কমিটি বাতিলে দাবি পদ বঞ্চিতদের

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৪৫:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৪৪০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি :

কয়রা উপজেলা বিএনপির কমিটি নিয়ে দু’গ্রুপের টানাপোড়ন চলছে দীর্ধদিন, এবার ৮ জনকে পদ পদবী স্থগিত করার দাবি করে জেলা কমিটিতে সুপারিশ করেছেন আহবায়ক কমিটি। এদিকে উপজেলা বিএনপির সাবেক একাধিক সিনিয়র নেতা কর্মী বর্তমান আহবায়ক কমিটিতে মান সম্মত পদ পদবী না পাওয়ায় একাধিক অভিযোগ এনে কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এসব নেতৃবৃন্দ।

তবে অভিযোগকারীদের বিরুদ্ধে বর্তমান আহবায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দ পাল্টা অভিযোগ করে, সাংবাদিকদের জানান, দলে শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে পদ পদবী আছে এমন ৮ জনকে অভিযুক্ত করে সম্প্রতি অভিযোগ করা হয়েছে জেলা কমিটিতে।

অন্যদিকে পদ বঞ্চিতদের অভিযোগ উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব নুরুল আমিন বাবুল পরিক্ষিত এবং দলের দুঃসময়ের নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে অর্থের বিনিময়ে অনেকের নাম কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করেছে।

এ বিষয় দলের সদস্য সচিব বাবুলের সাথে কথা বললে তিনি অর্থের বিনিময়ে সদস্য নিয়োগসহ তাদের সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, উপজেলা আহবায়ক কমিটি দিয়েছেন জেলা কমিটি । অর্থের বিনিময়ে আমি নাম অন্তভূক্ত করেছি সেটা প্রশ্নেও উঠেনা। দলের এই চরম দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের অবস্থান বুঝে জেলা কমিটি যার যেখানে প্রাপ্য তাকে সেখানে বসিয়েছেন। দলীয় আহবায়ক কমিটির পদ পদবী থাকা সত্বেও ৮ জন ২৯ এপ্রিল দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে সংবাদ সম্মেলন করায় তাদের বিরুদ্ধে পদ পদবী স্থগিত করার জন্য জেলাকে সুপারিশ করেছি।

তিনি আরও বলেন, দলের মধ্যে এমন অনেক নেতা এবং কর্মী আছে যারা ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের হয়ে সকল নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করেন।

এসময় তিনি পদ স্থগিত ব্যক্তিগণের নাম উল্লেখ করেন । তারা হলেন, বর্তমান কমিটির যুগ্ম আহবায়ক মনিরুজ্জামান বেল্টু , এমএ হাসান ও আবু সাইদ বিশ্বাস, সদস্য এ্যাডঃ শেখ আঃ রশিদ, কোহিনুর আলম, আঃ সামাদ, হাবিবুর রহমান, সালাউদ্দিন লিটন।

অপরদিকে সাবেক উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ শেখ আঃ রশিদ জানান, ২০২০ সালে ৯ সদস্য বিশিষ্ঠ আহবায়ক কমিটি কাজ করছে এবং সম্প্রতি জেলা থেকে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ঠ আহবায়ক কমিটি করা হয়েছে। কিন্তু এই কমিটিতে দলের দুঃসময়ের পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন না করে সদস্য সচিব নুরুল আমিন বাবুল আওয়ামীলীগের সাথে সম্পৃক্ত এমন কিছু কর্মীদের অর্থের বিনিময়ে নেতা বানিয়েছেন এবং এ ধরনের অভিযোগ বাবুলের বিরুদ্ধে অনেকেই করে আসছেন।

 

বা/খ: জই

নিউজটি শেয়ার করুন

কয়রায় বিএনপির কমিটি বাতিলে দাবি পদ বঞ্চিতদের

আপডেট সময় : ০৪:৪৫:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩

কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি :

কয়রা উপজেলা বিএনপির কমিটি নিয়ে দু’গ্রুপের টানাপোড়ন চলছে দীর্ধদিন, এবার ৮ জনকে পদ পদবী স্থগিত করার দাবি করে জেলা কমিটিতে সুপারিশ করেছেন আহবায়ক কমিটি। এদিকে উপজেলা বিএনপির সাবেক একাধিক সিনিয়র নেতা কর্মী বর্তমান আহবায়ক কমিটিতে মান সম্মত পদ পদবী না পাওয়ায় একাধিক অভিযোগ এনে কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এসব নেতৃবৃন্দ।

তবে অভিযোগকারীদের বিরুদ্ধে বর্তমান আহবায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দ পাল্টা অভিযোগ করে, সাংবাদিকদের জানান, দলে শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে পদ পদবী আছে এমন ৮ জনকে অভিযুক্ত করে সম্প্রতি অভিযোগ করা হয়েছে জেলা কমিটিতে।

অন্যদিকে পদ বঞ্চিতদের অভিযোগ উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব নুরুল আমিন বাবুল পরিক্ষিত এবং দলের দুঃসময়ের নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে অর্থের বিনিময়ে অনেকের নাম কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করেছে।

এ বিষয় দলের সদস্য সচিব বাবুলের সাথে কথা বললে তিনি অর্থের বিনিময়ে সদস্য নিয়োগসহ তাদের সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, উপজেলা আহবায়ক কমিটি দিয়েছেন জেলা কমিটি । অর্থের বিনিময়ে আমি নাম অন্তভূক্ত করেছি সেটা প্রশ্নেও উঠেনা। দলের এই চরম দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের অবস্থান বুঝে জেলা কমিটি যার যেখানে প্রাপ্য তাকে সেখানে বসিয়েছেন। দলীয় আহবায়ক কমিটির পদ পদবী থাকা সত্বেও ৮ জন ২৯ এপ্রিল দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে সংবাদ সম্মেলন করায় তাদের বিরুদ্ধে পদ পদবী স্থগিত করার জন্য জেলাকে সুপারিশ করেছি।

তিনি আরও বলেন, দলের মধ্যে এমন অনেক নেতা এবং কর্মী আছে যারা ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের হয়ে সকল নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করেন।

এসময় তিনি পদ স্থগিত ব্যক্তিগণের নাম উল্লেখ করেন । তারা হলেন, বর্তমান কমিটির যুগ্ম আহবায়ক মনিরুজ্জামান বেল্টু , এমএ হাসান ও আবু সাইদ বিশ্বাস, সদস্য এ্যাডঃ শেখ আঃ রশিদ, কোহিনুর আলম, আঃ সামাদ, হাবিবুর রহমান, সালাউদ্দিন লিটন।

অপরদিকে সাবেক উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ শেখ আঃ রশিদ জানান, ২০২০ সালে ৯ সদস্য বিশিষ্ঠ আহবায়ক কমিটি কাজ করছে এবং সম্প্রতি জেলা থেকে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ঠ আহবায়ক কমিটি করা হয়েছে। কিন্তু এই কমিটিতে দলের দুঃসময়ের পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন না করে সদস্য সচিব নুরুল আমিন বাবুল আওয়ামীলীগের সাথে সম্পৃক্ত এমন কিছু কর্মীদের অর্থের বিনিময়ে নেতা বানিয়েছেন এবং এ ধরনের অভিযোগ বাবুলের বিরুদ্ধে অনেকেই করে আসছেন।

 

বা/খ: জই