ঢাকা ০৭:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

আমি নার্ভাসের চেয়ে বেশি উচ্ছ্বসিত : বাবর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৩২:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২
  • / ৪৫৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্পোর্টস ডেস্ক : 

সরফরাজ আহমেদকে সরিয়ে ২০১৯ সালে অধিনায়ক করা হয় বাবর আজমকে। তার নেতৃত্বে এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেছে পাকিস্তান। স্বপ্ন দেখছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ট্রফি জয়ের। বাবরের প্রথম বিশ্বকাপ হওয়ায় তিনি নার্ভাস হতে পারেন। কিন্তু বাবর জানিয়েছেন, নার্ভাসের চেয়ে তিনি বেশি উচ্ছ্বসিত ফাইনাল নিয়ে।

আমি নার্ভাসের চেয়ে বেশি উচ্ছ্বসিত। অবশ্যই চাপ আছে। এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই। তবে আত্মবিশ্বাস ও বিশ্বাসের মাধ্যমে এই চাপকে অতিক্রম করা সম্ভব। আর ভালো ফল পেতে হলে আপনাকে এটা করতেই হবে। ইংল্যান্ড খুবই প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ দল। ভারতকে ১০ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে আসাটা সেটারই প্রমাণ দেয়। আমরা বিশ্বকাপের প্রথম দুই ম্যাচ হেরেছিলাম। সেখান থেকে আমরা ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ চার ম্যাচ জিতে ফাইনালে এসেছি। আমরাও কিন্তু ভালো পারফরম্যান্স করেছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের স্ট্রাটেজি হলো পরিকল্পনায় অনড় থাকা এবং আমাদের শক্তিমত্তার দিক পেস বোলিং ব্যবহার করে ফাইনাল জেতা। ফাইনাল জিততে পেস বোলিং ব্যবহার করে পাওয়ার প্লে-তে যত বেশি সম্ভব উইকেট তুলে নেওয়াটা হবে জরুরি।

অবশ্য বিশ্বকাপে পাকিস্তানের শুরুটা হয়েছিল একেবারে যাচ্ছে-তাই। প্রথম ম্যাচে শেষ বলে তারা ভারতের কাছে হেরে যায়। পরের ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও শেষ বলে হেরে যায় তারা। তখন অনেকেই বিশ্বকাপে পাকিস্তানের শেষ দেখে ফেলেছিল। অনেক ক্রিকেটবোদ্ধারা বলেই দিয়েছিলেন সুপার টুয়েলভ থেকেই পাকিস্তানের বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে।

কিন্তু সেই জায়গা থেকে তারা ঘুরে দাঁড়ায়। বাতিলের খাতা থেকে নাম লেখায় সেমিফাইনালে। এরপর ফাইনালে। এবার শিরোপা জয়ের অপেক্ষায় তারা। শক্তিশালী ইংল্যান্ডকে হারিয়ে যদি তারা সেটা করতে পারে তাহলে ‘বাতিলের খাতা থেকে চ্যাম্পিয়ন’ হওয়ার গৌরব অর্জন করবে বাবর-রিজওয়ানরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আমি নার্ভাসের চেয়ে বেশি উচ্ছ্বসিত : বাবর

আপডেট সময় : ০৭:৩২:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২

স্পোর্টস ডেস্ক : 

সরফরাজ আহমেদকে সরিয়ে ২০১৯ সালে অধিনায়ক করা হয় বাবর আজমকে। তার নেতৃত্বে এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেছে পাকিস্তান। স্বপ্ন দেখছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ট্রফি জয়ের। বাবরের প্রথম বিশ্বকাপ হওয়ায় তিনি নার্ভাস হতে পারেন। কিন্তু বাবর জানিয়েছেন, নার্ভাসের চেয়ে তিনি বেশি উচ্ছ্বসিত ফাইনাল নিয়ে।

আমি নার্ভাসের চেয়ে বেশি উচ্ছ্বসিত। অবশ্যই চাপ আছে। এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই। তবে আত্মবিশ্বাস ও বিশ্বাসের মাধ্যমে এই চাপকে অতিক্রম করা সম্ভব। আর ভালো ফল পেতে হলে আপনাকে এটা করতেই হবে। ইংল্যান্ড খুবই প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ দল। ভারতকে ১০ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে আসাটা সেটারই প্রমাণ দেয়। আমরা বিশ্বকাপের প্রথম দুই ম্যাচ হেরেছিলাম। সেখান থেকে আমরা ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ চার ম্যাচ জিতে ফাইনালে এসেছি। আমরাও কিন্তু ভালো পারফরম্যান্স করেছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের স্ট্রাটেজি হলো পরিকল্পনায় অনড় থাকা এবং আমাদের শক্তিমত্তার দিক পেস বোলিং ব্যবহার করে ফাইনাল জেতা। ফাইনাল জিততে পেস বোলিং ব্যবহার করে পাওয়ার প্লে-তে যত বেশি সম্ভব উইকেট তুলে নেওয়াটা হবে জরুরি।

অবশ্য বিশ্বকাপে পাকিস্তানের শুরুটা হয়েছিল একেবারে যাচ্ছে-তাই। প্রথম ম্যাচে শেষ বলে তারা ভারতের কাছে হেরে যায়। পরের ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও শেষ বলে হেরে যায় তারা। তখন অনেকেই বিশ্বকাপে পাকিস্তানের শেষ দেখে ফেলেছিল। অনেক ক্রিকেটবোদ্ধারা বলেই দিয়েছিলেন সুপার টুয়েলভ থেকেই পাকিস্তানের বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে।

কিন্তু সেই জায়গা থেকে তারা ঘুরে দাঁড়ায়। বাতিলের খাতা থেকে নাম লেখায় সেমিফাইনালে। এরপর ফাইনালে। এবার শিরোপা জয়ের অপেক্ষায় তারা। শক্তিশালী ইংল্যান্ডকে হারিয়ে যদি তারা সেটা করতে পারে তাহলে ‘বাতিলের খাতা থেকে চ্যাম্পিয়ন’ হওয়ার গৌরব অর্জন করবে বাবর-রিজওয়ানরা।