ঢাকা ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

এমপি বাদশাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র ক্ষোভ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:২৮:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৪১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
রাজশাহী ব্যুরো :
রাবি ক্যাম্পাসে রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও রাকসুর সাবেক ভিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলে হোসেন বাদশাকে অবাঞ্চিত ঘোষণার ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা।
গতকাল শনিবার সকালে ১০১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাক্ষর করা একটি যুক্ত বিবৃতিতে তারা এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতিতে তারা বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনাপ্রবাহ আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তার উস্কানিতে শিক্ষার্থীদের একটি অংশকে বিভ্রান্ত করে এলাকার সম্মানিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলে হোসেন বাদশাকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্চিত ঘোষণার প্রক্রিয়াটি আমরা রাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি। এ ধরনের ঘোষণা এবং রাবি প্রশাসনের নিরব ভূমিকার আমরা তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
এমপি বাদশার বক্তব্য ও অবস্থান দায়িত্বের সাথে অনুধাবন করার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতিতে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, ফজলে হোসেন বাদশা শুধু স্বাধীনতা সংগ্রামের সেনানিই নন, দেশের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক আন্দোলনের একটি উল্লেখযোগ্য নাম। এই ক্যাম্পাসেই তিনি রাকসুর জনপ্রিয় ও কার্যকর ভিপি হিসেবে ছাত্র অধিকার আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন। সেই সাথে বর্তমানে তিনি রাষ্ট্রের একটি সাংবিধানিক দায়িত্বও পালন করছেন। কাজেই তার ব্যাপারে যেকোনে অপপ্রচার চালানোর আগে তার বক্তব্য ও অবস্থান যথাযথ দায়িত্বের সাথে অনুধাবন জরুরি।
বিবৃতিতে ধৃষ্টতাপূর্ণ এমন ঘোষণা অবিলম্বে প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা বলেন, আমরা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করছি, ক্যাম্পাস কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে যে বক্তব্য দিয়েছে, সেখানেও একই দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন ঘটেছে । আমরা এ বিষয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ দায়িত্বশীলদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলতে চাই, এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত বক্তব্য ও আচরণ বন্ধ করুন এবং পূর্বে প্রদত্ত বক্তব্য প্রত্যাহার করুন।
গণমাধ্যমে পাঠানো সেই যুক্ত বিবৃতিতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক ডেপুটি কমান্ডার রবিউল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলতাফ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এহসানুল হক চৌধুরী,বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশীদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুজ্জামান খান বাবুল,বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: আব্দুস সালাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: মজিবুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আব্দুল মোমিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: বজলুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিব আতাউর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রমজান আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: রিয়াজুল ইসলাম,বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ,বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দীন আল আজাদসহ রাজশাহীর ১০১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বাক্ষর করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

এমপি বাদশাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র ক্ষোভ

আপডেট সময় : ০৩:২৮:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২২
রাজশাহী ব্যুরো :
রাবি ক্যাম্পাসে রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও রাকসুর সাবেক ভিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলে হোসেন বাদশাকে অবাঞ্চিত ঘোষণার ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা।
গতকাল শনিবার সকালে ১০১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাক্ষর করা একটি যুক্ত বিবৃতিতে তারা এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতিতে তারা বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনাপ্রবাহ আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তার উস্কানিতে শিক্ষার্থীদের একটি অংশকে বিভ্রান্ত করে এলাকার সম্মানিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলে হোসেন বাদশাকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্চিত ঘোষণার প্রক্রিয়াটি আমরা রাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধারা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি। এ ধরনের ঘোষণা এবং রাবি প্রশাসনের নিরব ভূমিকার আমরা তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
এমপি বাদশার বক্তব্য ও অবস্থান দায়িত্বের সাথে অনুধাবন করার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতিতে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, ফজলে হোসেন বাদশা শুধু স্বাধীনতা সংগ্রামের সেনানিই নন, দেশের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক আন্দোলনের একটি উল্লেখযোগ্য নাম। এই ক্যাম্পাসেই তিনি রাকসুর জনপ্রিয় ও কার্যকর ভিপি হিসেবে ছাত্র অধিকার আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন। সেই সাথে বর্তমানে তিনি রাষ্ট্রের একটি সাংবিধানিক দায়িত্বও পালন করছেন। কাজেই তার ব্যাপারে যেকোনে অপপ্রচার চালানোর আগে তার বক্তব্য ও অবস্থান যথাযথ দায়িত্বের সাথে অনুধাবন জরুরি।
বিবৃতিতে ধৃষ্টতাপূর্ণ এমন ঘোষণা অবিলম্বে প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা বলেন, আমরা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করছি, ক্যাম্পাস কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে যে বক্তব্য দিয়েছে, সেখানেও একই দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন ঘটেছে । আমরা এ বিষয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ দায়িত্বশীলদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলতে চাই, এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত বক্তব্য ও আচরণ বন্ধ করুন এবং পূর্বে প্রদত্ত বক্তব্য প্রত্যাহার করুন।
গণমাধ্যমে পাঠানো সেই যুক্ত বিবৃতিতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক ডেপুটি কমান্ডার রবিউল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলতাফ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এহসানুল হক চৌধুরী,বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশীদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুজ্জামান খান বাবুল,বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: আব্দুস সালাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: মজিবুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আব্দুল মোমিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: বজলুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিব আতাউর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রমজান আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: রিয়াজুল ইসলাম,বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ,বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দীন আল আজাদসহ রাজশাহীর ১০১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বাক্ষর করেছেন।