বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
৬ দিনে ৭৪৫ কোটি ছাড়িয়েছে ‘পাঠান’ পুলের ধারে বসে চুরুট ধরালেন সুস্মিতা দেশে চার হাজার ৬৩৩টি ইটভাটা অবৈধ: সংসদে পরিবেশমন্ত্রী নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা রোধে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে : মহিলাবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী চার্লসের সেঞ্চুরিতে রেকর্ড গড়ে কুমিল্লার জয় মুক্তিযোদ্ধাদের ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি : মেয়র আতিক দেশে উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে : রাষ্ট্রপতি আকাশে কেবিন ক্রুকে নারী যাত্রীর থাপ্পড় সাহস থাকলে দেশে আসুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পকেটে আহলে হাদিসের দুই কোটি ভোট : সংসদে এমপি রহমতুল্লাহ প্ররোচনায় পড়ে র‌্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা : সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কারামুক্ত যুবদল নেতা নয়ন ‘ভারতীয় ছবি রিলিজের পক্ষে সবাই থাকলেও আমি নেই’-রাউজানে অভিনেতা রুবেল ইসলামপুরে দৈনিক গণমুক্তি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত অবসরে গেলেন সকলের প্রিয় ফজলু স্যার

ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল ১৯ অক্টোবর এ আদেশ দিলেও বিষয়টি বুধবার (২৬ অক্টোবর) নিশ্চিত করেন ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী শামীম আল মামুন।

তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পুলিশের দেয়া অভিযোগপত্র আমলে নেয়ার বিষয় শুনানির দিন ধার্য ছিল ১৯ অক্টোবর। সেদিন কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয় রাসেলকে। তবে জামিনে থাকা শামীমা আদালতে হাজির হননি। তার পক্ষে সময় আবেদন করা হয়। আদালত আবেদন নাকচ করে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

জানা যায়, ডিজিটাল মাধ্যমে প্রতারণা করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ২০২১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর আলমগীর হোসেন নামে এক গ্রাহক ইভ্যালির রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বাড্ডা থানায় মামলাটি করেন।

ডিজিটাল প্রতারণার অভিযোগে গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বাড্ডা থানায় ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেল ও চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনকে আসামি করে মামলা করেন মুহাম্মদ আলমগীর হোছাইন নামের প্রতিষ্ঠানটির এক গ্রাহক। মামলা তদন্ত করে গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

এদিকে মামলায় গ্রাহক মুহম্মদ আলমগীর অভিযোগ করেন, ইভ্যালিতে ২৮ লাখ টাকা পণ্য ক্রয়ের ক্রয়াদেশ দিয়েছিলেন তিনি। তবে পণ্য না দিয়ে রাসেল ও শামীমা তাকে ঘোরাতে থাকেন।

রাসেল গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর থেকে কারাগারে। শামীমাও কারাগারে ছিলেন। তবে গত ৬ এপ্রিল জামিনে বের হন তিনি।

আগামী ২২ জানুয়ারি মামলাটি চার্জশুনানির জন্য ধার্য রয়েছে বলেও জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *