ঢাকা ০৩:২০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

জনস্বাস্থ্য হুমকিতে : অপচিকিৎসায় বিপন্ন হচ্ছে অনেকেরই জীবন

উত্তরাঞ্চলে এ্যালোপেথিক ওষুধ ফুটপাত ও মুদি দোকানে

শামছুর রহমান শিশির ও রতন শেখ
  • আপডেট সময় : ০১:৩৬:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৫৯৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

// শামছুর রহমান শিশির ও রতন শেখ //

দেশের শষ্যভান্ডারখ্যাত উত্তরাঞ্চলের নগর মহানগর, জেলা উপজেলার প্রাচীর ডিঙ্গিয়ে নিভৃত পল্লী গাঁও গেরামে মানষের জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রি হচ্ছে ফুটপাত ও মুদি দোকানে! বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই দেদারছে ফুটপাতে ও গ্রামাঞ্চলের মুদি দোকানে বিভিন্ন ধরনের জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ঔষধ যেভাবে বিক্রি হচ্ছে তাতে রীতিমতো চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন বিজ্ঞমহল। সংশ্লিষ্টদের নিয়মিত তদারকীর অভাব আর ভুত তাড়ানো তেলের মধ্যে ভুত নামধারী কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে ফুটপাত ও ছোট ছোট মুদি দোকানগুলোতে জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রি অব্যাহত থাকলেও দেখার কেউ নেই।

বিশেষজ্ঞ মহলের মতে,‘উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলার নগর, মহানগর, জেলাসদর, উপজেলা শহর, বিভিন্ন ইউনিয়ন পর্যায়ের হাটবাজারসহ পল্লী গ্রামের ফুটপাত ও মুদি দোকানে যে হারে জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ওষুধ প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে তাতে বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই ভুল ওষুধ খেয়ে বিপন্ন হচ্ছে অনেকেেই জীবন। তাই অবিলম্বে অনুমোদন বিহীন অবৈধ এ ব্যবসা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন অতীব জরুরী হয়ে পড়েছে।’

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, রংপুর, গাইবান্ধা, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, জয়পুরহাট, চাপাইনবাবগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, নাটোর, নওগাঁ, রাজশাহী, দিনাজপুরসহ উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলার পল্লী গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারের ফুটপাতসহ দুর্গম পল্লীর মুদি দোকানগুলোতে অতীতে শুধু ওরস্যালাইন পাওয়া যেতো। কিন্তু কালের বিবর্তনে গ্রামাঞ্চলেও প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের ওষুধের প্রয়োজনীয়তা ও চাহিদাকে কাজে লাগিয়ে ডাক্তার ও ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই মুনাফালোভী কতিপয় মুদি দোকানী ও ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির জ্বর, ঠান্ডা, সর্দি-কাশি, ব্যাথা, গ্যাসের ট্যাবলেট, বমি, মাথাব্যাথা, রক্তচাপ এমনকি এ্যালোপেথিক ঘুমের ওষুধও বিক্রি করছে। দেশে বহুল প্রচারিত গোপাল ভাঁড় ও রাজার একটি ব্যাঙ্গবিদ্রুপ ছোটগল্পের মতোই উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার ফুটপাত ও মুদি দোকানে যে হারে জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের ওষুধ চিকিৎসকের কোনরূপ ব্যবস্থ্যাপত্র ছাড়াই বিক্রি হচ্ছে, তাতে মনে হচ্ছে ওইসব অসাধু মুনাফাখোর ও মানুষের জীবন নিয়ে খেলাকারী অসাধু ব্যবসায়ীরা নিজেরাই নিজেদেরকে ডাক্তার মনে করছেন। উত্তরাঞ্চলে বিরাজিত এ প্রেক্ষাপট গোপাল ভাঁড়ের ওই রম্মরসাত্বক গল্পের মতোই মনে হচ্ছে এ অঞ্চলে রোগীর চাইতে ডাক্তারের সংখ্যাই বেশী বলে পরিলক্ষিত হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মতে,‘সঠিক রোগ নির্ণয় ও সঠিক ওষুধ প্রয়োগের পরিবর্তে ভুল এ্যালোপেথিক ওষুধ খেয়ে উত্তরাঞ্চলের অনেকেরই জীবন বিপন্নগ্রস্থ হয়ে পড়ছে। ফুটপাতে ও মুদি দোকানে জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রিকারী ব্যবসায়ীদের কোন বৈধতা বা ড্রাগ লাইসেন্স না থাকলেও প্রতাপের জোড়ে দীর্ঘদিন ধরে তারা উত্তরাঞ্চলবাসীর জনস্বাস্থ্যকে জিম্মি করে নিজেদের পল্লী চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে উত্তরাঞ্চলের সহজ সরল মানুষের সাথে চরম, নির্মম প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে। অবিলম্বে এ অঞ্চলের ফুটপাত ও মুদি দোকানে যেসব অসাধু ব্যবসায়ীরা জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের ওষুধ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের প্রেসক্রিপশান ছাড়াই বিক্রি করছে, তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ অতীব জরুরী হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যথায় প্রেসক্রিপশান ছাড়াই ক্রয়কৃত এসব এ্যালোপেথিক ওষুধ খেয়ে করে এ অঞ্চলের সহজ সরল মানুষের জীবন বিপন্ন হবার পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য আরও হুমকির মুখে পতিত হবার সম্ভাবনা ও ঝূঁকি ক্রমাগত বাড়তেই থাকবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

জনস্বাস্থ্য হুমকিতে : অপচিকিৎসায় বিপন্ন হচ্ছে অনেকেরই জীবন

উত্তরাঞ্চলে এ্যালোপেথিক ওষুধ ফুটপাত ও মুদি দোকানে

আপডেট সময় : ০১:৩৬:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩

// শামছুর রহমান শিশির ও রতন শেখ //

দেশের শষ্যভান্ডারখ্যাত উত্তরাঞ্চলের নগর মহানগর, জেলা উপজেলার প্রাচীর ডিঙ্গিয়ে নিভৃত পল্লী গাঁও গেরামে মানষের জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রি হচ্ছে ফুটপাত ও মুদি দোকানে! বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই দেদারছে ফুটপাতে ও গ্রামাঞ্চলের মুদি দোকানে বিভিন্ন ধরনের জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ঔষধ যেভাবে বিক্রি হচ্ছে তাতে রীতিমতো চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন বিজ্ঞমহল। সংশ্লিষ্টদের নিয়মিত তদারকীর অভাব আর ভুত তাড়ানো তেলের মধ্যে ভুত নামধারী কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে ফুটপাত ও ছোট ছোট মুদি দোকানগুলোতে জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রি অব্যাহত থাকলেও দেখার কেউ নেই।

বিশেষজ্ঞ মহলের মতে,‘উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলার নগর, মহানগর, জেলাসদর, উপজেলা শহর, বিভিন্ন ইউনিয়ন পর্যায়ের হাটবাজারসহ পল্লী গ্রামের ফুটপাত ও মুদি দোকানে যে হারে জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ওষুধ প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে তাতে বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই ভুল ওষুধ খেয়ে বিপন্ন হচ্ছে অনেকেেই জীবন। তাই অবিলম্বে অনুমোদন বিহীন অবৈধ এ ব্যবসা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন অতীব জরুরী হয়ে পড়েছে।’

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, রংপুর, গাইবান্ধা, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, জয়পুরহাট, চাপাইনবাবগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, নাটোর, নওগাঁ, রাজশাহী, দিনাজপুরসহ উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলার পল্লী গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারের ফুটপাতসহ দুর্গম পল্লীর মুদি দোকানগুলোতে অতীতে শুধু ওরস্যালাইন পাওয়া যেতো। কিন্তু কালের বিবর্তনে গ্রামাঞ্চলেও প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের ওষুধের প্রয়োজনীয়তা ও চাহিদাকে কাজে লাগিয়ে ডাক্তার ও ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই মুনাফালোভী কতিপয় মুদি দোকানী ও ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির জ্বর, ঠান্ডা, সর্দি-কাশি, ব্যাথা, গ্যাসের ট্যাবলেট, বমি, মাথাব্যাথা, রক্তচাপ এমনকি এ্যালোপেথিক ঘুমের ওষুধও বিক্রি করছে। দেশে বহুল প্রচারিত গোপাল ভাঁড় ও রাজার একটি ব্যাঙ্গবিদ্রুপ ছোটগল্পের মতোই উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার ফুটপাত ও মুদি দোকানে যে হারে জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের ওষুধ চিকিৎসকের কোনরূপ ব্যবস্থ্যাপত্র ছাড়াই বিক্রি হচ্ছে, তাতে মনে হচ্ছে ওইসব অসাধু মুনাফাখোর ও মানুষের জীবন নিয়ে খেলাকারী অসাধু ব্যবসায়ীরা নিজেরাই নিজেদেরকে ডাক্তার মনে করছেন। উত্তরাঞ্চলে বিরাজিত এ প্রেক্ষাপট গোপাল ভাঁড়ের ওই রম্মরসাত্বক গল্পের মতোই মনে হচ্ছে এ অঞ্চলে রোগীর চাইতে ডাক্তারের সংখ্যাই বেশী বলে পরিলক্ষিত হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মতে,‘সঠিক রোগ নির্ণয় ও সঠিক ওষুধ প্রয়োগের পরিবর্তে ভুল এ্যালোপেথিক ওষুধ খেয়ে উত্তরাঞ্চলের অনেকেরই জীবন বিপন্নগ্রস্থ হয়ে পড়ছে। ফুটপাতে ও মুদি দোকানে জীবন রক্ষাকারী এ্যালোপেথিক ওষুধ বিক্রিকারী ব্যবসায়ীদের কোন বৈধতা বা ড্রাগ লাইসেন্স না থাকলেও প্রতাপের জোড়ে দীর্ঘদিন ধরে তারা উত্তরাঞ্চলবাসীর জনস্বাস্থ্যকে জিম্মি করে নিজেদের পল্লী চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে উত্তরাঞ্চলের সহজ সরল মানুষের সাথে চরম, নির্মম প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে। অবিলম্বে এ অঞ্চলের ফুটপাত ও মুদি দোকানে যেসব অসাধু ব্যবসায়ীরা জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন ধরনের ওষুধ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের প্রেসক্রিপশান ছাড়াই বিক্রি করছে, তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ অতীব জরুরী হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যথায় প্রেসক্রিপশান ছাড়াই ক্রয়কৃত এসব এ্যালোপেথিক ওষুধ খেয়ে করে এ অঞ্চলের সহজ সরল মানুষের জীবন বিপন্ন হবার পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য আরও হুমকির মুখে পতিত হবার সম্ভাবনা ও ঝূঁকি ক্রমাগত বাড়তেই থাকবে।’