মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
তিন বারের ইউপি সদস্য পেলেন এসএসসিতে জিপিএ- ৫, নারী সদস্য পেলেন ৪.৯৬ সেনবাগে এক বিদ্যালয়ের ৪৩ এসএসসি ভোকেশনাল শিক্ষার্থীর সকলেই ফেল! ১০ শিক্ষক অবরুদ্ধ সুইস বাধা ডিঙিয়ে শেষ ষোলোয় ব্রাজিল রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি পরিবারের মাঝে ৮ শ’ ভেড়া বিতরণ শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে রোমাঞ্চকর জয় ঘানার গুলিস্তানে রেডজোনে দোকান বসানোয় পাঁচজনের জেল জামানত নয়, কৃষিঋণে কৃষকের এনআইডি যথেষ্ট: কৃষিসচিব সমকাল সাংবাদিক শিমুলের ছেলে সাদিক ভবিষ্যতে প্রকৌশলী হতে চায় কৃষকের কোমরে দড়ি, যাদের কাছে হাজার কোটি টাকা তাদের কিছু হয় না : আপিল বিভাগ ‘লগে আছি ডটকম’-এর এমডি গ্রেফতার! ৩২ বছর আগের নায়িকাকে নিয়ে সালমান ফিরছেন রিমেক নিয়ে আমার আপত্তি নেই : ইয়োহানি জার্সিতে পা লাগায় মেসিকে মেক্সিকান বক্সারের হুমকি! একসঙ্গে জিপিএ-৫ পেলেন বাবা-ছেলে! কোটি কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে, আমরা কি চেয়ে চেয়ে দেখব : হাইকোর্ট

আমাদের তরুণ সমাজ হবে সত্যসন্ধানী ও সত্যপূজারী- রবি ভিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

২৫ অক্টোবর বিকেল সাড়ে তিনটায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের আয়োজনে একাডেমিক ভবন ১-এর লেকচার থিয়েটারে “সত্যাসত্যের সন্ধান: ইতিহাস-ফিকশন-রূপকথা” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ শাহ্ আজম-এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় মূল আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সফিকুন্নবী সামাদী এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মোঃ ফখরুল ইসলাম।

অধ্যাপক সফিকুন্নবী সামাদী বলেন, আমরা পাশ্চাত্যের কোনো একটা রীতি পেলেই, তা নিয়ে উচ্ছ্বাস করি, কিন্তু একটু গভীরে গিয়ে সন্ধান করলে দেখা যাবে সে রীতি প্রাচ্যদেশীয় ঐতিহ্যে আগে থেকেই বিদ্যমান।

‘ইতিহাস-ফিকশন-রূপকথা’ প্রসঙ্গে উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ শাহ্ আজম তাঁর বক্তব্যে বলেন, ইতিহাস সকল সময় নির্জলা সত্য বলে প্রতিভাত হয়নি। ১৯৭৫ পরবর্তীকালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিকৃত ও অসত্য ইতিহাস রচিত, পঠিত ও চর্চিত হয়েছে। এ সমাজ মিথ্যায় ভরে গেছে। এই সমাজকে আমাদেরই রক্ষা করতে হবে। এ জন্য আমাদের সত্যের অনুসন্ধান করতে হবে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাণী উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, “সত্য যে কঠিন, কঠিনেরে ভালোবাসিলাম, সে কখনো করে না বঞ্চনা।”

উপাচার্য আরও বলেন, সত্য অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে গল্প-কবিতা-উপন্যাসের ভূমিকা তাৎপর্যপূর্ণ। সমাজে সত্যকে নির্ভয়ে প্রতিষ্ঠা দেওয়ার ক্ষেত্রে কবি-সাহিত্যিকদের অবদান অসামান্য। তবে সুন্দর সমাজ বিনির্মাণে তরুণদেরকেই সর্বাগ্রে এগিয়ে আসতে হবে। থিওরি অব পসিবিলিটি এবং থিওরি অব ক্রেডিবিলিটি আমাদের দুই কাঁধে রাখতে হবে, যাতে সেটি আমাদের সব সময় স্মরণ করিয়ে দেয় সত্য নিয়ে কথা বলতে এবং সেটি যেন সমাজের জন্য মঙ্গলজনক হয়।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের চেয়ারম্যান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *