ঢাকা ০৯:৫৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

‘উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের নির্দেশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৪:১২:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৪৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে যেসব প্রার্থী বর্তমান কোন সংসদ সদস্য বা মন্ত্রীর নিকটজন, তাদেরকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ ব্রিফিং-এ কথা জানান।

এসময় ওবায়দুল কাদের এখনো প্রার্থী হননি কিন্তু হতে চান – মন্ত্রী-এমপিদের এমন স্বজনদেরকেও নির্বাচনের ভাবনা থেকে সরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন। তিনি জানান, নির্দেশ অমান্য করে কোন কোন এমপি-মন্ত্রীদের স্বজন প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবেন না তাদের তালিকা তৈরি করার কাজও চলছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘নির্দেশনা একটাই সেটা সরে দাড়াতে হবে। নির্দেশনা ভিন্নভাবে ব্যাক্ষা করার কিছুই নেই। আওয়ামী লীগের এই সিদ্ধান্তে তৃনমুলের কর্মী থেকে শুরু করে দেশের ভোটারও খুশি।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের উপজেলা পর্যায়ে নির্বাচন হচ্ছে। সামনে প্রথম পর্যায়ের নির্বাচন হবে। এই নির্বাচন চলাকালে উপজেলা বা জেলা পর্যায়ে কোনো সম্মেলন, মেয়াদোত্তীর্ণ সম্মেলন, কমিটি গঠন এই প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে।

মন্ত্রী-এমপির নিকটাত্মীয়দের উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে করা এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, নিকটজনেরা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে হবে। যারা ভবিষ্যতে করতে চায় তাদেরও নির্বাচনি প্রক্রিয়া থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে। যারা আছে তাদের তালিকা তৈরি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।

নির্দেশনা দেওয়া হলেও অনেকেই এখনো নির্বাচনে আছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রত্যাহারের তারিখ শেষ হউক, তার আগে এ বিষয়ে কীভাবে বলা যাবে।

এ সময় ওবায়দুল কাদের বিএনপির সমালোচনা করে বলেন, বিএনপি রাজনৈতিক পরিচয় হারিয়ে এখন একটা সন্ত্রাসী দলে পরিনত হয়েছে। জনগণের দল হিসেবে বিএনপি তার গ্রহনযোগ্যতা, বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়ে ফেলেছে। তাই বিএনপি এখন জনগণের কাছে না গিয়ে বিদেশীদের কাছে যাচ্ছে ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, সুজিত রায় নন্দী, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্র

নিউজটি শেয়ার করুন

‘উপজেলা নির্বাচনে এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের নির্দেশ’

আপডেট সময় : ০৪:১২:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে যেসব প্রার্থী বর্তমান কোন সংসদ সদস্য বা মন্ত্রীর নিকটজন, তাদেরকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ ব্রিফিং-এ কথা জানান।

এসময় ওবায়দুল কাদের এখনো প্রার্থী হননি কিন্তু হতে চান – মন্ত্রী-এমপিদের এমন স্বজনদেরকেও নির্বাচনের ভাবনা থেকে সরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন। তিনি জানান, নির্দেশ অমান্য করে কোন কোন এমপি-মন্ত্রীদের স্বজন প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবেন না তাদের তালিকা তৈরি করার কাজও চলছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘নির্দেশনা একটাই সেটা সরে দাড়াতে হবে। নির্দেশনা ভিন্নভাবে ব্যাক্ষা করার কিছুই নেই। আওয়ামী লীগের এই সিদ্ধান্তে তৃনমুলের কর্মী থেকে শুরু করে দেশের ভোটারও খুশি।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের উপজেলা পর্যায়ে নির্বাচন হচ্ছে। সামনে প্রথম পর্যায়ের নির্বাচন হবে। এই নির্বাচন চলাকালে উপজেলা বা জেলা পর্যায়ে কোনো সম্মেলন, মেয়াদোত্তীর্ণ সম্মেলন, কমিটি গঠন এই প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে।

মন্ত্রী-এমপির নিকটাত্মীয়দের উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে করা এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, নিকটজনেরা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে হবে। যারা ভবিষ্যতে করতে চায় তাদেরও নির্বাচনি প্রক্রিয়া থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে। যারা আছে তাদের তালিকা তৈরি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।

নির্দেশনা দেওয়া হলেও অনেকেই এখনো নির্বাচনে আছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রত্যাহারের তারিখ শেষ হউক, তার আগে এ বিষয়ে কীভাবে বলা যাবে।

এ সময় ওবায়দুল কাদের বিএনপির সমালোচনা করে বলেন, বিএনপি রাজনৈতিক পরিচয় হারিয়ে এখন একটা সন্ত্রাসী দলে পরিনত হয়েছে। জনগণের দল হিসেবে বিএনপি তার গ্রহনযোগ্যতা, বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়ে ফেলেছে। তাই বিএনপি এখন জনগণের কাছে না গিয়ে বিদেশীদের কাছে যাচ্ছে ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, সুজিত রায় নন্দী, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্র