ঢাকা ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

কটিয়াদীতে বিদ্যুতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে কৃষকের মৃত্যু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৩৬:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৫৩৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

// এমএ কুদ্দুছ, কটিয়াদী //

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে আসাদ মিয়া (৫৫) নামের এক কৃষক বিদ্যুতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার দুপুরে মারা গেছেন। আসাদ মিয়া জালালপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরপুক্ষিয়া নয়াপাড়া গ্রামের মৃত মুক্তার উদ্দিনের ছেলে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের কর্তব্য কাজে গাফিলতির কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রাসেল মাহবুব জানান, গত ৬ আগষ্ট তারিখে আসাদ মিয়া রাতে গোয়াল ঘরে রাখা গরুর খোঁজ নিতে গিয়ে টিনের বেড়ায় হাত দেয়া মাত্রই তার শরীর বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়ে। তার হাত-পা সহ শরীরের বিভিন্ন জায়গা পুড়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রথমে জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। ৪০ দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় শনিবার দুুপুরের তার মৃত্যু হয়েছে। আসাদ মিয়ার গোয়াল ঘরের উপর দিয়ে ১১ কেভির (১১হাজার ভোল্ট) এইচটি লাইনের একটি তার ছিড়ে গিয়ে ঘরের টিনের চালে লেগে সম্পূর্ণ ঘরটি বিদ্যুতায়িত হয়ে যায়। ফলে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। আসাদ মিয়ার অত্যন্ত গরিব মানুষ । তার স্ত্রী ও ৪ কন্য সন্তান রয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের কর্তব্য কাজে গাফিলতির কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে আমরা মনে করি।

কটিয়াদী পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের এজিএম শাহরিয়ার সৌরভ তন্ময় জানান, দক্ষিণ চরপুক্ষিয়া গ্রামে রাতে ফুটবল খেলার জন্য লোকজন তারে হুক লাগিয়ে চুরিকরে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছিল। এ সময় স্পার্কিং করে তার ছিড়ে থাকতে পারে । এ বিষয়ে আমাদের কাছে কেউ লিখিত কোন অভিযোগ করেনি। বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখব।

নিউজটি শেয়ার করুন

কটিয়াদীতে বিদ্যুতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে কৃষকের মৃত্যু

আপডেট সময় : ১১:৩৬:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

// এমএ কুদ্দুছ, কটিয়াদী //

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে আসাদ মিয়া (৫৫) নামের এক কৃষক বিদ্যুতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার দুপুরে মারা গেছেন। আসাদ মিয়া জালালপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরপুক্ষিয়া নয়াপাড়া গ্রামের মৃত মুক্তার উদ্দিনের ছেলে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের কর্তব্য কাজে গাফিলতির কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রাসেল মাহবুব জানান, গত ৬ আগষ্ট তারিখে আসাদ মিয়া রাতে গোয়াল ঘরে রাখা গরুর খোঁজ নিতে গিয়ে টিনের বেড়ায় হাত দেয়া মাত্রই তার শরীর বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়ে। তার হাত-পা সহ শরীরের বিভিন্ন জায়গা পুড়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রথমে জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। ৪০ দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় শনিবার দুুপুরের তার মৃত্যু হয়েছে। আসাদ মিয়ার গোয়াল ঘরের উপর দিয়ে ১১ কেভির (১১হাজার ভোল্ট) এইচটি লাইনের একটি তার ছিড়ে গিয়ে ঘরের টিনের চালে লেগে সম্পূর্ণ ঘরটি বিদ্যুতায়িত হয়ে যায়। ফলে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। আসাদ মিয়ার অত্যন্ত গরিব মানুষ । তার স্ত্রী ও ৪ কন্য সন্তান রয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের কর্তব্য কাজে গাফিলতির কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে আমরা মনে করি।

কটিয়াদী পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের এজিএম শাহরিয়ার সৌরভ তন্ময় জানান, দক্ষিণ চরপুক্ষিয়া গ্রামে রাতে ফুটবল খেলার জন্য লোকজন তারে হুক লাগিয়ে চুরিকরে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছিল। এ সময় স্পার্কিং করে তার ছিড়ে থাকতে পারে । এ বিষয়ে আমাদের কাছে কেউ লিখিত কোন অভিযোগ করেনি। বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখব।