ঢাকা ১০:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

অবসরের পরই সরকারি কর্মকর্তাদের সংসদ নির্বাচনের সুযোগ কেন নয়: হাইকোর্ট

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:০৯:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩
  • / ৪২৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর পার না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে না পারার প্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) বিধান কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক, অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসককে রুলের জবাব দিতে বল হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল এম এম জি গোলাম সারোয়ার পায়েল।

পরে রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম গণমাধ্যমকে বলেন, নির্বাচনে অযোগ্যতা নিয়ে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) (চ) চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এ রুল জারি করেছেন। রুলে সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর আগে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) এমন বিধান কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও বেআইনি হবে না তা জানতে চেয়ে চার সপ্তাহের রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

নির্বাচনে সরকারি চাকরিজীবীদের অযোগ্যতার বিষয়ে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও)-১৯৭২ এর ১২ (১) (চ) ধারায় বলা হয়, প্রজাতন্ত্রের বা সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের বা প্রতিরক্ষা কর্ম বিভাগের কোনো চাকরি থেকে পদত্যাগ করেছেন বা অবসরে গেছেন এবং ওই পদত্যাগ বা অবসর যাওয়ার পর তিন বছর অতিবাহিত না হয়ে থাকে। এ বিধান চ্যালেঞ্জ করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. শামীম কামাল হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। তিনি লালমনিরহটের আদিতমারীর বাসিন্দা। গত বছরের ২৫ অক্টোবর চাকরি থেকে অবসরে গেছেন তিনি।

গত বছরের গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুসায়ী, সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর অতিবাহিত না হলে কোনো সরকারি চাকরিজীবী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না। আইনের এ বিধান চ্যালেঞ্জ করে গত বছরের ৪ আগস্ট হাইকোর্টে রিট করেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়াচর) আসন থেকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী নুরুল কাদের সোহেল।

রিটে বলা হয়, সরকারি চাকরি থেকে অবসরের পর যে কোনো ব্যক্তি সাধারণ নাগরিক হয়ে যান। কিন্তু এক্ষেত্রে তাদের নির্বাচন করতে সময় বেঁধে দেওয়া হলো কেন। এটা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

রিটে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশন সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব, আইন সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিব এবং সব বিভাগের কমিশনারসহ ডিসিদের বিবাদী করা হয়। রিটটি গত বছরের ১৪ আগস্ট খারিজ করে দেন হাইকোর্টের পৃথক বেঞ্চ।

নিউজটি শেয়ার করুন

অবসরের পরই সরকারি কর্মকর্তাদের সংসদ নির্বাচনের সুযোগ কেন নয়: হাইকোর্ট

আপডেট সময় : ০৪:০৯:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর পার না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে না পারার প্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) বিধান কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক, অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসককে রুলের জবাব দিতে বল হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল এম এম জি গোলাম সারোয়ার পায়েল।

পরে রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম গণমাধ্যমকে বলেন, নির্বাচনে অযোগ্যতা নিয়ে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) (চ) চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এ রুল জারি করেছেন। রুলে সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর আগে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) এমন বিধান কেন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও বেআইনি হবে না তা জানতে চেয়ে চার সপ্তাহের রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

নির্বাচনে সরকারি চাকরিজীবীদের অযোগ্যতার বিষয়ে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও)-১৯৭২ এর ১২ (১) (চ) ধারায় বলা হয়, প্রজাতন্ত্রের বা সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের বা প্রতিরক্ষা কর্ম বিভাগের কোনো চাকরি থেকে পদত্যাগ করেছেন বা অবসরে গেছেন এবং ওই পদত্যাগ বা অবসর যাওয়ার পর তিন বছর অতিবাহিত না হয়ে থাকে। এ বিধান চ্যালেঞ্জ করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. শামীম কামাল হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। তিনি লালমনিরহটের আদিতমারীর বাসিন্দা। গত বছরের ২৫ অক্টোবর চাকরি থেকে অবসরে গেছেন তিনি।

গত বছরের গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুসায়ী, সরকারি চাকরি থেকে অবসরের তিন বছর অতিবাহিত না হলে কোনো সরকারি চাকরিজীবী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না। আইনের এ বিধান চ্যালেঞ্জ করে গত বছরের ৪ আগস্ট হাইকোর্টে রিট করেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়াচর) আসন থেকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী নুরুল কাদের সোহেল।

রিটে বলা হয়, সরকারি চাকরি থেকে অবসরের পর যে কোনো ব্যক্তি সাধারণ নাগরিক হয়ে যান। কিন্তু এক্ষেত্রে তাদের নির্বাচন করতে সময় বেঁধে দেওয়া হলো কেন। এটা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

রিটে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশন সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব, আইন সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিব এবং সব বিভাগের কমিশনারসহ ডিসিদের বিবাদী করা হয়। রিটটি গত বছরের ১৪ আগস্ট খারিজ করে দেন হাইকোর্টের পৃথক বেঞ্চ।