ঢাকা ০২:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিনের দাম নিম্নমুখী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৮:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪৫৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিনের দাম নিম্নমুখী রয়েছে। চলতি সপ্তাহে শিকাগো বোর্ড অব ট্রেডে (সিবিওটি) তেলবীজটির দর গত ৩ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন স্তরে নেমে গেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে বিজনেস রেকর্ডারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়, বিশ্বের শীর্ষ সয়াবিন আমদানিকারক চীন। দেশটিতে নতুন চন্দ্রবর্ষ উপলক্ষে পণ্যটির চাহিদা কমেছে। স্বাভাবিকভাবেই আমদানি নিম্নগামী হয়েছে। ফলে তেলবীজটির মূল্য হ্রাস পেয়েছে।

আলোচ্য সপ্তাহে সিবিওটিতে সয়াবিনের ব্যাপক দরপতন ঘটেছে। প্রতি বুশেলের মূল্য ১১ ডলার ৭৯ সেন্টে নেমেছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরের পর যা সবচেয়ে কম।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক রাবোব্যাংকের বিশ্লেষক ভিতোর পিসতোইয়া বলেন,বিশ্বের প্রধান প্রধান সয়াবিন উৎপাদনকারী দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলো থেকে বিশ্ববাজারে ব্যাপক সরবরাহ বেড়েছে। তবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভোক্তা চীনে চাহিদা দুর্বল হয়েছে। ফলে ভোজ্যতেল তৈরির মূল উপকরণটির বড় দরপতন ঘটেছে।

সরকারি ছুটি উপলক্ষে হংকং, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, ভিয়েতনাম ও মালয়েশিয়ার বাজারও বন্ধ রয়েছে। তাতে ব্যাপক চাপে পড়েছে সয়াবিনের বাজার। ফলে পণ্য বৈশ্বিক মূল্যে নিম্নমুখিতা তৈরি হয়েছে।

বিশ্বের বৃহৎ সয়াবিন উৎপাদনকারী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনায় বাম্পার ফলন হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়েতেও ভালো উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাতে বিশ্ববাজারে ইতোমধ্যে সরবরাহ নিয়ে সৃষ্ট উদ্বেগ প্রশমিত হয়েছে। সবমিলিয়ে সাবান, শ্যাম্পু তৈরির প্রধান উপকরণের দাম কমেছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগামী দিনে সয়াবিন আরও দর হারাতে পারে। এমনকি তা সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে যেতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিনের দাম নিম্নমুখী

আপডেট সময় : ০৪:৫৮:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিনের দাম নিম্নমুখী রয়েছে। চলতি সপ্তাহে শিকাগো বোর্ড অব ট্রেডে (সিবিওটি) তেলবীজটির দর গত ৩ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন স্তরে নেমে গেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে বিজনেস রেকর্ডারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়, বিশ্বের শীর্ষ সয়াবিন আমদানিকারক চীন। দেশটিতে নতুন চন্দ্রবর্ষ উপলক্ষে পণ্যটির চাহিদা কমেছে। স্বাভাবিকভাবেই আমদানি নিম্নগামী হয়েছে। ফলে তেলবীজটির মূল্য হ্রাস পেয়েছে।

আলোচ্য সপ্তাহে সিবিওটিতে সয়াবিনের ব্যাপক দরপতন ঘটেছে। প্রতি বুশেলের মূল্য ১১ ডলার ৭৯ সেন্টে নেমেছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরের পর যা সবচেয়ে কম।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক রাবোব্যাংকের বিশ্লেষক ভিতোর পিসতোইয়া বলেন,বিশ্বের প্রধান প্রধান সয়াবিন উৎপাদনকারী দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলো থেকে বিশ্ববাজারে ব্যাপক সরবরাহ বেড়েছে। তবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভোক্তা চীনে চাহিদা দুর্বল হয়েছে। ফলে ভোজ্যতেল তৈরির মূল উপকরণটির বড় দরপতন ঘটেছে।

সরকারি ছুটি উপলক্ষে হংকং, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, ভিয়েতনাম ও মালয়েশিয়ার বাজারও বন্ধ রয়েছে। তাতে ব্যাপক চাপে পড়েছে সয়াবিনের বাজার। ফলে পণ্য বৈশ্বিক মূল্যে নিম্নমুখিতা তৈরি হয়েছে।

বিশ্বের বৃহৎ সয়াবিন উৎপাদনকারী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনায় বাম্পার ফলন হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়েতেও ভালো উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাতে বিশ্ববাজারে ইতোমধ্যে সরবরাহ নিয়ে সৃষ্ট উদ্বেগ প্রশমিত হয়েছে। সবমিলিয়ে সাবান, শ্যাম্পু তৈরির প্রধান উপকরণের দাম কমেছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগামী দিনে সয়াবিন আরও দর হারাতে পারে। এমনকি তা সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে যেতে পারে।