শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৩৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কলাপাড়ায় নারী কৃষকদের মানববন্ধন, সংবাদ সম্মেলন আজ না হয় কাল, খবরটা জানাজানি হবেই : সিদ্ধার্থ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের ঝগড়ায় সংঘর্ষে নিহত ১ চরাঞ্চলে ভূট্টা চাষে কৃষকের আগ্রহ বেড়েছে  আমাদের হৃদয় আছে বলেই আমরা সেমিফাইনালে : মার্তিনেস নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলে ইরান পরমাণু চুক্তি মেনে চলবে : তেহরান কটিয়াদীতে মুরগির বিষ্ঠা দিয়ে মাছ চাষ স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে দুপুরের পর জেলেরা গভীর সাগরে যেতে পারবে ইনজেকশন দিয়ে স্বাবলম্বী দেড় শতাধিক নারী বঙ্গবন্ধু তরুণ লেখক পরিষদের সম্মেলন ও গুণীজন সম্মাননা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন গোলাপবাগে ইন্টারনেট নেই, মোবাইলে কলড্রপ খালেদা জিয়ার হাত কালো নয়, সাদা: আফরোজা আব্বাস পটুয়াখালীর “শ্রেষ্ঠ জয়িতা” কলাপাড়ার মিলি রাস্তা বন্ধ করে সভা-সমাবেশ মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল: আইনমন্ত্রী

আবারো বাড়ল আটার দাম

আবারো বাড়ল আটার দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক : 
বাজারে আটার দাম আগে থেকেই বাড়তি। ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’র মতো আবারও বাড়ল নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যটির দাম। গত অক্টোবর থেকে কেজিপ্রতি আটা বিক্রি হচ্ছিল ৬০ থেকে ৬৫ টাকা দরে। দ্রব্যটি সরবরাহকারী কয়েকটি কোম্পানি এবার দুই কেজির প্যাকেটের মূল্য নির্ধারণ করেছে ১৪৪ টাকা। অর্থাৎ, কেজিপ্রতি দাম বেড়েছে ৬ টাকা।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ও প্রতি কেজি আটার দাম ছিল ৩০ থেকে ৩৫ টাকার মধ্যে। এক বছরের ব্যবধানে সেটা শুধু দ্বিগুণ হয়েই থেমে থাকেনি; এবার ৬ টাকা বেড়ে কেজিপ্রতি দাম ৭০ টাকা ছাড়িয়ে গেল। সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) জানায়, এক বছরে প্যাকেটজাত আটার দাম ৬৩ ও খোলা আটার দাম ৮১ শতাংশ বেড়েছে।

বাজারে সব নিত্যপণ্যেরই দাম আকাশছোঁয়া। বিশেষ করে অতি জরুরি দুই পণ্য চাল ও আটার দাম যেন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। ৬০ টাকার নিচে তেমন কোনো চাল নেই বললেই চলে। দাম বাড়ার এই প্রতিযোগিতায় এবার চালকে ছাড়িয়ে গেল আটা।

বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি গম আমদানি করে রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে। এই দুটি দেশই যুদ্ধে জড়িয়ে আছে। স্বাভাবিকভাবেই তার মারাত্মক প্রভাব পড়েছে গম সরবরাহে। তার ওপর ভারতও গম রফতানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করে। যার কারণে সার্বিকভাবে গম নিয়ে বিশ্ববাজারে একটা অস্থিরতা তৈরি হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *