ঢাকা ০৩:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

একাত্তর টিভিকে আইনি নোটিশ মুশফিকের

স্পোর্টস ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:৩২:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২৩
  • / ৪৬৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

গত দুদিনে বাংলাদেশের ক্রিকেট তোলপাড় করে দেওয়া এক অভিযোগ তুলেছিল বেসরকারি টিভি চ্যানেল ‘একাত্তর।’ মুশফিকুর রহিমের বিরুদ্ধে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ আনা হয়েছে টিভি চ্যানেলটির খেলাধুলাবিষয়ক নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘খেলাযোগ’-এর এক পর্বে। যা ফেসবুক ও ইউটিউবে প্রচার করা হয়। মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়া এ প্রতিবেদন নিয়ে তুমুল সমালোচনার মুখে প্রতিবেদনটি পরে সরিয়েও নেয়া হয়।

সেই প্রতিবেদন নিয়ে এবার একাত্তর টিভিকে আইনজীবীর মাধ্যমে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন মুশফিক। টিভি চ্যানেলটির হেড অব নিউজ, ক্রীড়া সম্পাদক ও সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদককে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আজ মুশফিকের আইনজীবী এক বিবৃতির মাধ্যমে আইনি নোটিশ পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মিরপুর টেস্টের প্রথম দিনে মুশফিকুর রহিম মুহূর্তের অনবধানতায় বল হাত দিয়ে ধরে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হয়েছেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হওয়া প্রথম ব্যাটসম্যান মুশফিক। এ নিয়ে গত ৬ অক্টোবর খেলাযোগের এক পর্বে মুশফিকের এমন আউটের পেছনে স্পট ফিক্সিংয়ের সম্ভাবনার কথা জানিয়ে প্রতিবেদন করা হয়। ফেসবুক-ইউটিউবে প্রচারিত সে প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল -‘মিরপুর টেস্টে স্পট ফিক্সিংয়ের গন্ধ! সন্দেহ সিনিয়র ক্রিকেটারের দিকে!’

এই প্রতিবেদনের প্রতিবাদেই মুশফিক আইনজীবীর মাধ্যমে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। সেখানে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনটি সাংবাদিকতার নীতি-আদর্শ মেনে করা হয়নি। একাত্তর টিভির মতো সুপরিচিত চ্যানেলে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ অপ্রত্যাশিত জানিয়ে দন্ডবিধির ৫০০ ধারায় মানহানির অপরাধ ও সাইবার নিরাপত্তা আইন, ২০২৩ এর ২৫(১) (ক), ২৫ (২) এবং ২৯ ধারায় সাইবার বুলিং-এর অপরাধের প্রতিকার চাওয়া হয়েছে। সেটা না হলে ফৌজদারি ও ক্ষতিপূরণ আদায়ের দেওয়ানী আদালতে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশে বলা হয়েছে, এই প্রতিবেদনের কারণে পারিবারিক, সামাজিক ও ব্যক্তি পর্যায়ে মুশফিকের সুনাম ক্ষুণ্ণ হয়েছে।তিনি এই বিকৃত তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনের কারণে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত সময় পার করেছেন।নির্ভরযোগ্য দলিল, উপযুক্ত তথ্য ছাড়াই ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তুলে খবর প্রকাশ করায় এই আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে।নোটিশে চারটি বিষয়ের নিষ্পত্তি চাওয়া হয়েছে, সে জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে ৪৮ ঘণ্টা।

যে চারটি বিষয়ের নিষ্পত্তি চাওয়া হয়েছে, সেগুলো হলো –
১. অতিসত্ত্বর ইউটিউবসহ অন্যান্য প্লাটফর্ম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদনটি সরিয়ে ফেলতে ও সরিয়ে ফেলার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
২. ভুল ও অসত্য এবং মানহানিকর তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনের জন্য ৭১ টেলিভিশনকে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনাসহ তাদের টিভি চ্যানেলে এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রচার করতে বলা হয়েছে।
৩. ৭১ টেলিভিশনকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে তাদের এই মনগড়া, ভুল প্রতিবেদনের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে।
৪. সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক সাইফুল রূপককে ভবিষ্যতে এমন অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদন না করার বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে মর্মে মুশফিকুর রহিমের নিকট লিখিতভাবে ৭১ টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

একাত্তর টিভিকে আইনি নোটিশ মুশফিকের

আপডেট সময় : ১১:৩২:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২৩

গত দুদিনে বাংলাদেশের ক্রিকেট তোলপাড় করে দেওয়া এক অভিযোগ তুলেছিল বেসরকারি টিভি চ্যানেল ‘একাত্তর।’ মুশফিকুর রহিমের বিরুদ্ধে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ আনা হয়েছে টিভি চ্যানেলটির খেলাধুলাবিষয়ক নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘খেলাযোগ’-এর এক পর্বে। যা ফেসবুক ও ইউটিউবে প্রচার করা হয়। মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়া এ প্রতিবেদন নিয়ে তুমুল সমালোচনার মুখে প্রতিবেদনটি পরে সরিয়েও নেয়া হয়।

সেই প্রতিবেদন নিয়ে এবার একাত্তর টিভিকে আইনজীবীর মাধ্যমে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন মুশফিক। টিভি চ্যানেলটির হেড অব নিউজ, ক্রীড়া সম্পাদক ও সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদককে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আজ মুশফিকের আইনজীবী এক বিবৃতির মাধ্যমে আইনি নোটিশ পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মিরপুর টেস্টের প্রথম দিনে মুশফিকুর রহিম মুহূর্তের অনবধানতায় বল হাত দিয়ে ধরে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হয়েছেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হওয়া প্রথম ব্যাটসম্যান মুশফিক। এ নিয়ে গত ৬ অক্টোবর খেলাযোগের এক পর্বে মুশফিকের এমন আউটের পেছনে স্পট ফিক্সিংয়ের সম্ভাবনার কথা জানিয়ে প্রতিবেদন করা হয়। ফেসবুক-ইউটিউবে প্রচারিত সে প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল -‘মিরপুর টেস্টে স্পট ফিক্সিংয়ের গন্ধ! সন্দেহ সিনিয়র ক্রিকেটারের দিকে!’

এই প্রতিবেদনের প্রতিবাদেই মুশফিক আইনজীবীর মাধ্যমে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। সেখানে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনটি সাংবাদিকতার নীতি-আদর্শ মেনে করা হয়নি। একাত্তর টিভির মতো সুপরিচিত চ্যানেলে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ অপ্রত্যাশিত জানিয়ে দন্ডবিধির ৫০০ ধারায় মানহানির অপরাধ ও সাইবার নিরাপত্তা আইন, ২০২৩ এর ২৫(১) (ক), ২৫ (২) এবং ২৯ ধারায় সাইবার বুলিং-এর অপরাধের প্রতিকার চাওয়া হয়েছে। সেটা না হলে ফৌজদারি ও ক্ষতিপূরণ আদায়ের দেওয়ানী আদালতে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশে বলা হয়েছে, এই প্রতিবেদনের কারণে পারিবারিক, সামাজিক ও ব্যক্তি পর্যায়ে মুশফিকের সুনাম ক্ষুণ্ণ হয়েছে।তিনি এই বিকৃত তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনের কারণে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত সময় পার করেছেন।নির্ভরযোগ্য দলিল, উপযুক্ত তথ্য ছাড়াই ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তুলে খবর প্রকাশ করায় এই আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে।নোটিশে চারটি বিষয়ের নিষ্পত্তি চাওয়া হয়েছে, সে জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে ৪৮ ঘণ্টা।

যে চারটি বিষয়ের নিষ্পত্তি চাওয়া হয়েছে, সেগুলো হলো –
১. অতিসত্ত্বর ইউটিউবসহ অন্যান্য প্লাটফর্ম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদনটি সরিয়ে ফেলতে ও সরিয়ে ফেলার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
২. ভুল ও অসত্য এবং মানহানিকর তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনের জন্য ৭১ টেলিভিশনকে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনাসহ তাদের টিভি চ্যানেলে এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রচার করতে বলা হয়েছে।
৩. ৭১ টেলিভিশনকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে তাদের এই মনগড়া, ভুল প্রতিবেদনের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে।
৪. সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক সাইফুল রূপককে ভবিষ্যতে এমন অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদন না করার বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে মর্মে মুশফিকুর রহিমের নিকট লিখিতভাবে ৭১ টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলা হয়েছে।