ঢাকা ০৫:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী

মোঃ খাদেমুল ইসলাম, দিনাজপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৬:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪৮৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

“তোমরা নীতিতে কঠোর হও আচরনে নয়-আশা’র প্রয়াত প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী’র এমন বেদ বাক্যে স্মরণে নিয়ে আজ ১২ ফেব্রুয়ারী সোমবার বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জেলার বিরল উপজেলার ৩নং ধামইর ইউনিয়নের আশা ধুকুরঝাড়ী সমন্বিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র, দিনাজপুরের আয়োজনে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ক্যাম্পের উদ্বোধন করতে গিয়ে সম্মানীত অতিথি আশা দিনাজপুর সদর জেলা’র সিনিয়র ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার মোঃ রুহুল সারোয়ার খান (জুয়েল) বলেন, তিনি ছিলেন একজন কিংবদন্তী।হ্নদয়ে প্রান্তিক মানুষের আহাজারিতে যে মানুষটির ঘুম ভাঙ্গতো তিনি হলেন আশা’র দার্শনিত পথপ্রদর্শক মরহুম মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী।শুধু দেশে নয় এশিয়া থেকে শুরু করে সূদুর আফ্রিকায় চলে তার দর্শনের দিক দর্শন। দারিদ্রতা নিরসন ও দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মরহুম মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী অসামান্য অবদান চির অম্লান হয়ে থাকবে। তিনি পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে এবং মানবতার কল্যাণে নিজের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন।শুধু দেশে নয় পৃথিবীর অন্তত ১৫ থেকে ২০ টি দেশে বর্তমানে চলমান রয়েছে আশা বেসরকারি সংস্থার কর্মসূচি।

আমরা তার এই তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করছি। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আশা বিলর অঞ্চলের আরএম গোলাম রব্বানী ও ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (ধুকুরঝাড়ী ব্রাঞ্চ) মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ধুকুরঝাড়ী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ তোজাম্মেল হক, চিকিৎসব মেডিকেল অফিসার তোরশা নোশিন, ফিজিওথেরাপিস্ট আশরাফুন নাহারসহ সহযোগী প্যারামেডিক মিনারুল ইসলাম, উর্মি খাতুন, রিসিপশনিস্ট এন্ড কমিউনিটি অপারেটর রায়হান ইসলামসহ ১৫ জন স্বাস্থ্য কর্মী এবং বিভিন্ন এলাকা হতে প্রায় ৩শত রোগী ও রোগীর লোকজন। উল্লেখ্য উক্ত দিনব্যাপী ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে বিনামূল্যে রোগীদের রোগ নির্ণয় ও প্রেসক্রিপশন প্রকান, ফিজিও থেরাপি, ব্লাড সুগার পরীক্ষা ও ফ্রি ঔষধ বিতরণ করা হয়।

উল্লেখ্য যে, আশা’র প্রয়াত প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট সফিকুল চৌধুরী ১৯৪৯ সালে হবিগঞ্জের চুনার ঘাটে নরপতি গ্রামে এক বুনিয়াদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৮ সালের সমাজবিজ্ঞানে বিএ ও ১৯৬৯ সালের সমাজবিজ্ঞানে এমএ ডিগ্রী অর্জন করে বিসিএস ১৯৭৩ ব্যাচের প্রফেশনারি কর্মকর্তা হিসেবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়েও পরবর্তীতে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেননি। ১৯৭৮ সাল থেকে আশা প্রতিষ্ঠার পর তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

মহাজাগতিক সফর শেষে বেসরকারি সংস্থা আশা’র প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের (২০০৬-০৭) কৃষি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা এবং কোয়ান্টাম পরিবারের সদস্য সফিকুল হক চৌধুরী। গেল ২০২১ সালের ১২ ই ফেব্রুয়ারি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আনুমানিক ১ টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।মূত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী

আপডেট সময় : ০৬:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

“তোমরা নীতিতে কঠোর হও আচরনে নয়-আশা’র প্রয়াত প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী’র এমন বেদ বাক্যে স্মরণে নিয়ে আজ ১২ ফেব্রুয়ারী সোমবার বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সফিকুল হক চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জেলার বিরল উপজেলার ৩নং ধামইর ইউনিয়নের আশা ধুকুরঝাড়ী সমন্বিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র, দিনাজপুরের আয়োজনে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ক্যাম্পের উদ্বোধন করতে গিয়ে সম্মানীত অতিথি আশা দিনাজপুর সদর জেলা’র সিনিয়র ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার মোঃ রুহুল সারোয়ার খান (জুয়েল) বলেন, তিনি ছিলেন একজন কিংবদন্তী।হ্নদয়ে প্রান্তিক মানুষের আহাজারিতে যে মানুষটির ঘুম ভাঙ্গতো তিনি হলেন আশা’র দার্শনিত পথপ্রদর্শক মরহুম মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী।শুধু দেশে নয় এশিয়া থেকে শুরু করে সূদুর আফ্রিকায় চলে তার দর্শনের দিক দর্শন। দারিদ্রতা নিরসন ও দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আশা’র প্রতিষ্ঠাতা মরহুম মোঃ সফিকুল হক চৌধুরী অসামান্য অবদান চির অম্লান হয়ে থাকবে। তিনি পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে এবং মানবতার কল্যাণে নিজের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন।শুধু দেশে নয় পৃথিবীর অন্তত ১৫ থেকে ২০ টি দেশে বর্তমানে চলমান রয়েছে আশা বেসরকারি সংস্থার কর্মসূচি।

আমরা তার এই তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করছি। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আশা বিলর অঞ্চলের আরএম গোলাম রব্বানী ও ব্রাঞ্চ ম্যানেজার (ধুকুরঝাড়ী ব্রাঞ্চ) মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ধুকুরঝাড়ী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ তোজাম্মেল হক, চিকিৎসব মেডিকেল অফিসার তোরশা নোশিন, ফিজিওথেরাপিস্ট আশরাফুন নাহারসহ সহযোগী প্যারামেডিক মিনারুল ইসলাম, উর্মি খাতুন, রিসিপশনিস্ট এন্ড কমিউনিটি অপারেটর রায়হান ইসলামসহ ১৫ জন স্বাস্থ্য কর্মী এবং বিভিন্ন এলাকা হতে প্রায় ৩শত রোগী ও রোগীর লোকজন। উল্লেখ্য উক্ত দিনব্যাপী ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে বিনামূল্যে রোগীদের রোগ নির্ণয় ও প্রেসক্রিপশন প্রকান, ফিজিও থেরাপি, ব্লাড সুগার পরীক্ষা ও ফ্রি ঔষধ বিতরণ করা হয়।

উল্লেখ্য যে, আশা’র প্রয়াত প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট সফিকুল চৌধুরী ১৯৪৯ সালে হবিগঞ্জের চুনার ঘাটে নরপতি গ্রামে এক বুনিয়াদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৮ সালের সমাজবিজ্ঞানে বিএ ও ১৯৬৯ সালের সমাজবিজ্ঞানে এমএ ডিগ্রী অর্জন করে বিসিএস ১৯৭৩ ব্যাচের প্রফেশনারি কর্মকর্তা হিসেবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়েও পরবর্তীতে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেননি। ১৯৭৮ সাল থেকে আশা প্রতিষ্ঠার পর তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

মহাজাগতিক সফর শেষে বেসরকারি সংস্থা আশা’র প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের (২০০৬-০৭) কৃষি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা এবং কোয়ান্টাম পরিবারের সদস্য সফিকুল হক চৌধুরী। গেল ২০২১ সালের ১২ ই ফেব্রুয়ারি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আনুমানিক ১ টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।মূত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

 

বাখ//আর