ঢাকা ০৩:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ইরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্র-ইইউ’র নিষেধাজ্ঞার সম্ভাবনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০২:১২:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৩০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ইসরায়েল ও ইরানের মধ্যেকার পাল্টাপাল্টি হামলায় নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সম্ভাবনায়। এদিকে এই কর্মসূচির ওপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ অক্টোবরে শেষ হয়েছে। নিষেধাজ্ঞাগুলো ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সীমিত করার জন্য একটি বিস্তৃত চুক্তির সঙ্গে যুক্ত ছিল।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলেছে- সপ্তাহান্তে ইসরায়েলের ওপর ইরানের হামলার পর তারা এখন ইরানের বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞা আরোপের দিকে নজর দিচ্ছে।

সোমবার ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল হারজি হালেভি বলেছেন, ইরানের হামলার জবাব দেওয়া হবে না।

শনিবার ইসরায়েলে ইরানের প্রথম সরাসরি হামলায় ইরান, ইরাক, সিরিয়া এবং ইয়েমেন থেকে ৩০০টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন নিক্ষেপ করা হয়েছে। তবে এসবের বেশিরভাগই ইসরায়েল এবং তার মিত্ররা ধ্বংস করেছে বলে দাবি করেছে।

তেহরান বলেছে, হামলাটি ১ এপ্রিল সিরিয়াতে তার কনস্যুলেটে ইসরায়েলি বিমান হামলার প্রতিশোধ ছিল, যাতে ১৩ জন নিহত হয়েছিল।

ইসরায়েল এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র কূটনৈতিক জবাব দিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ৩০টিরও বেশি দেশকে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছেন।

ইরানের প্রধান সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক শক্তি ইসলামি বিপ্লবী গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে মনোনীত করার আহ্বানও জানিয়েছেন, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই করেছে কিন্তু যুক্তরাজ্য তা করেনি।

মার্কিন ট্রেজারি সেক্রেটারি ইয়েলেন মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) তার বক্তৃতায় বলেছেন, নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আমি পুরোপুরি আশা করি যে আমরা আগামী দিনে ইরানের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞার ব্যবস্থা নেব। আমরা আমাদের নিষেধাজ্ঞার প্রাক-প্রচার পরীক্ষা দেখি না। তবে আমার আলোচনায় ইরানের সন্ত্রাসী অর্থায়ন ব্যাহত করার সমস্ত বিকল্প টেবিলে রয়েছে।

ইয়েলেন বলেন, ইরানের তেল রফতানি ছিল একটি সম্ভাব্য ক্ষেত্র যা আমরা মোকাবেলা করতে পারি। স্পষ্টতই, ইরান কিছু তেল রফতানি চালিয়ে যাচ্ছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই ইরানকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো ব্যবহার করছে এবং প্রক্সি গোষ্ঠীকে অর্থায়ন করার এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধকে সমর্থন করার ক্ষমতাকে ব্যাহত করছে।

পরে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান পরে বলেন, নতুন নিষেধাজ্ঞাগুলো ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন প্রোগ্রামসহ এর পাশাপাশি বিপ্লবী গার্ড এবং ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কে লক্ষ্যবস্তু করবে। আমরা আশা করি যে আমাদের মিত্র এবং অংশীদাররা শীঘ্রই তাদের নিজস্ব নিষেধাজ্ঞাগুলো অনুসরণ করবে।

ইইউর শীর্ষ কূটনীতিক বোরেল বলেছেন, কিছু সদস্য দেশ ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরো বাড়ানোর জন্য বলেছে। নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় কাজ শুরু করার জন্য ইইউ এর কূটনৈতিক পরিষেবার কাছে একটি অনুরোধ পাঠাবেন তিনি।

ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরায়েল কাটজ এক্স-এ একটি পোস্টে নিষেধাজ্ঞা গ্রহণের দিকে ইতিবাচক প্রবণতাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

সর্বশেষ হামলার পর মধ্যপ্রাচ্যে বড় ধরনের উত্তেজনা এড়াতে বিশ্বনেতারা সংযমের আহ্বান জানিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ইরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্র-ইইউ’র নিষেধাজ্ঞার সম্ভাবনা

আপডেট সময় : ০২:১২:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

ইসরায়েল ও ইরানের মধ্যেকার পাল্টাপাল্টি হামলায় নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সম্ভাবনায়। এদিকে এই কর্মসূচির ওপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ অক্টোবরে শেষ হয়েছে। নিষেধাজ্ঞাগুলো ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সীমিত করার জন্য একটি বিস্তৃত চুক্তির সঙ্গে যুক্ত ছিল।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলেছে- সপ্তাহান্তে ইসরায়েলের ওপর ইরানের হামলার পর তারা এখন ইরানের বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞা আরোপের দিকে নজর দিচ্ছে।

সোমবার ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল হারজি হালেভি বলেছেন, ইরানের হামলার জবাব দেওয়া হবে না।

শনিবার ইসরায়েলে ইরানের প্রথম সরাসরি হামলায় ইরান, ইরাক, সিরিয়া এবং ইয়েমেন থেকে ৩০০টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন নিক্ষেপ করা হয়েছে। তবে এসবের বেশিরভাগই ইসরায়েল এবং তার মিত্ররা ধ্বংস করেছে বলে দাবি করেছে।

তেহরান বলেছে, হামলাটি ১ এপ্রিল সিরিয়াতে তার কনস্যুলেটে ইসরায়েলি বিমান হামলার প্রতিশোধ ছিল, যাতে ১৩ জন নিহত হয়েছিল।

ইসরায়েল এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র কূটনৈতিক জবাব দিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ৩০টিরও বেশি দেশকে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছেন।

ইরানের প্রধান সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক শক্তি ইসলামি বিপ্লবী গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে মনোনীত করার আহ্বানও জানিয়েছেন, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই করেছে কিন্তু যুক্তরাজ্য তা করেনি।

মার্কিন ট্রেজারি সেক্রেটারি ইয়েলেন মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) তার বক্তৃতায় বলেছেন, নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আমি পুরোপুরি আশা করি যে আমরা আগামী দিনে ইরানের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞার ব্যবস্থা নেব। আমরা আমাদের নিষেধাজ্ঞার প্রাক-প্রচার পরীক্ষা দেখি না। তবে আমার আলোচনায় ইরানের সন্ত্রাসী অর্থায়ন ব্যাহত করার সমস্ত বিকল্প টেবিলে রয়েছে।

ইয়েলেন বলেন, ইরানের তেল রফতানি ছিল একটি সম্ভাব্য ক্ষেত্র যা আমরা মোকাবেলা করতে পারি। স্পষ্টতই, ইরান কিছু তেল রফতানি চালিয়ে যাচ্ছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই ইরানকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো ব্যবহার করছে এবং প্রক্সি গোষ্ঠীকে অর্থায়ন করার এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধকে সমর্থন করার ক্ষমতাকে ব্যাহত করছে।

পরে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান পরে বলেন, নতুন নিষেধাজ্ঞাগুলো ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন প্রোগ্রামসহ এর পাশাপাশি বিপ্লবী গার্ড এবং ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কে লক্ষ্যবস্তু করবে। আমরা আশা করি যে আমাদের মিত্র এবং অংশীদাররা শীঘ্রই তাদের নিজস্ব নিষেধাজ্ঞাগুলো অনুসরণ করবে।

ইইউর শীর্ষ কূটনীতিক বোরেল বলেছেন, কিছু সদস্য দেশ ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরো বাড়ানোর জন্য বলেছে। নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় কাজ শুরু করার জন্য ইইউ এর কূটনৈতিক পরিষেবার কাছে একটি অনুরোধ পাঠাবেন তিনি।

ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরায়েল কাটজ এক্স-এ একটি পোস্টে নিষেধাজ্ঞা গ্রহণের দিকে ইতিবাচক প্রবণতাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

সর্বশেষ হামলার পর মধ্যপ্রাচ্যে বড় ধরনের উত্তেজনা এড়াতে বিশ্বনেতারা সংযমের আহ্বান জানিয়েছেন।